‘ফ্লাগ গার্ল’ প্রিয়তা দেশের অহংকার

প্রিয়তা ইফতেখাররহিমা আক্তার মৌ :: জীবন কখনওই এক রকম যায় না, যেতেও পারেনা। ঘাত-প্রতিঘাত, জয়-পরাজয়, আনন্দ-বেদনা যখনিই পার করেছি নিজেকে নতুন করে তৈরি করেছি। সেই ১৭ বছর বয়স থেকে আমার কাছে নজরুলের ‘সঞ্চিতা’ বইটি। নিজেকে দুর্বল মনে হলেই পড়েছি নজরুলের ‘বিদ্রোহী’ কবিতা। পড়েছি নজরুলের ‘নারী’ কবিতা–
“সাম্যের গান গাই-
আমার চক্ষে পুরুষ-রমণী কোনো ভেদাভেদ নাই!
বিশ্বের যা কিছু মহান সৃষ্টি চির কল্যাণকর
অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর।
বিশ্বে যা কিছু এল পাপ তাপ বেদনা অশ্রুবারি,
অর্ধেক তার আনিয়াছে নর অর্ধেক তার নারী।”– (নজরুলের নারী কবিতার অংশ)
মন খারাপ হলে শুনেছি বিপদে মোরে রক্ষা করো এ নহে মোর প্রার্থনা,,,, গানটি। আর অন্তর দিয়ে জপেছি আসতাগফুরুল্লাহ। ইদানীং মন খারাপ হলেই ছোট মেয়েটা বলে, মা ‘আসতাগফুরুল্লাহ পড়’। আমার মন ভাল হয়ে যায়।
নারীর এই অগ্রযাত্রার কথা, নজরুল সেই কবেই লিখে গেছেন কবিতায়। আজ যখন নারীরা এগিয়ে যাচ্ছে দেশের জন্যে সাফল্য নিয়ে আসছে তখন গর্বে বুক ভরে যায়।দেশে বিদেশে প্রিয়তা ইফতেখার পরিচিতি পেয়েছেন বাংলাদেশের ‘ফ্ল্যাগ গার্ল’ বা ‘পতাকা বালিকা’ হিসেবে। জয় বাংলা ইয়্যুথ অ্যাওয়ার্ড জয়ের রেশ কাটতে না কাটতে দেশের জন্য আরও বড় সুখবর বয়ে আনলেন বাংলাদেশের মেয়ে প্রিয়তা ইফতেখার। কোন ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড জয়ের খবর নয়। এবার বিশ্ব মঞ্চে সাড়া ফেলে মিস কালচার ওয়ার্ল্ড ওয়াইড-২০১৮ এর মুকুট জিতে বিশ্ব মাতালেন প্রিয়তা। বিজয় দিবসে লাল সবুজের পতাকা নিয়ে সবার মন কাড়লেন তিনি। বাঙালি অবিবাহিত নারীর শত বছরের প্রথাগত অচলায়তন ভেঙে বিশ্বপানে ছুটে বেড়ানো প্রিয়তার মাথার তাজ হলো এবার বিশ্বজয়ের মুকুট- মিস কালচার ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ২০১৮। বুধবার (১৬ জানুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে শিওরসেল মেডিকেল (বিডি) লিঃ সাংবাদিক সম্মেলন আয়োজন করে। আয়োজনের প্রধান কারণ ‘মিস কালচার ওয়ার্ল্ড ওয়াইড-২০১৮’ শিরোপা জয়ী প্রিয়তার অর্জনকে পুরো দেশবাসীর কাছে তুলে ধরা। অনুষ্ঠানটি পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন সাংবাদিক রাবেয়া বেবী।
গত ১৬ ডিসেম্বর জিম্বাবুয়ের হারারে দ্য ভেন্যু অভান্ডলেতে ১৫টি দেশের প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে ‘মিস কালচার ওয়ার্ল্ড ওয়াইড-২০১৮’ শিরোপা জিতলেন বাংলাদেশের মডেল প্রিয়তা ইফতেখার।
‘মিস কালচার ওয়ার্ল্ড ওয়াইড-২০১৮’ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে নিজের লড়াই এবং শিরোপা জেতা সম্পর্কে ‘ফ্লাগ গার্ল’ প্রিয়তা বলেন-
প্রিয়তা ইফতেখার

