জাহিদ আবেদীন বাবু, কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি ::

যশোরের কেশবপুর উপজেলায় ৯২ টি পূজা মন্দিরে দূর্গাউৎসব পালনের লক্ষে সকল প্রকার প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। উৎসব চলাকালে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রতিটা মন্দিরে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে । 
জানা গেছে, চলতি বছরে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহত ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গাপুজা উৎযাপনের জন্য উপজেলার ৯২ টি মন্দিরে দূর্গা প্রতিমা তৈরী করা হয়েছে। ইতিমধ্যে প্রতিটা মন্দির এলাকা জুড়ে বাহারী সাজে সজ্জিত করা হয়েছে। উপজেলার মধ্যে কেশবপুর পৌরসভায় ৮টি, ত্রিমোহীনি ইউনিয়নে ১টি, সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নে ১২টি, মজিতপুর ইউনিয়নে ৬টি, বিদ্যানন্দকাটি ইউনিয়নে ৫টি, মঙ্গলকোট ইউনিয়নে ৪টি, কেশবপুর সদর ইউনিয়নে ৭টি,  পাঁজিয়া ইউনিয়নে ৯টি, সুফলাকাটী ইউনিয়নে ১১টি, গৌরিঘোনা ইউনিয়নে ১১টি, সাতবাড়িয়া ইউনিয়নে ১০টি ও হাসানপুর ইউনিয়নে ৯টি মন্দিরে দূর্গা প্রতিমা তৈরি করা হয়েছে।
করোনা মহামারির কারণে গত দূর্গাপুজা উপলক্ষে কোনো উৎসব পালিত হয়নি। বতমানে করোনা তেমন প্রাদূর্ভব না থাকায় সনাতন ধর্মাবলম্বীরা দ্বীগুণ উৎসাহ আর উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে দূর্গাউৎসব পালনের প্রস্তুতি নিয়েছে।  উৎসব মূখোর পরিবেশে উৎসব পালনের জন্য সরকারি অনুদান হিসাবে ৪৬ মেট্রিকটন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় এমপি শাহিন চাকলাদার আনুষ্ঠানিক ভাবে পূজা মন্দির কমিটির নিকট অনুদান হিসাবে টাকার চেক বিতারণ করেছেন।
এ ব্যপারে কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এম এম আরাফাত হোসেন বলেন, দূর্গা উৎসব পালনের জন্য উপজেলা ব্যাপী নিরাপত্তার বলায় তৈরি করা হয়েছে। বসানো হয়েছে প্রতিটা পূজা মন্দিরে সিসিটিভি ক্যামেরা। তাছাড়া আনসার ভিডিবি সদস্যের পাশাপাশি পুলিশের বিশেষ ভ্রম্যমান টিম মোতায়ন করা হবে।
Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here