ঝুমা হোসেনঃ একজন ব্যবসায়ীর জন্য পণ্যেরমার্কেটিং করাটা খুবই জরুরী বিষয়। পণ্যের মার্কেটিং এর উপরই নির্ভর করে পণ্যের চাহিদা তৈরী হয়। বর্তমানে অনলাইন বিজনেসের চাহিদা বাড়ছে। এখানে নিজের অবস্থান তৈরী করতে পণ্যের মার্কেটিং এর দিকে গুরুত্ব দিতে হবে।

একটা বিষয় হলো টার্গেট অডিয়ান্স কারাঃ যাদের পকেটে টাকা আছে অর্থাৎ যারা চাইলেই পণ্য ক্রয় করতে পারে তারাই টার্গেট অডিয়ান্স। টার্গেট অডিয়ান্সের মাঝে কেউ সিজনাল বায়ার আবার কেউ অল টাইম বায়ার।

অলটাইম বায়াররা যেকোনো পণ্য চোখে দেখে ভালো লাগা মাত্রই কেনাকাটা করে। আর সিজনাল বায়ার যারা তারা ভেবে চিন্তে দশটা দেখে ১ টা কিনবে এই ধরনের হয়।

আমাদের কাজ কিঃ পন্য সম্পর্কে বিস্তারিত এমন ভাবে উপস্থাপন করতে হবে যেই সিজনাল বায়ার অনেক ভেবে চিন্তে একটা পণ্য কিনছে সেও যেন আমার পণ্য দেখে দুঃশ্চিন্তায় পড়ে যায় কিনবে কি না।

ব্যবসায় একটা পণ্যের মার্কেটিংয়ের উপর অন্য পণ্যও লাভবান হয় কেমন জানেন???

বেকিং আইটেম নিয়ে যদি বলি একজনের কেক দেখে আরো দশজন ভাবল অমুক পারলে আমি কেন পারব না। বা অামিও চেষ্টা করি। বেকিংয়ের ব্যবসা সবাই করতে পারবে না বা সবার কেক যে ভালো হবে এমন কোনো কথা নেই কিন্তু কেক বানানোর সরন্জামাদি কিন্তু ঠিকই বিক্রি হচ্ছে।

এখানে বোঝাতে চাইছি যে কিছু পণ্যের চাহিদা অন্যের মার্কেটিংয়ের উপর নির্ভর করে বাড়ে।

যেমন র’মেটেরিয়ালস এটার চাহিদা বাড়বেই কখনো কমবে না। যাদের পণ্য বিনা মার্কেটিংয়েই বিক্রি হয় তারাও কিন্তু মার্কেটিংয়ে সময় দিচ্ছে, উপস্থাপন সুন্দর করছে।

ওই যে বলছিলাম বায়ারদের কথা। বায়ারদের মস্তিষ্কে কিভাবে সেট হওয়া যায় সেটা নিয়ে ভাবুন।

মনে করেন একটা নাটক দেখছেন। খেয়াল করবেন যিনি স্পন্সর তার পণ্যের বিজ্ঞপ্তি ৫ মিনিট পরপর অাসে। একটা টিভির বিজ্ঞাপন থেকেও অনেক কিছু শেখার আছে।

 

ঝুমা হোসেন
নির্বাহী পরিচালক
ডিজাইনার কালেকশান

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here