ভয় শব্দটি আমার ডিকশনারিতে নেই: প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার :: প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘ভয় শব্দটি আমার ডিকশনারিতে নেই। ভয় পেলে আমি এই দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে নামতাম না।’ তিনি জানান, নিজের ঘর থেকেই এই অভিযান শুরু করেছেন, আপন-পর দেখেননি।

বিএনপির দিকে ইঙ্গিত করে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেছেন, তারা দুর্নীতির খনি। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জেনারেল জিয়া অবৈধ ক্ষমতা নিস্কণ্টক করতে দুর্নীতির দুয়ার খুলে দিয়েছিলেন। তার দলের চেয়ারপারসন দুর্নীতির দায়ে জেল খাটছেন। আরেকজন দেশান্তরী হয়েছেন। তারা আপাদমস্তক দুর্নীতিতে ভরা। তারা খুনি।

তিনি বলেন, ওই দলের আসল দুর্নীতিবাজরা শাস্তি পেয়েছেন। দুর্নীতি, অগ্নিসন্ত্রাস ও খুনের দায়ে পর্যায়ক্রমে ওই দলের অনেকেই শাস্তি পাবেন। অপরাধ যেই করুক শাস্তি পেতেই হবে।

মঙ্গলবার তার সরকারি বাসভবন গণভবনে এক জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে চলমান দুর্নীতিবিরোধী অভিযানকে ‘আইওয়াশ’ বলে বিএনপির অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি আইওয়াশ করতে যাবেন কেন? সময় মতো সব অপরাধীর বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অপরাধ যেই করুক, তার শাস্তি হবেই। অপেক্ষা করুন, আইওয়াশ কি-না সেটা দেখতে পাবেন।

দেশে পেঁয়াজের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি হলেও বিদেশ থেকে আমদানির পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে বলেও আশ্বাস দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার ও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের বিরুদ্ধে আইসিসি আনীত অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সাকিবের পাশে আছে। তবে সাকিব ভুল করেছে। আইসিসি তাকে শাস্তি দিলে এ বিষয়ে বাংলাদেশ ও এর সরকারের তেমন কিছু করার নেই।

১৮তম ন্যাম শীর্ষ সম্মেলনে যোগদান উপলক্ষে আজারবাইন সফরের অভিজ্ঞতা তুলে ধরতেই প্রধানমন্ত্রী গতকালের সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছিলেন। তবে সাংবাদিকদের প্রশ্নোত্তরে সেখানে চলমান দুর্নীতি ও ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান, দেশের ক্রিকেটের চলমান সংকট, পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি এবং সম-সাময়িক রাজনৈতিক বিভিন্ন প্রসঙ্গই প্রাধান্য পেয়েছে। প্রধানমন্ত্রী তার স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতেই সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন। কখনো সাবলিল এবং কখনো তীর্যক ও হাস্যরসাত্মক মন্তব্যের মাধ্যমে সংবাদ সম্মেলনের পরিবেশকেও প্রাণবন্ত রাখেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলন মঞ্চে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আরও ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। বিভিন্ন সংবাদপত্র ও বেসরকারি টিভি চ্যানেলের সম্পাদক ও কর্মাধ্যক্ষ, জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক ছাড়াও মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, এমপি ও আওয়ামী লীগসহ সহযোগী সংগঠনের শীর্ষ নেতারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ছোট বেলা থেকেই রাজনীতিতে জড়িত তিনি। যেদিন থেকে বাংলাদেশে এসেছেন, সেদিন থেকেই ভয় বলে কিছু তার মধ্যে আর নেই। ভয় পাওয়ার কোনো কারণও নেই। আর তিনি জানেন, তার বিরোধীরা দেশে বিদেশে সক্রিয়। রাজনৈতিক ও ব্যক্তিগতভাকে তাকে হত্যা করা হতে পারে। তবে এসবকে ভয় পান না তিনি।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ দেশের উন্নয়ন করে। অনেকে বলতো আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে দেশ বিক্রি করে দেবে। তবে আজ প্রমাণ হয়েছে, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলেই দেশের উন্নয়ন হয়। ন্যাম সম্মেলনে সবাই বাংলাদেশের প্রশংসা করেছেন। অনেকে বিস্ময়ের সঙ্গে জানতে চেয়েছেন, তার ম্যাজিক কী! সেখানকার প্রবাসীদের সঙ্গেও তার কথা হয়েছে। তারাও দেশের উন্নয়নে খুশি।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

আইসিপিডি অর্জনে সাউথ সাউথ ও ত্রিমাত্রিক অংশীদারিত্ব চায় বাংলাদেশ

সোহানুর রহমান, কেনিয়ার নাইরোবি থেকে :: নাইরোবিতে আইসিপিডি+২৫ সম্মেলনে যোগ দিয়ে বাংলাদেশের স্বাস্থমন্ত্রী ...