বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেছেন, ফেলানী হত্যার জন্য ভারত সরকারকে জবাবদিহি করতে হবে। বিএনপি ক্ষমতায় গেলে ভারতের কাছে এ হত্যাকাণ্ডের জবাব চাইবে।

তিনি বলেন, ‘ভারতের গণতন্ত্র হচ্ছে বন্দুকের গণতন্ত্র। তারা বন্ধুত্বের কথা বললেও ১৪ বছর বয়সী বাংলাদেশি নাগরিক ফেলানীকে হত্যা করে বন্ধুত্বের প্রমাণ রাখেনি।’

শনিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এ সদস্য এসব কথা বলেন।

৭ জানুয়ারিকে ফেলানী হত্যা দিবস ঘোষণার দাবিতে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম এ মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করে।

মঈন খান বলেন, বাংলাদেশি জনগণের কাছে ফেলানী হত্যার জন্য ভারতকে জবাবদিহি করতে হবে। বিএনপি ক্ষমতায় গেলে এ হত্যাকাণ্ডের জন্য ভারতের কাছে জবাব চাইবে।

তিনি বলেন, পার্শ্ববর্তী কোনো রাষ্ট্রের সাথে সুসম্পর্ক স্থাপনে ব্যর্থ হয়ে বাংলাদেশি জনগণের ওপর চেপে বসতে চায় ভারত। বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী জনগণ ভারতের এ ইচ্ছা কোনো দিনই পূরণ হতে দেবে না।

মঈন খান বলেন, ভারত গায়ের জোরে এশিয়ার অর্থনীতিকে নিজেদের দখলে রাখতে চায়। সেজন্য বাংলাদেশের ১৩ কোটি মানুষের বাজারকে কুক্ষিগত করতে ভারতের অচল পণ্য বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিচ্ছে। অথচ বাংলাদেশের কোনো পণ্য ভারতে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বিএনপির অর্থ-বিষয়ক সম্পাদক ও ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবদুস সালাম, নির্বাহী কমিটির সদস্য খালেদা ইয়াসমিন, যুবদল সভাপতি অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ।

ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডট কম/স্টাফ রিপোর্টার

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here