নারায়ণগঞ্জ শহরের দ্বিগুবাবুর বাজারে পেঁয়াজের একাধিক আড়তে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর। রোববার (১০ ডিসেম্বর) বিকেলে এ অভিযান পরিচালনা করেন নারায়ণগঞ্জ কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা মো. আতিকুল ইসলাম।

জেলা প্রশাসন ও র‌্যাব-১১ এর সহযোগিতায় অভিযানটি পরিচালনা করা হয়। জেলা প্রশাসনের পক্ষে ছিলেন জেলার সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট (রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর) ফারাশিদ বিন এনাম।

অভিযান শেষে কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা মো. আতিকুল ইসলাম গণমাধ্যমে বলেন, আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে একটি চক্র দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করছে। সেই প্রেক্ষিতেই পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি করেছে তারা। এতে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে জনগণ। আমরা দ্বিগুবাবুর বাজারে পেঁয়াজের দামের ব্যাপারে প্রথমে অনুসন্ধান করি এবং পরবর্তীতে আজ অভিযান পরিচালনা করি। অভিযানে জানা যায়, ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের আগেই একদল অসাধু ব্যবসায়ী প্রচুর পরিমাণে পেঁয়াজ মজুদ করে রেখেছিলেন। আমদানিকারকরা পেঁয়াজ কেজি প্রতি ৯৩ টাকা ৩০ পয়সায় ঢাকার শ্যামবাজারে ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করেন। পরে তা নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করা হয় ১৫৬ টাকায়। সেই মূল্যে কেনার পর নারায়ণগঞ্জে তা বিভিন্ন দামে বিক্রি করা হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা প্রতি কেজিতে ৮০ থেকে ১০০ টাকা বাড়িয়ে বিক্রি করছে। কে কত টাকায় পেঁয়াজ বিক্রি করছেন তার রশিদ দেখতে চাইলে কেউ দেখাতে পারেনি।

তিনি আরও বলেন, দ্বিগুবাবুর বাজারে বিভিন্ন আড়তে অভিযান পরিচালনাকালে লক্ষ করা যায়, অধিকাংশ আড়তে মূল্যতালিকা টানানো হয়নি। এ ছাড়া পেঁয়াজ ক্রয়-বিক্রয়ের ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে ব্যবসায়ীরা বিভ্রান্তিকর কথাবার্তা বলা শুরু করেন। এ সময় পেঁয়াজের দাম নিয়ে কারসাজির কারণে ইউনুছ ব্যাপারী নামের এক ব্যবসায়ীকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সেই সঙ্গে অন্য ব্যবসায়ীদের সতর্ক করা হয়েছে। এ ছাড়া নারায়ণগঞ্জ জেলার এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ফারাশিদ বিন এনাম ঢাকায় জেলা প্রশাসকের নিকট শ্যামবাজারের ব্যাপারে অবগত করবেন।

বাজারে মনিটরিংয়ের ব্যাপারে মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, বাজারে পেঁয়াজের দাম স্থিতিশীল রাখতে আমাদের মনিটরিং অব্যাহত থাকবে। আজ রাতেও বাজারে পেঁয়াজের দাম নিয়ে খোঁজ নেওয়া হবে। সেই সঙ্গে আজ দ্বিগুবাবুর বাজারের পেঁয়াজ ব্যবসায়ীদের নিয়ে জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল হক আলোচনায় বসবেন। কীভাবে পণ্যটির দাম জনগণের নাগালে রাখা যায় এ নিয়ে আলোচনা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here