সেতুতে ঝুকিপুর্ণ পারাপার

সেতুতে ঝুকিপুর্ণ পারাপার মোহাম্মদ হোসেন, হাটহাজারী প্রতিনিধি :: চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার উত্তর মাদার্শা ও ফতেপুর ইউনিয়নের উপর তর্তা গাছ দ্বারা দিয়ে মধুরঘোনা এলাকায় একমাত্র তেজারিপুল (তর্জ্জারপুলটি) এষনও নতুন ভাবে নির্মিত হয়নি। ঝুকিপুর্ণ এ সেতু দিয়ে প্রতিদিন কোমলমতি স্কুর ও মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীরা ছাড়া দুই ইউনিয়নের বাসিন্দারা পারা করে আসছিল। বর্ষার মৌসুমে সেতু দিয়ে পারাপার অনেকটা ঝুকিপুর্ণ।

দীর্ঘ ২২ বছর অতিবাহিত ঐ দুই ইউনিয়নের জনগন নতুন ভাবে এখানে একটি সেতু নির্মিত হয়নি।  এতে করে ফতেপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের ছোট ছোট  স্কুল পড়–য়া শিক্ষার্থীরা পাশের ইউনিয়ন দক্ষিন মেখল  উচ্চ বিদ্যাল ও মার্দাশা মাহলুমা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তেজারিপুলটি  দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে  পারাপার করে আসছিল।

সরেজমিনে গিয়ে দুই ইউনিয়নের জনগনের সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার সদর থেকে ফতেপুর আলাওল সড়ক দিয়ে উত্তর মাদার্শা ইউনিয়নের জনগন ডি.সি সড়ক দিয়ে সহজে চলাচল করতে পারে, কিন্ত বাধা হয়ে দাঁড়ায় দুই ইউনিয়নের মাঝখানে মার্দাশা ৪ নং ওয়ার্ডের মধুরঘোনা এলাকার তেজারিপুল(তর্জারপুল)টি ।

সেই পাকিস্থান আমল থেকে বাঁশের তর্জা দিয়েঐ এলাকায় একটি পুল তৈরি করে দুই পাড়ের মানুষ সহজে চলাচল করার জন্য। এর পর থেকে এই পুলের নাম হয়ে পড়ে তেজারিপুল (তর্জারপুল)।

জানাযায়, মধুরঘোনা এলাকার দুই পাড়ের জনগন ব্রিজটি হলে সহজেই স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা গামী শিক্ষার্থী ও চাকুরীজীবি, কৃষকদের উৎপাদিত ফসল সহজেই হাটহাজারী সদরের বাজার সহ বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করতে পারবে এবং সহজেই যোগাযোগ করতে পারবে কিন্তু বর্তমান তেজারিপুলটি একেবারেই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে যা দিয়ে মানুষ পায়ে হেঁটে চলতেও মুসকিল।

উত্তর মার্দাশা ইউনিয়নে ৪নং ওয়ার্ডের এলাকার বাসিন্দাদের যদি কেউ মারাত্মক রোগ অথবা কোন মহিলার ডেলিভারী রোগী যদি উপজেলা সদরে অথবা শহরের কোন হাসপাতালে নিতে হয় তাহলে ঐ ঝুঁকিপূর্ণ তেজারিপুল পার করাতে করাতে রোগী নির্গাত মারা যেতে পারে।

এ ব্যাপারে কথা হলে মধুরঘোনা এলাকার মার্দাশা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের সদ্য এসএসসি পরিক্ষ দেওয়া মোঃ শাখাওয়াত উল্লাহ -(১৬) ক্ষোভ প্রকাশ করে সংবাদকর্মীদের বলেন, বড়দের কাছে শুনে আসছি সেই এরশাদ সরকারের তৎকালীন মন্ত্রী ও বর্তমানের সরকারের পানি সম্পদ মন্ত্রী ব্যরিষ্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বার বার তর্জারপুলকে সেতু নির্মাণ করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে দুই ইউনিয়নের জনগনকে দিয়ে আসলেও এ পর্যন্ত সেতুটির মুখ দেখেনি। এ ব্যাপারে দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষের হস্থক্ষেপ কামনা করেন এলাকার জনসাধারণ।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ‘সহকারি শিক্ষক নিয়োগ’ এর লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ

স্টাফ রিপোর্টার :: সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ‘সহকারি শিক্ষক নিয়োগ-২০১৮’ এর লিখিত পরীক্ষার ...