ব্রেকিং নিউজ

লক্ষ্মীপুরে জোয়ারের পানিতে নিমাঞ্চল প্লাবিত: সড়ক ভেঙ্গে ফেরী চলাচল বন্ধ

জহিরুল ইসলাম শিবলু, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :: উত্তর ও মধ্যাঞ্চলের বন্যার পানির চাপ ও মেঘনা নদীর জোয়ারের পানি অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধির কারণে লক্ষ্মীপুরের রামগতি, কমলনগর, রায়পুর ও সদর উপজেলার ১৬টি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। পাশাপাশি পানির চাপে বুধবার বিকেলে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার মজুচৌধুরীরহাট ফেরী ঘাটের সড়ক ভেঙ্গে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

ফলে অনিদিষ্টকালের জন্য বন্ধ রয়েছে লক্ষ্মীপুর-ভোলা নৌ-রুটের ফেরী চলাচল। অস্বাভাবিক জোয়ারে মেঘনা নদীর পানি বন্দি পেয়ে দুভোর্গে পড়েছেন চার উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ। ভেসে গেছে পুকুর ও ঘেরের মাছ। পানির নিচে তলিয়ে রয়েছে অন্তত ৫ হাজার হেক্টর আমনের আবাদ ও বীজতলা।

স্থানীয়রা জানায়, মেঘনা নদীর অস্বাভাবিক জোয়ারে ও বন্যার পানির চাপে হঠাৎ করে ১৬টি ইউনিয়নের ৫০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। প্লাবিত হওয়া ইউনিয়নগুলো হচ্ছে রামগতির বড়খেরী, চরআলগী, চররমিজ, চরআবদুল্লাহ, চরআলেকজান্ডার, কমলনগর উপজেলার সাহেবেরহাট, পাটওয়ারীরহাট, চরকালকিনি, চরফলকন, চরলরেন্স, চরমার্টিন, সদর উপজেলার চরমনী মোহন ও রায়পুর উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন।

এতে করে পানিবন্দি হয়ে দুভোর্গ থাকতে হচ্ছে ইউনিয়ন গুলোর মানুষকে। এছাড়া ফেরীঘাটের সড়ক নদীগর্ভে বিলীন হওয়ায় ফেরী চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার ফলে দু-পাড়ে পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে কয়েশ পণ্য ও যাত্রাবাহী বাস-ট্রাক।

এদিকে স্ব-স্ব উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তারা ইউনিয়ন গুলো প্লাবিত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে বেশ কয়েকটি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। এতে পানিবন্দ হয়ে পড়েছে লক্ষাধিক মানুষ।

এছাড়া সড়ক ভেঙ্গে যাওয়া অনিদিষ্টকালের জন্য মজুচৌধুরীরহাট ফেরী ঘাটের ফেরী চলাচল বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। তবে কবে নাগাদ সড়ক ঠিক করা হবে, সেটা অনিশ্চিত করে জানাতে পারেনি সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিল। তারপরও দ্রুত জিওব্যাগ ফেলে ভাঙ্গন রোধে কাজ করা হবে বলে জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

সাঁথিয়া পৌরসভার কর্মচারিরা বেতন পায় না: বিদ্যুৎ বিল বকেয়া ১৫ লাখ

কলিট তালুকদার, পাবনা প্রতিনিধি :: নামেই প্রথম শ্রেণী পৌরসভা পাবনার সাঁথিয়া। র্দীঘদিন ...