ডেক্স নিউজ :: লালমোহন পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব শাহাদাত হোসেন (শাহাবুদ্দিন) মিয়ার ক্রয়কৃত জমি দখলসহ বিভিন্ন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন, আবুল কাশেম ও তার জামাতা রফিকুল ইসলাম গংরা।

পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড হাসপাতালের উত্তর পাশে মাজেদ গংদের কাছ থেকে ৩২ শতাংশ ও আবুল কাশেমের কাছ থেকে ১৮ শতাংশ জমি ক্রয় করেন শাহাদাত হোসেন (শাহাবুদ্দিন) । আবুল কাশেম ১একর ৪৪ শতাংশ জমি থেকে শাহাদাত হোসেন শাহাবুদ্দিনের কাছে করে ১৮ শতাংশ জমি বিক্রয় করেন। আবুল কাসেম তার জমি থেকে জামাতা রফিকুল ইসলাম (রফিক ছাদী) কে ১২ শতাংশ জমি দান দলিল দেয়। এরমধ্যে অনেক জমি বেশি দখল করে রেখেছেন আবুল কাশেম ও তার জামাতা রফিকুল ইসলাম।

এক সময়ের বিএনপি জামাতের দোষর বর্তমান সময়ে হাইব্রিড আবুল কাশেম গংরা ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে পৌর ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন শাহাবুদ্দিন মিয়ার ক্রয়কৃত ভোগ দখলীয় জমি দখলের পায়তারা শুরু করেছে। যার ফলে জমি মাপ ও সিমানা নির্ধারণেও রাজি হয় না ওই চক্র।

স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন এ বিষয়টি অবগত হয়ে ঈদেরপর সমাধানের সিদ্ধান্ত দিলেও এমপি মহোদয়ের সিদ্ধান্ত কার্যত এরিয়ে গিয়ে এচক্রটি বিভিন্নভাবে শাহাদাত হোসেন শাহাবুদ্দিন মিয়ার বিরুদ্ধে মনগড়া অপপ্রচারে লিপ্ত হন।

এসকল হাইব্রিডদের বিরুদ্ধে বিচার দাবি করেছেন, শাহাদাত হোসেন শাহাবুদ্দিন মিয়া। জমি মাপ গ্রহণের জন্য সকলের কাছে আবেদন করেন শাহাবুদ্দিন মিয়া। শাহাবুদ্দিন মিয়ার সীমার বেড়া আবুল কাসেমের স্ত্রী কেটে ফেলেন । শাহাবুদ্দিন মিয়া জমির মূল মালিক আবু মাজেদের নির্দেশে কাটা তারের বেড়ার খুটি অপসারন করেন শাহাবুদ্দিন। এরপর আবু মাজেদ শাহাবুদ্দিনকে জমি বুঝ দেয়।

এঘনাকে কেন্দ্র করে আবুল কাসেম গংরা শাহাবুদ্দিন মিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চায়। যা সম্পুর্ণ ভিত্তিহীন। আবুল কাসেম গংদের মধ্যে জমি বেশি থাকায় তারা জমি মাপ দিতে অস্বিকৃতি জানায়।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here