ইয়ানূর রহমান ::

যশোরের শার্শা সরকারী পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে ৮ম শ্রেণীর ছাত্র শাফায়েত মাহমুদ প্রান (১৪) নামে এক ছাত্রকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শাফায়েত মাহমুদ (প্রান)কে তার রুমে ডেকে নিয়ে লাঠি দিয়ে বেধড়ক ভাবে মারপিঠ করে ঐ স্কুলের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম।

আহত প্রানকে গুরুতর আহত অবস্থায় তার পিতা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করেছে। এ ব্যাপারে ছেলেকে নির্যাতনের বিচার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন আনছার আলী। রবিবার সকাল ১১টায় স্কুলের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম তার রুমে ডেকে নিয়ে এ ঘটনা ঘটায়।

লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, রবিবার সকালে আমার ছেলে বাড়ী থেকে স্কুলে যায়। পরে আমি দুপুরে জানতে পারি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমার ছেলে শাফায়েত মাহমুদ (প্রান)কে প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম তার রুমে ডেকে নিয়ে লাঠি দিয়ে বেধড়ক ভাবে মারপিঠ করেছে। তৎক্ষনিক ভাবে আমি আমার ছেলেকে নিয়ে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করি। আমি আমার ছেলের নির্যাতনের বিচার চায়। এর আগে অনেক ছাত্রকে এভাবে মারধরের অভিযোগ উঠেছে এই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের নামে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলামের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করেছে তা সঠিক নয়। প্রতিষ্ঠানের কিছু দূষ্কৃতি কারীরা আমর বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছে। আমাকে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য অপপ্রচার চালাচ্ছে।

এ বিষয়ে শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নারায়ন চন্দ্র পাল বলেন, একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন ছেলের পিতা। তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এ ধরনের শিক্ষকদের অমানবিক নির্যাতনের কারণে অন্য ছাত্র- ছাত্রীরাও স্কুল বিমুখ হয়ে পড়েছে বলে অনেক অভিভাবকরা জানিয়েছেন। নাম না প্রকাশ করার শর্তে কয়েকজন অভিভাবকবৃন্দ সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন অনিয়মের কারণে প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম জেলও খেটেছেন।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here