এএইচএম নোমান

এএইচএম নোমান :: অনেক পুরোনো একটি প্রবাদ ‘যা বাংলা আজ ভাবে, তা ব্রিটিশ কাল ভাবে’। হাত ধোয়া-সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, পরিষ্কার পরিছন্ন থাকা, বটম আপ এপ্রোচে ‘স্বাস্থ্য গ্রাম’ কেন্দ্রিক সমন্বিত উন্নয়নকে গুরত্ব দিয়ে ডর্‌প দুই দশক থেকেই প্রচার প্রচারণা করে আসছে।

ধরিত্রীর গোঁড়ার দিকে গেলে সৃষ্টি কর্তার আদেশ নির্দেশের মধ্যেও ‘পরিষ্কার পরিছন্নতা ঈমানের অঙ্গ’ ধর্মীয় অনুসাশনেও বলিত আছে। সকল ধর্মের প্রার্থনা বিশেষ করে মুসলমানদের বাধ্যতামূলক ধর্মীয় চর্চ্চা নামাজ প্রতিদিন ৫ ওয়াক্ত, তা হাত ধোয়া দিয়েই শুরু করতে হয়। শুধু তা-ই নয় শুদ্ধ ও পবিত্রতার জন্য পানি না থাকলে তাইম্মুম করতে হয়। তেমনি ভাবে প্রস্রাব পায়খানা বা অপবিত্র কাজ করলেও হাত ধোয়া, কুলি করা, পানির গড়গড়া করা, মুখ ধোয়া, পা ধোয়া, গোসল করা ইত্যাদি দৈনন্দিন কাজ। যা পবিত্রতার বিশালতা ও আনন্দের প্রতীক। মন মানসিক স্বাস্থ্য প্রশান্তির অনুশীলন।

অপরপক্ষে গ্রামে, মাঠে ক্ষেতে গরু ছাগল গোয়াল ঘর থেকে ক্ষেতে বিলে ঘাস খাবারের জন্য আনা নেয়া করতে পশু মালিকরা মুখে ঠুলি পরাতে হয়। দয়ালু মনিব সঙ্গে থেকে হাঁক ডাক ভয়, হাতের লাঠির ইশারা বা শাস্তির জন্য ২/১ বার লাঠি পেটা দিয়েও শাসন করে। পশুর চলাচল পথে অন্যের ফসল-ঘাস খাওয়া বা পাকা ধান মাড়াতে- মেই কালেও ঠুলি লাগিয়ে দিতে হয় যাতে ধান খেতে না পারে। পেট ভরা থাকলে আবার কিছু কিছু গরু সোজা সাদা ভাবেই থাকার স্থানে আসে যায়।

এখন সেই গরু ছাগলের ঠুলি আমাদের- মানুষের মুখেও লাগাতে হচ্ছে। কারণটা কি? মানুষও কি গরু ছাগলের মত লোভ, পরের সমপদ, ফসল খায়? কম্যুনিষ্ট চীনের করোনা ভাইরাস তান্ডবের ফলে ধনেবিত্ত শক্তিশালী আমেরিকা নাস্তা নাবুদ কেন? প্রেসিডেন্ট ট্রামপ মাস্ক/ঠুলি পরতে নারাজ কেন? বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে (হু) অংশীদারী টাকা প্রদান বন্ধ করল কেন? এত্ত সব প্রশ্নের উত্তরই কিন’ নিজেকে পরিচ্ছন্ন রাখা। পরের ধন-হক ভক্ষণ, ত্রাস ঘুষ দুর্নীতি চুরি চামাড়ি না করা। গণতন্ত্রের মুখেও ঠুলি না লাগানো। তাহলেই মেকী মুখোশ/মাক্স পরা প্রয়োজন হবে না। সারা সময় হাত ধোয়ার প্রয়োজন হবে না। মিথ্যা উন্নয়নের ঢোল পিটাতে হবে না। হাত ধোয়া-মাক্স লাগানোর অভ্যাস পরিবর্তনের সঙ্গে চরিত্রেরও অভ্যাস বদলাতে হবে। চরিত্রহীন মানুষ পশুর থেকেও অধম।

