ব্রেকিং নিউজ

সোমবার শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় দিবস

রিয়াজ উদ্দিন, সংবাদকর্মী ও শিক্ষার্থী, শাবিপ্রবি

হযরত শাহজালাল (র) এর পবিত্র পূণ্যভূমিতে তাঁর নাম বিজরিত চারদিকে টিলা বেষ্টিত সুশোভিত, শ্যামলিয়া ঘেরা নয়নাভিরাম সবুজ ক্যাম্পাস। অপূর্ব নৈসর্গিক সৌন্দর্যমণ্ডিত শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়েছিল ১৯৯১ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি। ৩২০ একর ভূমিতে মাত্র তিনটি বিভাগ ও ২০৫ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম শুরু হয়েছিল তা বাংলাদেশের প্রথম ও বৃহত্তম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। ক্যাম্পাসের ৬টি অনুষদে তেনশটি বিভাগে বর্তমানে ৯ হাজারও অধিক শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছে। এছাড়া আরেকটি অনুষদে রয়েছে ৫টি অধিভূক্ত মেডিকেল কলেজ যেখানে সাড়ে চার হাজার শিক্ষার্থী চিকিৎসা বিদ্যায় অধ্যয়ন করছে।
পদার্থবিজ্ঞানী রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা শিক্ষক প্রফেসর ড. ছদরুদ্দিন আহমদ চৌধুরী ছিলেন এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ভাইস চ্যান্সেলর। বর্তমানে ৮তম ভাইস চ্যান্সেলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন প্রফেসর ড. মো. সালেহ উদ্দিন। বিশ্ববিদ্যালয়ে ইন্টিগ্রেটেড তথা সমন্বিত অনার্স কোর্স চালু হয় এবং সব বিভাগে সেমিস্টার ও গ্রেডিং পদ্ধতি প্রচলন হয় যা বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালগুলোর মধ্যে প্রথম।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগে উন্নতমানের গবেষণা হচ্ছে। দেশের নানা সমস্যা ও প্রয়োজনের সাথে সম্পৃক্ত এষানকার গবেষণা। কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড পলিমার সায়েন্স এবং সিভিল এন্ড এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে পরিবেশ, শিল্পের দূষিত বর্জ্য  পানি বিশুদ্ধকরণ, বিল্ডিং স্যাটেরিয়াল ইত্যাদির উপর আন-র্জাতিক মানের গবেষণা হচ্ছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভূক্ত বিভাগ নৃবিজ্ঞান, সমাজকর্ম, সমাজবিজ্ঞান সিলেট তথা বাংলাদেশের বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা নিয়ে গবেষণা করছে। যা এ বিশ্ববিদ্যালয়ের খ্যাতিই বহন করে।
বর্তমান যুগ তথ্যের যুগ। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির বিপ্লব এনেছে। কম্পিউটার এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করে সমগ্র বিশ্ব অবিশ্বাস্য গতিতে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের আইটি সুবিধার ক্ষেত্রে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় অন্যতম শ্রেষ্ঠ। বাংলাদেশে এ বিশ্ববিদ্যালয়েই প্রথম কম্পিউটার নেটওয়াকিং হয়েছিল। ক্যাম্পাসের ভেতর কম্পিউটারগুলো ফাইবার অপটিক ক্যাবল এর মাধ্যমে সংযু্‌ক্ত হয়েছে বহু আগে। যা বিটিটিবির ফাইবার অপটিক ব্যাকবোন এর মাধ্যমে সংযুক্ত। বর্তমানে পুরো ক্যাম্পাসে ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক চালু রয়েছে। ওয়াইফাই হলো এক ধরনের তারবিহীন ইন্টারনেট সুবিধা। এ ব্যাপারে অগ্রগামী ভূমিকা রাখছেন বিজ্ঞানী খ্যাতনামা লেখক প্রফেসর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল এবং তাঁর কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ। শিক্ষার্থীরা খুব সহজেই ইন্টারনেট ব্যবহার করে তথ্য প্রযুক্তির সুবিধা পাচ্ছে। যা অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য মডেল স্বরূপ।
শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সত্যিকারের উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণার বাস-ব প্রতিফলনই কামনা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শুভাকাঙ্খিরা। আর বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার প্ল্যানকে বাস-বায়ন করতে পারলেই সেটা বাস-বে রূপ নিবে। মাস্টার প্ল্যানের মধ্যে ওয়েছে ২০১৫ সালের মধ্যে ৮টি আবাসিক হল প্রতিষ্ঠা করা। অথচ ২০১০ সালে এসেও তার অর্ধেকও করা সম্ভবপর হয়নি।
জীবনের সবচেয়ে মূল্যবান কয়েকটি বছর অধ্যয়ন করে শিক্ষার্থীরা জ্ঞানার্জন শেষে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিগ্রিলাভ করে। অথচ বিশ্ববিদ্যালয়ের দীর্ঘ ২০ বছরে দু’বার সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ডিগ্রির সার্টিফিকেট আনুষ্ঠানিকভাবে পেতে অপেক্ষা করতে হয় শিক্ষার্থীদের। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তন হয়েছিল ২৯ এপ্রিল ১৯৯৮। তারপর দীর্ঘ নয় বছর পর তথা ৬ ডিসেম্বর ২০০৭ সালে অনুষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় সমাবর্তন।

