সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ সেদেশের সরকার বিরোধী বিক্ষোভকারীদের হত্যা বা তাদের নিষ্ঠুরভাবে দমনের জন্য সামরিক বাহিনীকে আদেশ দেয়ার অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছেন।

তিনি বলছেন, নিজ দেশের লোকজনকে কেবল একজন বদ্ধ উন্মাদই হত্যা করতে পারে।

মার্কিন সংবাদ নেটওয়ার্ক এবিসি নিউজকে মিস্টার আসাদ বলেন, তিনি দেশ কিংবা সেনাবাহিনীর ওপর কিছু চাপিয়ে দেননি।

তবে তিনি বিদ্রোহ নিয়ন্ত্রণের নীতিতে ভুল করেছেন বলে স্বীকার করেন।

সিরিয়ার সরকার বিরোধী ব্রিদোহে চার হাজারেরও বেশি লোক নিহত হয়েছে বলে মনে করে জাতিসংঘ।

কিন্তু দেশটির প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ জাতিসংঘের এই পরিংসখ্যানকে অন্তসারশুন্য বলে অভিহিত করেছেন এবং বলছেন এখানে স্বচ্ছতার যথেষ্ট অভাব রয়েছে।খবর : বিবিসি

অন্যদিকে এই পরিস্থিতির জন্য প্রেসিডেন্ট দায়ি বলে ইঙ্গিত করে যুক্তরাষ্ট্র আবার বলছে যে, তারা আগে থেকেই জানতো যে, সিরিয়ায় আসলে কি ঘটতে যাচ্ছে এবং উদ্ভূত পরিস্থিতির জন্য কে দায়ি ।

তবে মিস্টার আসাদ এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি বিক্ষোভকারীদের ওপরে হামলার চালানোর কোনো নির্দেশ দেননি।

সিরিয়ায় আসলে কি হতে যাচ্ছে সে সম্পর্কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভুল ধারণা রয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

সেনাবাহিনীর দ্বারা বিক্ষোভকারীদের ওপর দমন-নিপীড়ন চালানো হয়েছিল কিনা এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলছেন, সেন্যবাহিনী কারো নিজস্ব প্রতিষ্ঠান নয়। তাই এটি সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন।

তিনি বলেন প্রেসিডেন্ট হিসেবে সরকার তাদের পরিচালনা করে থাকে। তারা সরকারি বাহিনী, রাষ্ট্রনায়কের নয়।

তাদের কাউকেই এমন কঠোর হওয়ার আদেশ দেয়া হযনি।

মিস্টার আসাদ আরো বলেন, আমরা কখনোই আমাদের লোকজনকে হত্যা করতে পারি না।

উন্মাদ না হলে পৃথিবীর কোনো সরকারই নিজ দেশের লোকজনকে হত্যা করতে পারেনা।

বাশার আল আসাদ বলেন, সাধারণ মানুষের সমর্থন পেয়ে তিনি প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন।

সেখানে কাউকে হত্যার নির্দেশ দেয়া সম্ভব নয়। তাই নিজেকে অপরাধী ভাবারও কোনো কারণ নেই বলে তিনি মনে করেন ।

মিস্টার আসাদ বলছেন , তিনি জনসাধারণকে রক্ষায় সবোর্চ্চ চেষ্টা করেছেন। তার অনুশোচনার কিছুই নেই।

যেসব প্রাণ ঝড়ে গেছে তাদের জন্য দু:খপ্রকাশ করতেই হবে। তাই বলে যখন আপনি মানুষ খুন করেননি।

তখন নিজেকে অপরাধী ভাবার কোনো কারণ নেই, বলছেন সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট।

ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডট কম/আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here