সাংবাদিক সুপন রায়

নূহু আব্দুল্লাহ :: প্রায় দেড় যুগ সাংবাদিকতা করলাম মেইনস্ট্রিম মিডিয়াতে। অনেক সাংবাদিকের সঙ্গে পরিচয় হয়েছে এরমধ্যে। কিন্তু বাংলাদেশের টিভি মিডিয়ার সাংবাদিকতায় প্রথম দিককার তারকা সাংবাদিকদের একজন ‘সুপন রায়’ -এর সঙ্গে পরিচিত হতে পারিনি! কারণ, সম্ভবত তিনি নিজেকে একটু নিভৃতে রাখেন। তাই ইতোপূর্বে সুপন দা কে কেবল নামে চিনেছি। ব্যক্তিগতভাবে তার সঙ্গে পরিচয় হয়নি আগে। কিন্তু তার কর্মকাণ্ড দেখে তার প্রতি শ্রদ্ধা বেড়ে গেছে বহুগুণে! আমি খুব কম মানুষকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠাই।সুপন দার কর্মকাণ্ড দেখে নিজে থেকে তাকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট না পাঠিয়ে পারিনি। তিনি খুব দ্রুত অ্যাকসেপ্ট করেছেন!

আমি আসলে বলতে চাচ্ছি করোনাকালে মধ্যবিত্ত মানুষের জন্য কাজ করা সংগঠন স্পিক আউট নিয়ে। স্পিক আউটের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রিন্সিপ্যাল কো-অর্ডিনেটর দেশের স্বনামধন্য সাংবাদিক সুপন রায়। তিনি করোনাকালে হঠাৎ অসহায় হয়ে পড়া নিম্ন মধ্যবিত্তদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য কাজ করছেন স্পিক আউট নামে সংগঠনের ব্যানারে। সংগঠনটি এ পর্যন্ত শতাধিক নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের খাদ্য সমস্যা, ঘর ভাড়া, বাড়িওয়ালা কর্তৃক নারী নির্যাতনসহ নানা ধরনের সমস্যা সমাধান করে ইতোমধ্যে সামাজিক কর্মকাণ্ডে নিজেদের সুনাম অর্জন করেছে।

করোনাকালে অসহায় হয়ে পড়া মানুষগুলোর বর্তমান অবস্থা সত্যিই করুন। স্পিক আউটের ফেসবুক পেইজে ঢুকলে সেসব মানুষের অন্তত কয়েকজনের দুর্দশার চিত্র পাওয়া যায়। স্পিক আউট তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। তাদের কেউ পরিবারে ৯ জন সদস্য নিয়ে সপ্তাহের বেশি সময় ধরে না খাওয়া! কোনো পরিবারের ৭ জন সদস্য কেবল মুড়ি খেয়ে কয়েকদিন ধরে দিনাতিপাত করছে! কোনো পরিবারের পাশে করোনা রোগী পাওয়া গিয়েছে এজন্য তাদের বাসা লকডাউনের আওতায় পড়ে গেছে!

ফলে তারা না পারছে খাবার কিনতে, না পারছে ওষুধ আনতে! না পারছে ডাক্তারের কাছে যেতে! কোনো পরিবার বাড়িভাড়া দিতে পারছে না! তিন মাসের ভাড়া বাকি পড়ে গেছে! তাদের ঘরে খাবার নেই এ অবস্থায় বাড়িওয়ালার চাপ! এমন সব অসহায় মানুষ স্পিক আউটের কাছে তাদের দুর্দশার কথা জানিয়েছে! স্পিক আউট তাদের ডাকে সাড়া দিয়ে এই চরম বিপদকালে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে!

