ব্রেকিং নিউজ

মো. আরিফুল হাসান’র কবিতা ‘কি দেবো তোমাকে আমি’

মো. আরিফুল হাসান

কি দেবো তোমাকে আমি
মো. আরিফুল হাসান
প্রেমের কি দাম দেওয়া যায়
দিবস আর রাত্রি ফুরায়
আমার হিসেব থাকে ফাঁকা
জীবনের চোরা স্রোতে
                  ভুল রঙে আঁকা
কিছু ছবি ভেসে উঠে নির্জীব নিথর
বুকের কবাট খুলে
                 দেখি শুধু পাথর পাথর।
পথ যায়, পথ চলে যায়
প্রেমিকার মালা খানি
               অযত্নে শুকায়
তবুও আকাশ নীল, পাখি উড়ে
ছায়া পড়ে বেদনার ঘরে
বেঁচে থাকা
                          মগের মুলুকে।
কথা-ধ্বনি, সুর-ছন্দের ভেতর
হঠাৎ মৃতপ্রায় নগর
চিন্তার বাহকেরা থিতু হয়ে আছে
পাতায় পাতায়
                  আর শিরীষের গাছে
লেখা থাকে অযাচিত প্রাণ
এমনি কাঁচের ঘরে
                        ভেঙ্গে খান খান।
চাঁদ গেছে মৌমাছি হাটে
নিমিষেই সোনা ধান ফেটে
বেরিয়ে পড়লো এক অবাধ জমিন
তারপর তৃ-প্রহরে
                        রাত্রির শেষ ঘোরে
অর্বাচীন টেনে নিলো নিজ আস্তিন
ভরা শুধু দুঃখ ও ব্যাথা
মানুষেরা মরে যায়
                            থাকে রূপকথা।
যদিও জানতো চেরাগের খৈ
মানুষের ধরাবাঁধা কৈ-
মাছের যে প্রাণ আছে
                        তার চেয়ে বৃথা
মাসুষের কীই থাকে আর
                       থাকে শুধু ব্যাথা।
তারপর দেহটাকে
টেনে হিঁচড়ে ছুড়ে পাঁকে
মাটি ও মানব মিশে কুমোরের হাতে
যাই থাক, শূণ্য অনেক
                      জীবনের ধারাপাতে।
ধারাজল বর্ষার মতো
ঢেউয়ে ভাঙ্গে কূলের কুশল
ছল ছল আঁখি কোণে ভেসে থাকে
হিমালয়ে সঞ্চিত জল
               আর থাকে সুগভীর ক্ষত।
কি আর যে দিতে পারি আমি
সবচে যে দামী
                  এ আমার পবিত্র হৃদয়
তাই আজ নিতে পারো
যদি না ঔদ্ধত্য ধরো
আপন গুণেতে যদি
                              হও গো সদয়।
যা কিছু আমার ভাবি
তোমারই তো এই সবই
কি দেবো কি দেবো তোমাকে!
এখন আপন গুণে
দয়া করো অভাজনে
দায়-শোধ হতে তুমি
                         বাঁচাও আমাকে।
তোমার হাসির সুরে
                  পৃথিবীতে, অন্তঃপুরে
জাগে সুখ, জাগে কোলাহল।
জীবনের অমিত ত্যাজে
নিজ কাজ ভেবে লাজে
চিরদিনই পান করে
                            গেছি হলাহল।
দুঃখের এ অসম প্রেম
বেদনায় ভারী ভালোবাসা
নির্জীব কিছু কিছু আশা
আর কিছু মরিচিকা নিয়ে
শোণিতের দীপ-শিখা দিয়ে
উজ্জ্বল করে তুলি
                         তোমার হেরেম।
হে বিলাসী, হে সুন্দরী প্রেমা
আমার জীবন জুড়ে
                      নেমে এলো অমা
নিজ হাতে নিজ গোর খোঁড়ে
চাইছি তোমার কাছে শুধুই মহিমা
                           শুধুমাত্র ক্ষমা।
ক্ষমারও অযোগ্য আমি
কর্মফলে বদনামী
অর্জন বলতে শুধু পাপ
              তাই শুধু বাড়ে মনস্তাপ।
তোমার দুয়ারে আমি
                          ভিখিরির অধম
মানব মুখোশ পরা তুচ্ছ নরাধম
তোমারই করুণা কামী
নিশি দিন বসে আছি দ্বারে
                        ওগো অন্তর্যামী।
লেখক: প্রভাষক (বাংলা), বরকোটা স্কুল এন্ড কলেজ, দাউদকান্দি, কুমিল্লা, 
Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

গুরুপ্রসাদ মহান্তির গল্প ‘চিদাকাশ’

গুরুপ্রসাদ মহান্তি :: মুখে মুখোশ সাঁটকে বাঁচতে গিয়ে শেষে যে মরেই যাচ্ছে! চশমায় ...