বিশ্ববিদ্যালয়টি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি হলেও রয়েছে ইংরেজি, বাংলা বিভাগের মতো কলা অনুষদের বিষয়। বাংলা বিভাগ যা সবচেয়ে কনিষ্ঠ বিভাগ। বাংলাদেশে ভাষা পরিকল্পনা, সিলেটের লোকগীতি ও লোকনাট্যে লোকজীবন, ভাষা বিষয়ক বৈচিত্র্য, বাংলা উপন্যাসে সমাজ ও মানুষ, সিলেটের বাউল সংগীতে হযরত শাহজালাল ও শ্রী চৈতন্যের প্রভাব, চা শ্রমিকদের প্রায় অবলপ্ত কৃত্য নাট্য ও সংস্কৃতি, সাহিত্য ও জীবনদর্শন ইত্যাদি নানা গুরুত্বপূর্ণ গবেষণা কর্মকাণ্ড উৎসাহী ও কৌতূহলী শিক্ষকমণ্ডলী ইতোমধ্যেই সম্পন্ন করেছেন।
দেশের প্রথমবারের মতো ডিজিটাল ভর্তি পরীক্ষার কার্যক্রম চালু করে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে। এরই ধারাবাহিকতায় অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় একই পদ্ধতি অনুসরণ করে ভর্তি কার্যক্রম পরিচালনা করে। ডিজিটাল বাংলাদেশের যে স্বপ্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেখিয়েছেন সেটা যে বাস-বায়ন সম্ভব তা প্রমাণ করেছে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়।
বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা শুধু লেখাপড়ার মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখেনি পাশাপাশি খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে নিজেকে জড়িয়ে রাখছে। ক্যাম্পাসে রয়েছে সঙ্গীত, আবৃত্তি, বিতর্ক, নাটক, ফটোগ্রাফি, স্বেচ্ছাসেবামূলক সংগঠন। এসবের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীরা সৃজনশীলতার সাথে প্রতিভা বিকশিত করছে। রয়েছে রোভার স্কাউট ও বিএনসিসির চোখে পড়ার মত বর্ণাঢ্য কার্যক্রম।
২০৫ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যে প্রতিষ্ঠানটির যাত্রা শুরু হয়েছিল কালের যাত্রায় আজ গৌরবের ২১ বছর পূর্ণ করেছে। অগণিত শিক্ষার্থী, সবিদ্য শিক্ষক আর উৎসাহী অভিভাকদের মেলবন্ধনে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আজ এক বিরাট মহীরূহ রূপে পরিগণিত হয়েছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, কর্মকর্তা আর শিক্ষার্থীদের প্রাণ স্পন্দনে এই আঙিনা আজ মুখরিত। বর্ণিল সময়ের গতিধারায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় অসামান্য অবদান রেখেছে, রাখছে এবং আগামীতেও রাখবে এটাই প্রত্যাশা। শুভ হোক আগামীর পথ চলা। শুভ জন্মদিন শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়।

Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

গুরুপ্রসাদ মহান্তির গল্প ‘চিদাকাশ’

গুরুপ্রসাদ মহান্তি :: মুখে মুখোশ সাঁটকে বাঁচতে গিয়ে শেষে যে মরেই যাচ্ছে! চশমায় ...