ডেস্ক রিপোর্ট:: দক্ষিণ আমেরিকার এল সালভাদরের একজন সাবেক পুলিশ কর্মকর্তার বাড়ি থেকে পুঁতে রাখা অবস্থায় সাত নারী ও তিন শিশুসহ ১২টি মরদেহের সন্ধান মিলেছে।

দেশটির অ্যার্টনি জেনারেলের অফিস সূত্রে জানা গেছে, ৫১ বছর বয়সী হুগো ওসোরিও শ্যাভেজ ওসোরিও নামে ওই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যৌন অপরাধের অভিযোগসহ ১৩টি হত্যা মামলার তদন্ত করা হচ্ছিল।

বার্তা সংস্থা এপির খবরে বলা হয়, একজন নারী ও তার যুবতী কন্যাকে হত্যার বিষয়ে ওই পুলিশ কর্মকর্তার স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

প্রতিবেশীরা ওই বাড়ি থেকে একজন নারীর কান্নার শব্দ শুনে পুলিশকে ফোন করেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ৫৭ বছর বয়সী একজন নারী ও তার ২৬ বছর বয়সী মেয়ের মরদেহ বাড়ির একটি পুকুর থেকে উদ্ধার করে। ঘটনার আলামত দেখে পুলিশের ধারণা তাদের ওপর যৌন নির্যাতন চালানো হয়েছে।

পরে পুলিশ ওই ব্যক্তির বাড়ি তল্লাশি চালিয়ে ভিন্ন স্থানে পুঁতে রাখা সাত বছর বয়সী একটি মেয়ে এবং দুই ও ৯ বছর বয়সী দুটি ছেলে শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে।

এ ছাড়া ওই বাড়িতে আরও সাতটি মরদেহ আবিষ্কৃত হয়েছে যার সম্পর্কে তদন্ত করছে পুলিশ।

অ্যাটর্নি জেনারেলের অফিসের এক টুইটে বলা হয়, মৃতদের মধ্যে কয়েকজন প্রায় দু’বছর আগে মারা গিয়েছিল।

তবে ১৩টি খুনের বিষয়ে কেন তদন্ত করা হচ্ছে, অ্যাটর্নি জেনারেলের অফিস থেকে সে বিষয়ে কিছু ব্যাখ্যা করা হয়নি।

যৌন আক্রমণাত্মক আচরণের কারণে ২০০৫ সালে শ্যাভেজ ওসোরিওকে পুলিশ বাহিনী থেকে বরখাস্ত হন। পরে বিচারে তার পাঁচ বছরের জেলও হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, সাবেক ওই পুলিশ কর্মকর্তাসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে আট নারীসহ ১৩ জনকে হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here