প্রিয়তা ইফতেখার

‘বিজয়ের দিনে এমন একটি অর্জনে আমি খুব আনন্দিত। বিশ্বের বুকে লাল-সবুজের পতাকা ওড়ানোর তৃপ্তিটা বলে শেষ করা যাবে না। পুরো প্রতিযোগিতায় আমি বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের সংস্কৃতি তুলে ধরেছি। কেননা আমার মূল লক্ষ্যই ছিল সবার মাঝে বাংলাদেশকে তুলে ধরা। মিস কালচার ওয়ার্ল্ড ওয়াইড প্রতিযোগিতায় এটি বাংলাদেশের প্রথম অর্জন। প্রতিযোগিতার গ্র্যান্ড ফাইনালে বিশ্বের ২৬টি দেশের প্রতিযোগী অংশ নেন। এর মধ্যে সেরা ১৫ বাছাইয়ের পর শীর্ষ পাঁচ চূড়ান্ত করে জুরিবোর্ড। মিস কালচার ওয়ার্ল্ড ওয়াইড-২০১৮ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য আবেদন করে ৫০টি দেশ। এর আগে যারা সৌন্দর্য কিংবা কালচার প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন তারা প্রবাসী ছিলেন।

অন্য প্রতিযোগীদের দু-একজন আমাকে বলেছিল আমাদের ছোট দেশ, মুসলিম কীভাবে এই মুকুট জিতব। কিন্তু বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বলে আমিই সবচেয়ে বেশি ভোট পাই। এ সময় আমার পরনে ছিল দেশীয় পোশাক শাড়ি। প্রতিযোগীদের মধ্যে বেশিরভাগ জিম্বাবুয়ের, তারা অনেকেই ক্রিকেট দিয়ে বাংলাদেশকে চিনেছেন। কিন্তু বাংলাদেশের ইতিহাস তারা তেমনটা জানতেন না। এ কারণে পুরো প্রতিযোগিতাজুড়ে বিভিন্ন পারফর্মের মাধ্যমে একাত্তরের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধ ও বিজয়ের পাশাপাশি বায়ান্ন’র ভাষা আন্দোলন তুলে ধরেছি আমি।’
জিম্বাবুয়ের মার্কেটিং, ন্যাশনাল ব্রাডিং ও ইনভেস্টমেন্ট মার্কেটিং প্রতিষ্ঠান বা সংস্থা ডেস্টিনেশন মার্কেটিং ইন্টারন্যাশনাল ২০১৮ সালে কালচার ওয়ার্ল্ড ওয়াইড এর আয়োজন করে। মিস কালচার ওয়ার্ল্ড ওয়াইড প্রতিযোগিতায় এটি বাংলাদেশের প্রথম অর্জন। প্রতিযোগিতায় প্রথম রানার আপ হয়েছেন জাম্বিয়ার বিশ্বাস মুকনকো এবং দ্বিতীয় রানার আপ হয়েছেন জিম্বাবুয়ের ওয়েন্ডি মাতুরি। মিস পারসোনালিটির খেতাব পেয়েছেন রাশিয়ার আন্না কিরিলিনা এবং ডেস্টিনেশন মার্কেটিং এর অ্যাম্বাসেডর হয়েছেন রুয়ান্ডারমারি ওথেনস উওয়াকু।
অনুষ্ঠানে প্রিয়তাকে এডুকেশন কালচার নিয়ে জানতে চাওয়া হয়। এ সময় তিনি বলেন, ‘যদি আমরা দক্ষিণ এশিয়ার দিকে তাকাই, তাহলে দেখা যাবে- কেউ চিকিৎসক, কেউ তথ্য প্রযুক্তিবিদ কিংবা প্রকৌশলী। কেননা আমাদের সংস্কৃতি শিক্ষার প্রকৃত মূল্যায়ন করা এবং আমি গর্বের সঙ্গে বলতে পারি, আগামী ২ বছরের মধ্যে বাংলাদেশ শতভাগ শিক্ষার দেশে রূপান্তরিত হবে- যেটাই আমার সংস্কৃতি।’
