নিম্নমানের ইট, খোয়া, মোটা বালুর স্থলে ফিলিং বালু, আরসিসি ঢালাই মিকচারে ১:১৫ ভাগ। এছাড়াও চলছে হরিলুটের চতুর মতলববাজী। আর তাই ক্ষোভে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ভেড়ামারা রেলষ্টেশন সংস্কারে নিম্নমানের নির্মাণ কাজ করায় বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী নির্মাণ কাজ ভেঙ্গে দিয়েছে। এ ব্যাপারে সুষ্ঠ তদন্তের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের দৃষ্টি আকর্ষন ও তার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

জানা গেছে, রেলষ্টেশনে দুইটি প্লাটফর্ম, বিল্ডিং, রিপেয়ারিং ও সংস্কার কাজের জন্য প্রায় ৫৩ লাখ টাকার বরাদ্দ পেয়েছে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক এনাম বিশ্বাস ও পান্না বিশ্বাস সহ আরও একজন ঠিকাদার কাজ পায়। রেলষ্টেশন সংস্কারের জন্য ৫৩ লাখ টাকা বরাদ্দ পায় তারা। সংস্কারের বিধি মোতাবেক নির্মাণ না করে টাকা হরিলুট করতে ঐ ঠিকাদার তার লেবার দিয়ে ফিলিং বালুর সাথে ১:১৫ ভাগ সিমেন্ট, বালু মিশিয়ে কাজ শুরু করে। পাশাপাশি নিম্নমানের ইটের স্তুপ করে রাখতে দেখা যায়। এসব নিম্নমান সামগ্রী দিয়ে নির্মাণ কাজ শুরু করলে এলাকাবাসী বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। তারা দাবী জানায়, নির্মান কাজে নিম্নমানের সামগ্রী বাদ দিয়ে বিধি মোতাবেক নিয়ম অনুযায়ী নির্মাণ কাজ করার জন্য। কিন্তু প্রভাবশালী ঠিকাদার ক্ষমতা দেখিয়ে নিম্নমানের কাজ জোর করে করতে থাকে। কাজ অব্যাহত রাখলে এক সময় এলাকাবাসী নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখতে নির্মাণ সামগ্রী ভাংচুর করে। পরে এলাকাবাসীরা কাজ বন্ধ করে দেয় এবং উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করে সুষ্ঠ তদন্ত পূর্বক বিধি মোতাবেক কাজ করাতে রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত’র হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এ বিষয়ে ঠিকাদার এনাম বিশ্বাস জানান, কমিশন দিয়ে কাজ নিয়েছি নিম্নমানের কাজ না করলে আমি খাব কি? নিম্নমাণের কাজ হচ্ছে স্বীকার করে ষ্টেশন মাষ্টার সামছুল আলম বলেন, এ ব্যাপারে উর্দ্ধতন কর্মকর্তার নিকট বিষয়টি অবগত করেছি। ষ্টেশনের কাজে পরিচালনা ঠিকাদারের ম্যানেজার আজম খান জানান, ঠিকাদার এনাম বিশ্বাস আমাকে ফিলিং বালু, ৩নং ইট ও ১:১৫ ভাগ সিমেন্ট মিকচার করতে বলেছে। সে যেভাবে কাজ করতে বলেছে সেভাবে কাজ করছি। এতে আমার কিছু করার নেই।

ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডট কম/কাঞ্চন কুমার/কুষ্টিয়া

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here