জহিরুল ইসলাম শিবলু, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :: লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলায় পিকআপবোঝাই প্রায় ৪ লাখ গলদা ও বাগদা চিংড়ির পোনা জব্দ করেছে উপজেলা প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার চর রমিজ ইউনিয়নের চৌধুরী বাজার এলাকা থেকে পিকআপসহ এ পোনা গুলো জব্দ করা হয়। পোনাগুলো ২০টি প্লাস্টিকের ড্রামে করে ব্যবসায়ীরা খুলনায় চালান করছিল। জব্দকৃত পোনাগুলোর বাজার মূল্য প্রায় ১০ লাখ টাকা বলে জানিয়েছে উপজেলা মৎস্য বিভাগ।

অভিযান পরিচালনা করেন রামগতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্দুল মোমিন। এ সময় সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুচিত্র রঞ্জন দাসসহ উপজেলা মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিন জানান, জব্দকৃত চিংড়িপোনা গুলো রামগতির মেঘনা নদী থেকে অবৈধভাবে শিকার করা হয়। বৃহস্পতিবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পোনাগুলো জব্দ করা হয়। এ সময় পিকআপ ভ্যানের ড্রাইভার ও হেলপার পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি।

পরে উপজেলা নির্বাহী কর্তকর্তা ও সহকারী কমিশনারের (ভূমি) উপস্থিতিতে চিংড়ি পোনাগুলো উপজেলা পরিষদ এলাকায় মেঘনা নদীতে অবমুক্ত করা হয়। অভিযানে আটক করা প্লাস্টিকের ড্রামগুলো ধ্বংস করা হয়েছে। আটক পিকআপ ভ্যানের ব্যাপারে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান এ মৎস্য কর্মকর্তা ।

সম্প্রতি মেঘনায় অবাধে চলছে গলদা-বাগদা চিংড়ির পোনা আহরণ, ধ্বংস হচ্ছে জলজ প্রাণী শিরোনামে ইউনাইটেড নিউজে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এর পরে নড়েচড়ে বসে জেলা মৎস্য বিভাগ ও উপজেলা প্রশাসন। মেঘনায় অবৈধভাবে আহরণ করা গলদা ও বাগদা চিংড়ির ব্যবসায়ীদের ধরতে অভিযানে নামেন তারা। অভিযানের অংশ হিসে বৃহস্পতিবার রাতে জব্দ করা হয় ৪ লাখ চিংড়ির পোনা।

প্রসঙ্গত, লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদীর উপকূলীয় এলাকায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মশারি এবং ঠেলা জাল দিয়ে চিংড়ি রেণু আহরণ করে জেলেরা। এতে ধ্বংস হচ্ছে নদী ও সামুদ্রিক বিভিন্ন প্রজাতির মাছের পোনা। জেলেরা একটি চিংড়ি পোনার জন্য নষ্ট করে হাজার হাজার প্রজাতির মাছ। ফলে মেঘনায় দিন দিন অস্থিত্বের সংকটে পড়েছে গলদা-বাগদাসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ, নষ্ট হচ্ছে জীব বৈচিত্র।

স্থানীয় প্রভাবশালী লোক জনদের ছত্রছায়ায় মহাজনরা জেলেদের ঋণের টাকা দিয়ে পোনা ধরতে বাধ্য করে। তারা ক্ষমতার ধাপট দেখিয়ে সরকারের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে প্রকাশ্যে নদীর পাড়ে করছে গলদা-বাগদা চিংড়ি পোনার ব্যবসা। জেলেদের কাছ থেকে তারা এক টাকা দরে রেনু পোনা কিনে খুলনার আলায়ারপুর ও ডুমুরিয়াসহ বিভিন্ন জেলার গলদা ও বাগদা চিংড়ির ঘের মালিকদের কাছে বিক্রি করেন।

এছাড়া রাতের বেলায় টাকার বিনিময় গলদা-বাগদা চিংড়ি পোনার ট্রাক পারা-পারে সহযোগিতা করার অভিযোগ রয়েছে প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here