৭১ সালের মার্চ মাস। পুরাতন নাভারনে পাক হানাদারদের সাথে তুমুল যুদ্ধ। মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের সেদিন কমান্ডার রকেট জলিলের নির্দেশে সম্মুখ যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে। মাত্র ১৪ জন মুক্তিযোদ্ধা সেদিন এক পাটুন পাক হানাদারের প্রতিরোধ করেছিল। তাদের প্রতিরোধে হানাদাররা পিছু হটতে বাধ্য হয়। অবশ্য সেদিনের যুদ্ধে হানাদার বাহিনীর ৩ সদস্য নিহত হয়। এ ধরনের গোটা দশেক সম্মুখ যুদ্ধে আবু তাহের অংশ নেয়। সেদিনের যুবক মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের আজ বয়সের ভারে নুয্য।

মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের ৭১ সালে যে হাতে অস্ত্র তুলে নিয়ে পাক হানাদারদের তাড়িয়ে দেশ স্বাধীন করেছিল। সে হাতে আজ রিকসা ভ্যানের হ্যান্ডেল। সারাদিন রিকসা ভ্যানের প্যাডেল মেরেও মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের সংসারের ঘানি টানতে পারছে না। ৭০ বছর বয়সেও সংসার নামের এই হাল তাকে ছাড়েনি। ৮ সদস্যের এ পরিবার টানতে তাকে হিমসিম খেতে হচ্ছে। সে পারলোনা তার পরিবারের সদস্যরে জন্য একটু ঠাই জোগাড় করতে। নাভারন রেল বস্তিতে অন্যের অনগ্রহে তাকে বাস করতে হচ্ছে।

আমাদের প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের জানান, আমার আর চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই। যদি যুদ্ধাপরাধিদের বিচারটা দেখে যেতে পারতাম তবে মরেও শান্তি পেতাম। গত ৪০ বছরেও পরিবারের সদস্যদের জন্য এক টুকরো জমি কিনতে পারলাম না। তাতেও কোন দুঃখ নেই। মৃত্যুর আগে যুদ্ধাপরাধিদের বিচারটা দেখতে চাই।
ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডট কম/ ইয়ানুর রহমান/শার্শা

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here