সুবর্ণচরে স্বামী-স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত: স্বামীর মৃত্যু

মুজাহিদুল ইসলাম সোহেল,  নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলায় মৃত ব্যবসায়ী (৬৫) করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। মৃত ব্যবসায়ীর স্ত্রীও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ঘটনায় ওই ব্যক্তির বাড়ী ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।
মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, সুবর্ণচর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শায়েলা সুলতানা ঝুমা।
তিনি বলেন, চরবাটা এলাকার বাসিন্দা ও স্থানীয় রাইছমিল ব্যবসায়ী ওই ব্যক্তি অসুস্থ হওয়ার পর তাকে প্রথমে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে। অবস্থার অবনতি হলে পরে তাকে ঢাকার একটি হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। ওই ব্যক্তির শ্বাস কষ্ট’সহ করোনা উপসর্গ থাকায় গত ২৩মে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে স্ত্রীসহ তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এরমধ্যে ২৫মে সোমবার দুপুরে ঢাকায় মারা যান ওই ব্যবসায়ী। পরে পরিবারের লোকজন তথ্য গোপন করে চরবাটার একটি মাঠে তার জানাজা নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে লাশ দাফন করেন। মঙ্গলবার রাতে করোনা রিপোর্টে মৃত ব্যক্তি ও তার স্ত্রীরি করোনা পজিটিভ আসে। উপজেলায় মোট করোনায় আক্রান্ত ১৪জন। যার মধ্যে মারা গেছেন ১জন।
সুবর্ণচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইবনুল হাসান ইভেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মৃত ব্যবসায়ীর জানাজায় পরিবারের লোকজন ছাড়াও তার আত্মীয়-স্বজন ও এলাকাবাসী উপস্থিত ছিল। তাই তার স্ত্রীসহ পরিবারের লোকজনের সংস্পর্শে আসা সবাইকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে ও কারো উপসর্গ দেখা দিলে হাসপাতাল এসে দ্রুত নমুনা দেওয়া জন্য ওই এলাকায় মাইকিং করা হচ্ছে। মৃত ব্যক্তির বাড়ী ও তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রাইছমিল লকডাউন করা হয়েছে। হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নিদের্শ দেওয়া হয়েছে পরিবারের লোকজনকে।
জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলায় মোট আক্রান্ত ৪২০জন। বেগমগঞ্জে ২২৪, কবিরহাটে ৫৬, সদরে ৫৪, চাটখিলে ৩০, সোনাইমুড়ীতে ১৮, সুবর্ণচরে ১৪, সেনবাগে ১১, কোম্পানীগঞ্জে ৭ ও হাতিয়ায় ৬জন রোগী রয়েছে। যাদের মধ্যে মারা গেছেন সোনাইমুড়ীতে মোরশেদ আলম (৪৫) নামে এক ইতালি প্রবাসী, সেনবাগে এক রাজমেস্ত্রী মো. আক্কাস (৪৮), বেগমগঞ্জে তারেক হোসেন (৩০) ও আমিনুল ইসলাম মিন্টু (৪৭) নামের দুই ব্যবসায়ী, সোনাইমুড়ীতে ফখরুল ইসলাম বাচ্চু (৫৯) নামের এক কৃষক, বেগমগঞ্জের কুতুবপুরে শহিদুর রহমান (৬৬), চৌমুহনী পৌরসভা করিমপুরের বেলাল উদ্দিন (৫৭), চৌমুহনী পৌরসভার পশ্চিম গণিপুর হাজী আবুল খায়ের পাটোয়ারী (৭৪), নরোত্তমপুরে জতন লাল সাহা (৬৫) ও সুবর্ণচর উপজেলার চরবাটার মাঈন উদ্দিন মানিক (৬৫)। সুস্থ হয়েছেন ২৯জন।
Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ভাইকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যার দাবি ছোট বোনের 

  রফিকুল ইসলাম ফুলাল, দিনাজপুর প্রতিনিধি :: আমার ভাই মানসিক ভারসাম্যহীন আনোয়ারুল ...