এসব দুর্দশাগ্রস্ত মানুষের কান্না, তাদের সকল কথা খুব ধৈর্য ধরে আন্তরিকতার সঙ্গে শোনেন সংগঠনটির সিনিয়র সাপোর্ট ম্যানেজার সুমাইয়া সমছুদোহা। প্রতিদিন কতো মানুষ যে তাকে কল করে তাদের দুঃখ-কষ্টের কথা বলে! তিনি তার সামাজিক কর্মকাণ্ডের অভিজ্ঞতার আলোকে তাদের মধ্য থেকে প্রকৃত দুর্দশাগ্রস্ত মানুষকে কেবল কথা শুনেই প্রাথমিকভাবে বাছাই করার কাজটি দক্ষতার সঙ্গে করে ফেলতে পারেন। তারপর রয়েছে তাদের দ্বিতীয় ধাপ। তারা অসহায় পরিবারটির ঠিকানা নিয়ে সশরীরে গিয়ে খোঁজ নেন। তারপর তাদের চাহিদা অনুযায়ী সহায়তার ব্যবস্থা করেন।

সুমাইয়া শামসুদ্দোহা

বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশে প্রচুর মানুষ বিশেষ করে নিম্ন মধ্যবিত্ত শ্রেণিতে থাকা মানুষ হঠাৎ করে একটা কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে পড়ে গেছে! সেসব মানুষের কষ্ট এভাবে হৃদয় দিয়ে বোঝার মানুষ খুব কম আছে! এই মানুষটি সেই নিম্ন মধ্যবিত্তদের পাশে দাঁড়ানোর কাজটি করছেন! আর তার এই কাজটির সবচেয়ে বড়ো সহায়ক হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে সিনিয়র সাপোর্ট ম্যানেজার সুমাইয়া শামসুদ্দোহা! বলা যায় দুজনে অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষের জন্য। তাদের দুজনের সঙ্গে রয়েছে তাদের টিম। অবশ্যই যাদের সহযোগিতা, আন্তরিকতা ছাড়া কঠিন কাজটি এত চমৎকারভাবে করা সম্ভব ছিল না। কাজটিতে তারা যে কি আন্তরিক তা তাদের পেইজে ঢুকলে বুঝতে পারা যায়!

সাহায্যগ্রহীতাদের মধ্যে আমি একজনকে চিনি। যিনি আমাকে স্পিক আউট সম্পর্কে বললেন, ‘স্বামী বেতন পেয়েছিলেন ৫০ শতাংশ! আর্থিকভাবে সমস্যায় পড়েছিলাম। যে কারণে ঘরভাড়া না দিতে পারায় আমি নানাভাবে লাঞ্চিত হচ্ছিলাম বাড়িওয়ালা ও তার দারোয়ানের কাছে! পরে স্পিক আউট আমার পরিবারের প্রতি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেয়! আমার সব সমস্যার সমাধান তো হয়েছেই। লাঞ্ছনার জন্য পুলিশি সহায়তাও দিয়েছে স্পিক আউট। বাড়িওয়ালা, দারোয়ান পরে ক্ষমা চেয়েছে আমার কাছে!’

আরেকজন তার পরিবারের ৭ জন সদস্যকে নিয়ে ৬-৭ দিন কেবল মুড়ি খেয়ে জীবন যাপন করছিলেন! তাদের পাশে দাঁড়ানোর পর স্পিক আউটের সিনিয়র সাপোর্ট ম্যানেজারকে কল করে তারা বলেছিলেন, ‘আল্লাহকে দেখিনি বা ফেরেশতাকে দেখিনি। কিন্তু মনে হচ্ছে ফেরেশতা আপনারা!’

একটা দারুন কাজ, দারুন উদ্যোগ স্পিক আউট! স্পিক আউট টিমকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি তাদের আন্তরিক কর্মকাণ্ডের জন্য। স্যালুট এবং ভালোবাসা জানাচ্ছি সুপন দাদাকে! সেই সঙ্গে ধন্যবাদ জানাচ্ছি সিনিয়র সাপোর্ট ম্যানেজার সুমাইয়া শামসুদ্দোহাকে। আপনাদের স্পিক আউট (A Silent Humanitarian Initiative/একটি নীরব মানবিক উদ্যোগ) সফল হোক।

স্পিক আউটকে সরাসরি কল করার জন্য মোবাইল নম্বর: 01766-523124.

পেজটির ফেসবুক লিংক: https://www.facebook.com/speakoutc19/

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here