কিছুদিন আগে দৈনিক জনকন্ঠ পত্রিকায় করোনার ভয়বহতার প্রেক্ষিতে কবি মারুফ রায়হান লিখেছিলেন, ‘মানুষ থেকে সাবধান!’ বুঝলামনা কেন তিনি কুকুর থেকে সাবধানের বদলে মানুষ থেকে সাবধান লিখলেন? শান্তি, ন্যায্যতা ও সাম্যতার মানুষ হতে হবে। সৎ মানব কেন্দ্রীক উন্নয়নই হলো সৃস্টিকর্তার বার্তা। মানব কিন্তু দানব চরিত্রের হতে পারে না। আমরা মানুষ কিন’ ‘পানি’ থেকেই সৃষ্টি। এই পানির অপর নামই জীবন। ভারত পিতা গান্ধীজিও বলেছেন – ‘গণতন্ত্র থেকে সেনিটেশন বেশী গুরত্বপূর্ণ।’ ২০১৩ সালের ২১-২৪ অক্টোবর নেপালের কাঠমুন্ডুতে অনুষ্ঠিত পঞ্চম দক্ষিণ এশীয় স্যানিটেশন সম্মেলন সেকোসেন-৫ এ কাঠমুন্ডু ঘোষণায় ডর্‌প’র প্রস্তাবিত ‘পাবলিক পূয়র প্রাইভেট পার্টনারশীপ (পিপিপিপি)’ অন্তর্ভূক্ত হয়।

পানি বিষয় সমস্যা সমাধানে ডর্‌প অভিযাত্রায় ‘মা সংসদ’ কার্যক্রম গত ২১ অক্টোবর ২০২০ সুইডেনের স্টকহোমে ‘গো্লবাল ওয়াটার পার্টনারশীপ চেইঞ্জ মেইকার এওয়ার্ড-২০২০’ প্রতিযোগিতার প্রথম ফাইনালিষ্ট হিসাবে নির্বাচিত হয়েছে। ‘মা সংসদ’ এডভোকেট ফর ক্লাইমেট রিজিলিয়ান্স ওয়াশ ফেসিলিটি প্রকল্প আওতায় উপকুলীয় সুপেয় পানি সংকট সম্পন্ন মোরেলগঞ্জ, পাইকগাছা ও কয়রা উপজেলায় ‘পানিই জীবন’ প্রকল্প বাস্তবায়নে সুইজারল্যান্ডসস্থ ‘হেলভিটাস সুইস ইন্টারকোঅপারেশন’ সংস্থা পার্টনারশীপ সহায়তায় মা সংসদ ইনোভেটিভ অনুশীলনে ডর্‌প চেঞ্জ মেইকারের কাজ করে আসছে। আজকের এই আন্দঘন দিনে স্থানীয় উদ্যোক্তা, মা সংসদসহ জাতীয়, আন্তর্জাতিক সংশ্লিষ্ট সকলকে অভিনন্দন জানাই।

অক্টোবর ২০২০ জাতীয় সেনিটেশন মাস উপলক্ষ্যে ডর্‌প’র এই এওয়ার্ড প্রাপ্তি জাতির-ই প্রাপ্তি। সরকার এই উদ্যোগের মূল্যায়ণ-ইতিকথা সফল দৃষ্টান্ত গ্রহণ করে সারাদেশে স্থানীয় সরকার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানিক বাস্তবায়ন কাঠামোতে অন্তর্ভূক্ত করার আহবান জানাই। তাহলেই আন্তর্জাতিক স্বীকৃত তথ্য প্রমাণিত উদ্যোগ টেকসইতা পাবে। এসডিজি-৬ এজেন্ডার লক্ষ্য পূরণ হবে। বিক্ষিপ্ত বা বুদবুদের মত ক্ষণস্থায়ী হবে না। গরীব-সাধারণ মানুষের অংশীদারিত্ব জড়িত করার মাধ্যমে প্রকৃত উন্নয়ন করতে হবে। উন্নয়ন শুদ্ধাচার ও মানুষ কেন্দ্রিক হতে হবে। আদর্শিক রাজনীতিক দেশ প্রেমিক কেন্দ্রীক হতে হবে। অনৈতিক ধনী-দানব কেন্দ্রিক হলে হবে না। তা হতে হবে সামষ্টিক উন্নয়ন বটম লাইনিং মা কেন্দ্রিক। যা সরকার মাতৃত্বকালীন ভাতা ও তৎকেন্দ্রিক স্বপ্ন প্যাকেজ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। তা হলেই জাতীয় স্যানিটেশন শুধু মাস হিসেবেই পালিত হবে না; বরং উন্নয়ন মিটিগেশন হিসেবে চিরকাল বহমান থাকবে।

 

 

লেখক: কলামিষ্ট। ইমেইল: [email protected]

 

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here