বৃটিশ ভারতের বিখ্যাত পত্রিকা সওগাত সম্পাদক নাসির উদ্দীনের রক্ত ‘ফ্লাগ গার্ল’ খ্যাত তরুণী প্রিয়তা ইফতেখার ধমণীতে। এই দেশের নারী সাংবাদিকতার অগ্রদূত নূরজাহান বেগম প্রিয়তার নানী। আর নানা হলেন কচি কাঁচা মেলার প্রতিষ্ঠাতা সাংবাদিক রোকনুজ্জামান খান দাদাভাই। দেশ জাতির সীমানা পেরিয়ে আন্তর্জাতিক আইকন মিস কালচার ওয়ার্ল্ড ওয়াইড হয়ে এখন দুর্দান্ত গতিতে এগিয়ে চলেছেন বাংলাদেশের তরুণী প্রিয়তা।
বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবেও প্রিয়তা কাজ করছেন। ‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড ২০১৮’ অর্জন করেছেন তিনি। এ ছাড়া ট্রাভেল ব্লগার হিসেবে প্রিয়তার খ্যাতি রয়েছে যা দেখা যায় তার ফেসবুক পেজ ‘দ্যা ফ্লাগ গার্ল’-এ। তার ইচ্ছে অন্তত ৫০টি দেশ ও বাংলাদেশের ৬৪টি জেলার পতাকা নিয়ে ভ্রমণ করার আর বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বিশ্বের কাছে তুলে ধরা।বাংলাদেশের লাল সবুজ পতাকা হৃদয়ে ধারণ করে তা সারাবিশ্বে তুলে ধরতে চান প্রিয়তা। সারা পৃথিবীতে থেকে বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিং করে ট্যুরিস্টদের এই দেশে আসার জন্যে তাদেরকে উদ্বুদ্ধ করতে চান । যাতে করে জেগে উঠতে পারে এই দেশের স্থানীয় পর্যটন। আর এর সাথে দেশের পিছিয়ে পড়া মেয়ে ও নারীদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদেরকে পর্যটকদের গাইড হিসেবে কাজে লাগাতে পারে। এতে করে নারীদের কর্ম সংস্থানের ক্ষেত্রেও অভাবনীয় সাফল্য আসবে।
প্রিয়তার এই অর্জনকে পুরো দেশবাসীর কাছে তুলে ধরতে শিওরসেল মেডিকেল (বিডি) লিমিটেড সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। দেশকে ভালোবেসে দেশকে নিজের মধ্যে ধারণ করলে কোনো বড় দেশ আমাদের হারাতে পারবে না বলে মনে করেন ‘ফ্লাগ গার্ল’। তার দেখানো পথে এখন অন্যরাও নানা দেশে তাদের নিজেদের পতাকা তুলে ধরা শুরু করেছে। প্রিয়তাকে দেখে অনুপ্রাণিত হয়েছেন অনেকেই। মিস কালচার ওয়ার্ল্ড ওয়াইড প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার আগে প্রিয়তা গিয়েছিলেন রাজশাহী। এই সফরে তার সাথে সঙ্গী হন ফ্ল্যাগ গার্ল নেটওয়ার্কের ১০ জনের বেশি নারী সদস্য। সবাইকে নিয়ে সেখানে নানা তথ্যচিত্র তৈরি করেন। ভ্রমণ প্রেমীরা কেন রাজশাহী বেড়াতে যাবেন তাই ছিল তথ্যচিত্রের মূল উদ্দেশ্য।
