ব্রেকিং নিউজ

সুন্দর পৃথিবী গড়ার প্রত্যয়ে RUN-25’র লোগো উন্মোচন

সুন্দর পৃথিবী গড়ার প্রত্যয়ে উন্মোচন হলো RUN-25'র নতুন লোগো

লোগো উন্মোচন

জুনাইদ আল হাবিব: এ পৃথিবীতে আরো একটি সমাজের সৃষ্টি হবে। যেটা হবে নির্মল, বিশুদ্ধ প্রকৃতির ছোঁয়ায় মুগ্ধকর। যেন যুগের পর যুগ, প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম, একটি নিরাপদ বাসযোগ্য পরিবেশ পায়। যেন মানুষ মুক্ত উচ্ছ্বাসে পৃথিবীতে মন খুলে চলতে পারে।

এমন প্রত্যয় নিয়ে প্রাকৃতিক পরিবেশে শুক্রবার (২৮আগস্ট) গাজীপুর মীরের বাজারের সহয বাড়িতে উন্মোচন হয় সামাজিক ও তারুণ্যের সংগঠন RUN-25’র নতুন লোগো।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনটির সভাপতি, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার মনিরুজ্জামান চৌধুরী, সংগঠনের সদস্যরা।

সংগঠন সূত্র বলছে, ১৯৯৭সালে ঢাকার মিরপুরের শেওড়াপাড়ায় স্থানীয় যুবকদের উদ্যোগে আত্মপ্রকাশ করে RUN-25। পরের বছরেই ১৯৯৮ সালের বন্যা, ২০০৪ সালের বন্যাসহ বিভিন্ন বড় বড় দুর্যোগ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে সংগঠনটি৷ শুরু থেকে শীত মৌসুমে শীতার্তদের মাঝে শীত নিবারণের জন্য কম্বল, শীতবস্ত্র বিতরণ হয়ে আসছে৷ বিভিন্ন সময়ে অসহায়দের পাশে, যে কোন সমস্যায় দাঁড়িয়েছে সংগঠনটি। ডেঙ্গু, চিকনগুনিয়া, এসবের প্রাদুর্ভাব কমানোর জন্য পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

সবশেষ সংগঠনটির চমকপ্রদ উদ্যোগ হচ্ছে, করোনাকালে ভাইরাস নিস্ক্রিয়করণে চেম্বার স্থাপন। মিরপুরের শেওড়াপাড়ায় প্রবেশ পথে এবং বের হওয়ার পথে। তাছাড়া প্রথম উদ্যোগ ছিল মানুষেন পাশে দাঁড়ানো। খাবার সংকট প্রতিরোধের পাশাপাশি মানুষের ব্যাক্তিগত নিরাপত্তার বিষয় থেকে করোনাভাইরাস নিস্ক্রিয়করণ চেম্বার স্থাপন করা হয়।

কিভাবে এ চিন্তা মাথায় এলো, এ প্রসঙ্গে বলছিলেন RUN-25 এর সভাপতি মনিরুজ্জামান চৌধুরী, “মূলত করোনা ভাইরাস যখন পুরো বিশ্বে মহামারি আকার ধারণ করছিলো। তখন মানুষ খুঁজতে থাকে, এ থেকে মুক্তি পাবার উপায় কী? সেক্ষেত্রে সোস্যাল মিডিয়ার সুবাদে আমরা দেখলাম, ভিয়েতনাম, তাইওয়ান করোনা ভাইরাস নিস্ক্রিয় চেম্বার স্থাপন করে সফলতা লাভ করেছে। আমরা দেখলাম, খাবারের সংকট ছাড়াও মানুষজন নিত্যদিনের প্রয়োজনে বাজারে শাক সবজি কিনতে যান বা অন্য কোন প্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের হন। সে জন্য ব্যক্তিগত নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে সে জন্য আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম, মিরপুরের শেওড়াপাড়ায় মানুষ ঢুকতে এবং বের হতে চেম্বারে ঢুকে ভাইরাস নিস্ক্রিয় করবে৷ প্রতিদিন ২-৩’শ লোককে দেখতাম, এ পদ্ধতিটা ব্যবহার করছে। কেউ চেম্বারের ভিতরে ঢুকলে সেন্সর কাজ করে। সেন্সরের মাধ্যমে মাত্রা অনুযায়ী স্প্রে মানুষের দেহে লাগলে ভাইরাসটি নিস্ক্রিয় হয়। ১০-১৫সেকেন্ড পর স্প্রেটা শুকিয়ে যায়।

নতুন লোগোটা কেন? এ প্রসঙ্গে তিনি বলছিলেন, নতুন লোগোর কনসেপ্ট হচ্ছে, আমরা মূলত পরিবেশ নিয়ে এখন কাজ করছি। সে জন্য দেখেন, প্রাকৃতিক পরিবেশের মধ্য দিয়ে আমরা নতুন লোগোটা উন্মোচন করেছি। সব প্রতিকূলতা শেষে আবার উঠবে নতুন সূর্য। নীল আকাশে ভাসবে আবার সাদা মেঘের ভেলা, পরিশুদ্ধ আকাশে উড়বে স্বাধীন পাখি। চাই বসবাসযোগ্য সুন্দর সবুজ নতুন পৃথিবী। আর এর জন্য সাধ্যমতো প্রসারিত আমাদের সকলের হাত। বিপর্যয় কাটিয়ে আবার নতুন করে শুরু করার জন্য আজ সারা পৃথিবী জুড়ে প্রয়োজন এমন অনেক অনেক হাত। তাই আমাদের হাত আমরা বাড়িয়ে দিয়েছি সুস্থ্য সুন্দর বসবাসযোগ্য নতুন পৃথিবীর জন্য।

সংগঠনটির উদ্দেশ্য তুলে ধরে মনিরুজ্জামান চৌধুরী বলছিলেন, এমন একটা সমাজ আমরা তৈরি করবো, আমাদের গন্ডির মধ্যে সম্ভব। সেখানে সুন্দর, বসবাসযোগ্য সমাজ যাতে তৈরি হয়। যাতে আমাদের পরবর্তী জেনারেশন সুন্দর এটা পরিবেশ পায়৷ বসবাসের জন্য আমরা নিজেরা ভালো থাকবো এবং আমাদের আশপাশের লোকজন আছে, যাদের যে কোন সমস্যায় আমরা পাশে দাঁড়াতে পারবো। যে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগে আমরা চেষ্টা করছি, মানুষের পাশে থাকার জন্য, পাশ দাঁড়ানোর জন্য।

Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বিএনপি মনোনয়ন বাণিজ্য করে হতাশ হয়ে পড়েছে : হানিফ

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ ...