ব্রেকিং নিউজ

‘বরিশাল উপকূলে বাড়ছে জলবায়ুজনিত স্বাস্থ্য ঝুঁকি’

‘বরিশাল উপকূলে বাড়ছে জলবায়ুজনিত স্বাস্থ্য ঝুঁকি’

সোহানুর রহমান :: নিরাপদ পানি, খাদ্য ও পরিবেশগত বৈরিতায় নানামুখী স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে বরিশাল বিভাগের নারী ও শিশুরা। উপকূলীয় অঞ্চল হওয়ায় নদীভাঙন, জলাবদ্ধতা ও লবণাক্ততাসহ নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগে এ বিভাগের মানুষ জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবের শিকার হচ্ছেন। বিশেষ করে লবণাক্ততা, সমুদ্রের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি এবং দূষণের এসিডিক প্রভাব নিয়ে সোমবার (১৮ মার্চ) জলবায়ু সহিষ্ণু স্বাস্থ্য অভিযোজন পরিকল্পনা বিষয়ক এক বিভাগীয় কর্মশালার আলোচনায় এসব কথা উঠে আসে।

বরিশাল বিভাগের দুর্গম ও চর এলাকায় স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থ্যা ততটা উন্নত না হওয়ায় সুবিধাবঞ্চিত নারী ও শিশুরা উচ্চ মাত্রার স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে। এতে মা ও শিশুর অপুষ্টির পাশাপাশি মৃত্যুহারও বাড়ছে। জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ঝুঁকি মোকাবিলায় মা এবং শিশুদের জন্য যথাযথ স্বাস্থ্যসেবা ও পুষ্টি নিশ্চিত করা অত্যন্ত জরুরী বলে বক্তারা উল্লেখ করেন। স্বাস্থ্যঝুঁকি হ্রাসে সরকারি বেসরকারি সমন্বিত উদ্যোগের পাশাপাশি প্লাস্টিক দুষন প্রতিরোধে তৃণমূল পর্যায় থেকে বিশেষকরে তরুণদের সক্রিয় অংশগ্রহণের আহ্বান জানান বিশেষজ্ঞরা।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের অধীন ক্লাইমেট চেঞ্জ এন্ড হেলথ প্রোমোশন ইউনিটের আয়োজনে ও ইউনিসেফের সহায়তায় নগরের একটি হোটেলে জলবায়ু-সহিষ্ণু স্বাস্থ্য অভিযোজন পরিকল্পনা’ শীর্ষক এ কর্মশালার আয়োজন করে।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমান খান। সুইডেনের দূতাবাসের স্বাস্থ্য উপদেষ্টা ডাঃ জহিরুল ইসলাম, ইউনিসেফ বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বিভাগের ডা. হরি কৃষ্ণ বনসোটা, ইউনিসেফ বরিশাল বিভাগীয় প্রধান এএইচ তৌফিক আহমেদ প্রমুখ বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন।

কর্মশালায় বরিশাল বিভাগের সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা ও বিভিন্ন পর্যায়ের বিশেষজ্ঞরা অংশ গ্রহণ করেন।

আলোচনায় অংশ নিয়ে বক্তারা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে বরিশাল অঞ্চলের বয়স্কদের তুলনায় শিশুরা বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম হওয়ায় তাদের ডায়রিয়া ও অন্যান্য প্রাণঘাতী রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। পুষ্টিহীনতায় ভোগারও ঝুঁকি থাকে এসব শিশুদের। দুর্যোগে স্কুল, সামাজিক প্রতিষ্ঠান ও জীবিকা ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এমনকি ঝড়-জলোচ্ছ্বাসের সময় নারীরা শিশু ও গৃহস্থালি জিনিসপত্র রক্ষার চেষ্টা করায় অনেক নারী ও শিশু মারা যান। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দীপক কান্তি পাল বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুকিতে থাকা বরিশাল বিভাগের উপকূলীয় এলাকায় অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, ঘূর্ণিঝড়, নদী ভাঙণের প্রবণতার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকিও। জলবায়ু অভিঘাত মোকাবিলায় অর্থ বিভাগ ১৮টি মন্ত্রনালয়ের ৪৪টি বিভাগ পৃথক জলবায়ুকেন্দ্রিক বাজেট প্রণয়ন করেছে। ২০টি মন্ত্রণালয়ের মোট ২১,৪,৮৫১ কোটি ৬৯ লাখ টাকার বাজেটের মধ্যে জলবায়ু খাতে ১৮ হাজার ৯৪৮ কোটি ৭৬ লাখ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। এরমধ্যে খাদ্য নিরাপত্তা ও সামাজিক সুরক্ষা এবং স্বাস্থ্য খাতে ৮৭১৮ কোটি ৮০ লাখ টাকা রাখা হয়েছে।

এছাড়া বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্টের মাধ্যমে ৩,৫০০ কোটি টাকার ৬২৪ টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

তবে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের ক্লাইমেট চেঞ্জ এন্ড হেলথ প্রোমোশন ইউনিটের সমন্বয়কারী মো: ইকবাল কবীর কর্মশালায় মূল বক্তব্য উপস্থাপনকালে বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত অভিঘাত মোকাবিলায় স্বাস্থ্যখাতে পর্যাপ্ত বরাদ্দ নেই। বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্টেও বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পগুলোর মোট বরাদ্দের মাত্র ২ শতাংশ স্বাস্থ্যসুরক্ষার প্রকল্পে বরাদ্দ করা হয়েছে। নানামুখী স্বাস্থ্য ঝুঁকি হ্রাসে আরো সরকারি-বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়াতে তিনি আহ্বান জানান।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

লক্ষ্মীপুরে ৩ লাখ শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে

লক্ষ্মীপুরে ৩ লাখ শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে

জহিরুল ইসলাম শিবলু, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :: আগামী ২২ জুন লক্ষ্মীপুরে প্রায় ৩ ...