প্রিয়তা বলেন, এখন অনেক দেশের পর্যটকেরাই বাংলাদেশে আসার ইচ্ছা প্রকাশ করছেন, একই ভাবে তাঁদের দেশে যাওয়ারও আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন। তিনি বললেন, বাংলাদেশে পর্যটকেরা এসে যাতে একটি ভালো পরিবেশ পান তা আমাদের সরকারকে নিশ্চিত করতে হবে। ভারতে এক অনুষ্ঠানে ‘পতাকা গার্ল’ এর হাতে সনদ তুলে দেন অনুপেম খের। ২০০৮ সালে প্রিয়তা প্রতিষ্ঠা করেছেন দি ফ্ল্যাগ গার্ল নামের একটি নেটওয়ার্ক। এ নেটওয়ার্ক কাজ করছে দেশ ও বিদেশের নারীদের নিয়ে। তবে নেটওয়ার্কের সদস্যদের মধ্যে নারী-পুরুষ সবাই আছেন। বর্তমানে সদস্য সংখ্যা ১ হাজার ৩০০। ৫০ শতাংশ সদস্য বাংলাদেশি। অন্য ৫০ শতাংশ সদস্যদের বাস বিশ্বের বিভিন্ন দেশ।
২০০৫ সালে প্রিয়তার বাবা মারা যান। প্রথম  যখন প্রিয়তা আমেরিকা যাওয়ার সুযোগ পেলেন তখন মা রীনা ইয়াসমিন আহমেদ পাসপোর্টটি লুকিয়ে রাখলেন। অবিবাহিত মেয়ে কেন একা একা বিদেশ যাবে তাই নিয়ে শুরু হয় নানান অশান্তি। তখন থেকেই প্রিয়তার মাথায় নেটওয়ার্কের চিন্তা আসে। দি ফ্ল্যাগ গার্ল নেটওয়ার্কের মূল কাজ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বন্ধু তৈরি করা।প্রিয়তার ভ্রমণের গল্পে অনেকটুকু জায়গাই দখল করে রেখেছেন তাঁর মা। প্রথম দিকে মা কোনো জায়গায় ভ্রমণে বাধা দিলেও পরের দিকে তিনিই সবকিছু গুছিয়ে দিতেন। কারণ শ্রীলঙ্কা, কক্সবাজারসহ বেশ কয়েকটি ভ্রমণে প্রিয়তা মাকে সঙ্গে নিয়েছিলেন। তখন তিনি বুঝতে পারেন মেয়ে খারাপ কোনো কাজ করছে না এবং ভ্রমণে নিজস্ব একটি জগতের সন্ধান আছে। মা ও মেয়ে একসঙ্গে করেছেন স্কুবা ডাইভিং, পানির স্রোতের মধ্যে রাফটিং।
আসলে ভয়কে জয় করে লক্ষ ঠিক রেখে এগিয়ে গেলে সাফল্য আসবে নিশ্চই। প্রিয়তার ও তাই হয়েছে, নারীদের সাফল্য যেমন এখন অনেক ক্ষেত্রে তেমনি বাধাও আছে পদে পদে, তাই বাধা অতিক্রম করে সাফল্য অর্জন করতে আমাদের পরিবারের যেমন ভুমিকা। তেমনি আমাদের চেষ্টা দুই একসাথে চালিয়ে নিতে হবে।
“এ বিশ্বে যত ফুটিয়াছে ফুল, ফলিয়াছে যত ফল
নারী দিল তাহে রূপ-রস-সূধা-গন্ধ সুনির্মল।
তাজমহলের পাথর দেখেছ, দেখিয়াছ তার প্রাণ?
অন্তরে তার মমতাজ নারী, বাহিরেতে শা-জাহান।
জ্ঞানের লক্ষী, গানের লক্ষী, শষ্য-লক্ষী নারী,
সুষম-লক্ষী নারীওই ফিরিছে রূপে রূপে সঞ্চারী’।
পুরুষ এনেছে দিবসের জ্বালা তপ্ত রৌদ্রদাহ
কামিনী এনেছে যামিনী শান্তি সমীরণ বারিবাহ।”–( নজরুলের নারী কবিতার অংশ)
লেখক: সাহিত্যিক, কলামিস্ট ও প্রাবন্ধিক। rbabygolpo710@gmail.com
Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

লক্ষ্মীপুর-রায়পুর-চাঁদপুর ব্যস্ততম আঞ্চলিক মহাসড়কে

সড়ক নয় যেন ক্ষেত!

জহিরুল ইসলাম শিবলু, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :: লক্ষ্মীপুর-রায়পুর-চাঁদপুর ব্যস্ততম আঞ্চলিক মহাসড়কের সংস্কার কাজটি ...