ফরহাদ খাদেম, ইবি সংবাদদাতা ::
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেছেন, ‘৪১-এর স্মার্ট ও উন্নত বাংলাদেশ গড়তে শিক্ষার্থীদেরকেই দায়িত্ব কাঁধে তুলে নিতে হবে। পুঁথিগত জ্ঞান, প্রশিক্ষণগত উৎকর্ষতা এবং টেকনোলজি ব্যবহার করে এন্ট্রাপ্রেনিউরশিপ উৎপাদন সক্ষমতায় চলে যাওয়ার মনোভাব নিয়ে আমাদের শিক্ষার্থীরা আগামী দিনে এগিয়ে যাবে এবং নতুন বাংলাদেশ গড়ে তুলবে। 
তিনি আরও বলেন, স্বপ্নের স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে দেশের শিক্ষাব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আনা হচ্ছে। আমাদের টেকনোলজি ও কারিগরি শিক্ষার দিকটি একসময় উপেক্ষিত ছিল। আগে জাতিকে হয়ত শুধু শিক্ষিত করা যেতো, এখন আমাদের মানুষকে শিক্ষিত এবং কেজো করে তোলার দিকে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। অলস ভাবকে সৃষ্টিশীলতায় পরিণত করার প্রয়াস গ্রহণ করা হচ্ছে। যাতে করে জ্ঞান এবং তার প্রয়োগ ঘটিয়ে দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে। আজকের শিক্ষার মূল উদ্দেশ্য জ্ঞানের পাশাপাশি চাকরি খোঁজার জায়গাটা থেকে বেরিয়ে এসে চাকুরি দেয়ার জায়গাটায় নিজেদেরকে তৈরি করা।
বুধবার (২৯ মে) দুপুর ১১টায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের পরমাণুবিজ্ঞানী ড. এম. এ. ওয়াজেদ মিয়া বিজ্ঞান ভবনের ১০২ নম্বর কক্ষে অনুষ্ঠিত ‘ইমপ্যাক্ট এন্ট্রাপ্রেনিউরশিপ এনেবলিং সাসটেইনেবল ফিউচার’ শীর্ষক মাইক্রো-কোর্সে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।
আইসিটি ডিভিশন, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি), ওয়ান বাংলাদেশ এবং ইনোভেশন ডিজাইন অ্যান্ড এন্ট্রাপ্রেনিউরশিপ একাডেমি (আইডিয়া) এর যৌথ আয়োজনে মাইক্রো-কোর্সেটি অনুষ্ঠিত হয়।
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান অনুষদের ডিন ও ওয়ান বাংলাদেশ, কুষ্টিয়া জেলার সভাপতি অধ্যাপক ড. রেজওয়ানুল ইসলামের সভাপতিত্বে সেশনে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান। এসময় আইডিয়া প্রজেক্টের সিনিয়র কনসালট্যান্ট ও হেড অব অপারেশন সিদ্ধার্থ গোস্বামী এবং কেরু অ্যান্ড কোম্পানির প্রোডাকশন ম্যানেজার আব্দুল হালিম অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।
এসময় ওয়ান বাংলাদেশ, কুষ্টিয়া জেলার সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. আবু হেনা মোস্তফা জামালের সঞ্চালনায় মূল বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঝিনাইদহের রাইয়ান পার্ল হারবাল-এর পরিচালক ড. নজরুল ইসলাম।
Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here