বাণিজ্যিক নগরী কপিলমুনি নৌ ঘাট নির্মাণের দাবী

মহানন্দ অধিকারী মিন্টু, পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি :: অসংখ্য স্মৃতি বিজড়িত কপোতাক্ষ নদ। কালের স্বাক্ষী এ নদকে ঘিরে রয়েছে বহু ইতিহাস-ঐতিহ্য। প্রচীণকাল থেকে নদকে ঘিরে লক্ষ লক্ষ মানুষ জীবন-জীবীকা নির্ভর করে আসছে। গত এক দশক আগে নদের অকাল মৃত্যু হয়।

কপোতাক্ষ নদ উপকূলীয় মানুষের জীবন-জীবীকায় নেমে আসে নেতিবাচক প্রভাব। কালে কালে এ নদকে ঘিরে এর দু’তীরে গড়ে উঠেছে অসংখ্য জনবসতি ও বাণিজ্যিক নগরী। তেমনি একটি বাণিজ্যিক কেন্দ্র ইতিহাস ঐতিহ্য সমৃদ্ধ কপিলমুনি (বিনোদগঞ্জ) বাজার। এই বাজারকে ঘিরে সুপ্রচীণকাল হতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের ব্যবসা বাণিজ্যের ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে আসছে।

এক সময় কপিলমুনি থেকে পাইকারী ব্যাবসায়ীরা মালামাল ক্রয় করে লঞ্চ, ট্রলার ও নৌকা যোগে উপজেলা সহ দেশের বিভিন্ন হাট বাজারে বিক্রয় করতেন। গুরুত্বপূর্ণ এ বাজার থেকে মালামাল ক্রয় করে স্বল্প খরচে ভরা যৌবনা কপোতাক্ষ নদ দিয়ে নৌযোগে পরিবহন করতেন। পাইকারী ও খুচরা মালামাল ওঠানামায় বাজের পশ্চিম পাশে কপোতাক্ষ নদে সান বাঁধানো পাকা ঘাট ছিলো। কালের পরিক্রমায় নদের মৃত্যু হলে ঘাট বন্ধ হয়ে যায়।

তখন হতে ব্যবসায়ীরা বাধ্য হয়ে ৭ কিলোমিটার দূরে আগড়ঘাটা বাজার কপোতাক্ষ নদে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান রশিদুজ্জামান মোড়লের নির্মিত ঘাট দিয়ে মালামাল ওঠানামা করে আসছেন। এতে করে ব্যবসায়ীদের সময় ও বাড়তী পরিবহন খরচ করতে হচ্ছে। তাছাড়া কপিলমুনি বাজারের যে সমস্ত শ্রমিকরা নৌকা বা ট্রলারে উঠানামা করে জীবীকা নির্বাহ করতেন অনেকে পেশা পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়েছেন।

বর্তমান সরকার এ অঞ্চলের মানুষের দুঃখ দুর্দশার কথা চিন্তা করে কপোতাক্ষ নদ খননে ২০১১ সালের নভেম্বরে একনেকের সভায় ২৬১ কোটি ৫৪ লাখ ৮৩ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়। কপোতাক্ষ খননে ব্যাপক অনিয়মের পর ও ফিরে আসে জোয়ার-ভাটা, বেঁচে থাকার নতুন স্বপ্নে নদেকে ঘিরে নির্ভরশীল জনপদের মানুষের মধ্যে যেন প্রাণ সঞ্চারিত হয়। প্রাণ ফিরে পায় কপোতাক্ষ। নদ খনন হলেও কপিলমুনি বাজারের নতুন করে ঘাট নির্মাণ না করায় ব্যবসায়ীরা স্বল্প খরচে নৌ যোগাযোগ সুবিধা কাজে লাগাতে পারছেন না বাড়তি খরচ ও সময় ব্যায় করে আগড়ঘাটা থেকে মালামাল পরিবহন করচ্ছেন।

ফলে তাদের একই মালামাল দু’বার উঠানামা করার কারণে এবং ডাঙ্গা পথে বাড়তী পরিবহন খরচের জন্য তারা আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

বাজারের সকল ব্যবসায়ীদের দাবী কপিলমুনি কপোতাক্ষ নদে মালামাল উঠানামায় ঘাট নির্মাণ করা হোক। হাট বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও কপিলমুনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কওছার আলী জোয়াদ্দার জানান, ব্যাবসায়ীদের সুবিধার্থে সংসদ সদস্য আক্তারুজ্জামান বাবু’র সহযোগীতায় কপোতাক্ষ নদে ঘাট নির্মাণ করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

এক জেলাতেই সাড়ে তিন’শ কোটি টাকার সুপারির ফলন !

জহিরুল ইসলাম শিবলু, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :: উপকূলীয় অঞ্চল লক্ষ্মীপুরের ‘লক্ষ্মী’ হিসেবে পরিচিত ...