আর টিভিতে ধারাবাহিক নাটক কলেজ রোড

প্রথম পরিবারের কর্তা ব্যক্তি আজমল হোসেন। তিনি পেশায় একজন ব্যবসায়ী। স্থানীয় মার্কেটে তার দুইটি কাপড়ের ব্যবসা রয়েছে। তিনি ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির আগামী নির্বাচনে সেক্রেটারি পদে নির্বাচন করবেন বলে ভাবছেন। অবনী আজমল সাহেবের বড় ছেলে। অবনীর পড়াশুনায় মন নেই। সারাদিন টো টো করে পাড়ায় ঘুরে বেড়ায়। বাবার পকেট থেকে টাকা চুরি করে, মাকে ফুসলিয়ে টাকা নিয়ে বন্ধুদের সঙ্গে খরচ করে। অরপি অবনীর ছোট বোন; বয়স ২২/২৩। পড়ুয়া। সারাদিন ওর একটাই কাজ পড়া আর পড়া।

কায়সার সাহেব। তারও একটি মার্কেটে দোকান আছে। আজমল সাহেবের সঙ্গে কায়সার সাহেবের সম্পর্ক ছিল বেশ মধুর। কিন্তু আজমল সাহেব হঠাৎ করে ব্যবসায় ভালো করতে শুরম্ন করলে তার আচার-আচরণও কিছুটা পরিবর্তন হয়। তার দুই মেয়ে রম্নম্পা ও টুম্পা। সুন্দরী, স্মার্ট। বয়স ২২/২৩, নারীবাদী, কলেজে অনার্স পড়ে। রম্নম্পা আর অবনীর মধ্যে একটি মজার সম্পর্ক আছে দুজনই দুজনকে পছন্দ করে কিন্তু কখনই কারো মতের মিল হয়। দুজনের মধ্যে সারদিন কথা কাটাকাটি লেগেই থাকে। টুম্পা কলেজে পড়ে। বয়সের তুলনায় যেন একটু বেশী বড়। ছেলেদের সাথে টাংকি মারার একটি প্রবণতা তার আছে। অন্য পাড়ার কামালের সাথে তার একটা যোগাযোগ আছে।

সোবহান  সাহেব অবনীদের পাশের বাড়ীতেই থাকেন। এলাকার একটি সাংস্কৃতিক সংগঠনের সভাপতি। ভদ্রলোক কলেজের বাংলার শিক্ষক ও কবি। স্ত্রী নেই। তার একমাত্র ছেলে খৈয়াম। বয়স ২৪/২৫। মেধাবী। কিছুটা রোবোট ধরনের। গুছিয়ে কথা বলতে পারে না। ক্লাসের মেয়েদের ভীষণ ভয় করে ও। রম্নম্পার সাথে আন্তরিকতা বাড়লে একদিন ও সত্যি সত্যি ভালো একটি কবিতা লিখে ফেললো। ওর ধারণা হলো রম্নম্পার সঙ্গে অনত্মরঙ্গতার কারণেই ও এতো সুন্দর একটি কবিতা লিখতে পেরেছে। ও রম্নম্পার প্রেমে পড়ে যায়।

টাপ্পুর কোন পরিবার নেই। টাপ্পু তার বৈশিষ্টের কারণেই এলাকায় খুবই গুরম্নত্বপূর্ণ। টাপ্পু সাধারণত একটি ভাল ছেলে। কিন্তু অঘটন ঘটানোর কাজে মহা পারদর্শী। সেই কারণে অভিভাবক মহল তাকে পছন্দ করে না। সবার ধারণা টাপ্পুর সাথে মিশেই তার ছেলেটা খারাপ হয়ে যাচ্ছে। অথচ পাড়ার ইয়াং ছেলেরা সবাই তার খুব ভক্ত।

ঘটনা নতুন মোড় নেয় যখন তপন নামের ৩৫/৪০ বছরের  একজন ঢাকা থেকে  এসে কলেজ রোড পাড়ায় বাড়ী ভাড়া নেয়। তার একটিমাত্র মেয়ে রোদেলা। বয়স ৬/৭। তপন সাহেবের স্ত্রী নেই। তিনি রোদেলাকে নিয়ে একাই থাকেন। প্রতিদিন সকালে তিনি এলাকার বাইরে কোথায় যেন যান, বাসায় ফেরেন রাত করে। এটা ধীরে ধীরে সবার চোখে পড়তে থাকে।

বিভিন্ন চরিত্রে  অভিনয় করেছেন : আনিসুর রহমান মিলন, নাদিয়া , রওনক হাসান, জ্যোতিকা জ্যোতি, শাহরিয়ার শুভ, স্বাগতা, শামস সুমন, ফারজানা চুমকি, খায়রম্নল আলম সবুজ, আফরোজা বানু, এস এম মহসিন, মাহবুবা রেজানুর, মাসুদ আলী খান, মাহমুদুল ইসলাম সেলিম, মোখলেছুল হক, ঈপ্সা আজাদ প্রমুখ।

তৌহিন হাসানের রচনা ও দিপঙ্কর দীপনের পরিচালনায় নাটকটি আজ সোমবার বার রাত ৮টা ২০ মিনিটে আরটিভিতে প্রচারিত হবে।

ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডট কম/বিনোদন নিউজ

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে ১৬টি কমিউনিটি রেডিও

ঢাকা :: ১৬টি কমিউনিটি রেডিও একযোগে বিরতিহীনভাবে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীকে সচেতন ...