সবুজ এইচ সরকার, সিরাজগঞ্জ থেকে::
সিরাজগঞ্জ-২ ( সদর ও কামারখন্দ) আসনের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছেন নারী উদ্যোক্তা ও নবনির্বাচিত এমপি ড. জান্নাত আরা তালুকদার হেনরী।উন্নয়ন অভিযাত্রা ও সংগ্রামে মানুষের পাশে থাকার প্রত্যয়ে বুধবার (১০ জানুয়ারী) জাতীয় সংসদ ভবনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদে নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য ড. জান্নাত আরা তালুকদার হেনরী শপথ গ্রহণ করেন।

গত রবিবার (৭ জানুয়ারী) সিরাজগঞ্জ-২ আসনে ড. জান্নাত আরা তালুকদার হেনরী ১ লাখ ৮৪ হাজার, ৮৫৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আমিনুল ইসলাম ঝন্টু লাঙ্গল প্রতীকে পেয়েছেন ৪ হাজার ৫৮০ ভোট। এছাড়াও নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তৃনমূল বিএনপির মনোনীত সোনালী আশ প্রতীকের প্রার্থী মো: সোহেল রানা ও জাকের পার্টির মনোনীত গোলাপ ফুল প্রতীকের প্রার্থী মো: আব্দুর রুবেল সরকার।

প্রাথমিক জীবন জান্নাত আরা হেনরী ২২ জুন ১৯৭২ সালে সিরাজগঞ্জের কড্ডারমোড় এলাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ মিঞা ও মাতা বেগম জাহানারা হামিদ। এছাড়াও সিরাজগঞ্জ জেলার প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও ভাষা আন্দোলনে গুরত্বপূর্ণ অবদানে একুশে পদক প্রাপ্ত মোতাহের হোসেন তালুকদার (মাষ্টার) এর পুত্র লাবু তালুকদারের সাথে হেনরীর বিবাহ হয়।

তিনি, কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের পরিবেশ ও বনবিষয়ক সম্পাদক এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে সফলভাবে দায়িত্ব পাল করেন। বর্তমান  সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক। এছাড়াও নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী রুমানা মাহমুদের কাছে ২১২১ ভোটে হেরে যান। এছাড়াও রাজনীতি বাহিরেও রয়েছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা। তিনি সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, শিক্ষানুরাগী,সাংবাদিক বান্ধব, সেচ্ছাসেবীকা ও একজন সফল নারী উদ্যোক্তা হিসেবেও পরিচিত।

এলাকাবাসী জানান, ড. জান্নাত আরা তালুকদার হেনরী মন্ত্রী হলে সিরাজগঞ্জে টেকসই উন্নয়ন হবে। শিক্ষার মান উন্নয়ন হবে, কর্মসংস্থান ব্যবস্থা করে বেকারত্ব হ্রাস করবে এবং সিরাজগঞ্জে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব সুবিশাল হবে। এছাড়াও তিনি একজন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এবং সমাজ সেবিকা। আমরা হেনরী মন্ত্রী হিসেবে দেখার দাবি জানাই জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে।

ড. জান্নাত আরা তালুকদার হেনরী বলেন, বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া ঐতিহ্যবাহী সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়নে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অংশগ্রহণ করি ও আমাকে জনগন বিপুল ভোটে বিজয়ী করেছেন। আপনারা জানেন বিগত জেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতে এক নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছি।আন্দোলন সংগ্রামে মাঠে থেকেছি। কোনো রক্তচক্ষুকে ভয় পাইনি। কোনো হুমকি-ধমকি দিয়ে জান্নাত আরা হেনরীকে দমিয়ে রাখা যাবে না। আমি জনগণের পাশে থেকে কাজ করতে চাই।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here