রোজিনা হোসেন

নিফাত সুলতানা মৃধা :: ‘যে নারী রাঁধে, সে চুলও বাঁধে’ প্রবাদটি বইপুস্তকে পড়লেও কালেভদ্রে তা আজকাল চোখে মেলানো ভার। নারী গৃহিণী, চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী বিভিন্ন কাজের সাথে যুক্ত থাকে। নানামুখী এসব কাজ কেউ যখন একা হাতে সামলায় তখন সে হয়ে ওঠে গুণবতী। ঠিক তেমনি একজন নারী রোজিনা হোসেন। কাজ করছেন অনলাইন মার্কেট প্লেস নিয়ে। ঘর সামলে, ব্যবসাতেও কম খাটুনি নেই। তবুও ক্লান্ত হননি!

‘স্বল্প বিনিয়োগ নিয়ে দশে মিলে করি কাজ’ এই ধারণা নিয়ে তিনিই প্রথম বাংলাদেশে শুরু করেছেন ওয়েবসাইট প্রমোশন। যেখানে সবাই সবার সাপোর্ট হয়ে নিজেদের পণ্যকে ব্র্যান্ড হিসেবে তৈরি করতে আরেকধাপ অগ্রসর হবে। তেমনি নতুনত্বের ধারণা নিয়ে প্রতিভার বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছেন যে কিনা অনলাইন প্লাটফর্মে তৈরি করেছে একটি মার্কেট-প্লেস যেখানে ১৩ জন উদ্যোক্তা তাদের পণ্য প্রদর্শন করতে পারবে আর ক্রেতারা পাবে একটি পেজে বাহারি ধরণের পণ্য। যার ফলে এক ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে প্রয়োজনীয় সব জিনিস।

তিনি বলেন, চাকরি ছেড়ে দেওয়ার পর স্বল্প পুঁজি নিয়ে নিজ উদ্যোগে ব্যবসা শুরু করি। শুরুটা ছিলো চিটাগাং বড় বোনের পরামর্শে, স্কুলের একটি রি- ইউনিয়নের মাধ্যমে। এরপর শুরু করি ডিজাইনার কালেকশন ফেসবুক পেইজ। ধাপে ধাপে নিজেকে একটু একটু করে উন্নতি করে বিভিন্ন জায়গা থেকে দেখে নিজের চিন্তা ধারার উন্নতি ঘটিয়ে পার্টনারশিপের মাধ্যমে নিজের ছোট একটি কারখানা দেই।

একেবারে প্রথম দিকে রোজিনার তৈরি বিজনেস প্লাটফর্ম কিভাবে কাজ শুরু করে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রথমে নানা প্রতিকূলতা পার করতে হয়েছে। দেখা গেছে কাস্টমার বিশ্বাস করতো না, প্রোডাক্ট নিলেও তা ফেরত আসতো, আগে পেমেন্ট করতো না তখন মানুষ অনলাইনে কেনাকাটায় এতটা বিশ্বাসী ছিলো না। ওই ধাক্কাগুলো পার করেই টিকে থাকতে হয়েছে। সেই সময়টা আমি আমার চারপাশ থেকে খুবই সাপোর্ট পেয়েছি।

তিনি বলেন, ডিজাইনার কালেকশন অনলাইন ব্যবসা প্রায় পাঁচ বছর হয়ে গেল শুরু করি। এখানে রয়েছে হ্যান্ড ব্লক প্রিন্টের সব ধরণের প্রোডাক্ট, কাঁপল ড্রেস, বেড শিট, পর্দা, শাড়ী, বাচ্চাদের পোশাক, বিভিন্ন ধরণের পণ্য নিয়ে কাজ করছি, সিজোনাল পণ্য যখন যেই পণ্যের চাহিদা বেশি তা নিয়েই কাজ করছি। আমি চেষ্টা করছি মানুষের বাজেটের মধ্যে সম্পৃক্ত প্রোডাক্ট দেওয়ার জন্য।

পোশাকের চাহিদা বিষয় নিয়ে তিনি বলেন, আমাদের কটন কালেকশন সারা বছর বিক্রি হয়। এটির চাহিদা সব থেকে বেশি থাকে। আমাদের ডিজাইনগুলো অনন্য। যেহেতু আমরা নিজেরা ডিজাইন করি আমাদের ডিজাইনের স্টক আউট হয় নি কখনো । প্রায় ২০০/২৫০ ডিজাইন নিয়ে আমরা কাজ করি। এখানে এতো ঘন ডিজাইন নিয়ে আমরা কাজ করি যেটা কপি করে আর কেউ তৈরি করতে পারবে না। এই জায়গাগুলো থেকে আমরা ইউনিক, আমরা আমাদের জায়গাটা ধরে রাখতে পেরেছি। প্রতি মাসে একরকম বিক্রি হয় না।

করোনায় ব্যবসার ভালোমন্দ নিয়ে উদ্যোক্তা রোজিনা আরও বলেন, করোনাকালে সব থেকে বেশি বিক্রি হয়েছে, প্রথমে ভয় ছিল কিন্তু আস্তে আস্তে বিক্রি বেশি হয়। ব্যবসায় কোনো মন্দা যায় নি। চাহিদা বেশ ভালো ছিলো। এই যাবৎকালে সব থেকে ভালো বিক্রি ছিল ঈদগুলোতে।

এছাড়া অদূর ভবিষ্যতে রোজিনার তৈরি করা মার্কেট প্লেস নিয়ে তিনি বলেন, আমার স্বপ্ন ব্যবসাটা যেনো ধরে রাখতে পারি। নিজেকে যেন শক্ত করতে পারি। লিমিটেশনে না থেকে ছড়িয়ে যেতে চাই, যেন সবাইকে তার চাহিদামত পণ্য দিতে পারি। এই জিনিসগুলোর উপরে আমার ঝোঁক আছে। একজন ট্রেইনার হিসেবে নিজেকে পরিচিত করতে চাই। পাশাপাশি ডিজাইনার কালেকশনকে ব্যান্ড হিসেবেও পরিচিত করতে চাই।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here