ব্রেকিং নিউজ

নতুন সড়ক পরিবহন আইন এখন থেকে কার্যকর: ওবায়দুল কাদের

স্টাফ রিপোর্টার :: সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, নতুন সড়ক পরিবহন আইন এখন থেকে কার্যকর। তিনি বলেছেন, আইনটি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে দু’সপ্তাহ কিছুটা শিথিল করা হয়েছিল। অনেকে হয়তো জানেন না, কোন অপরাধ ও কোন বিশৃঙ্খলার জন্য কী শাস্তি পেতে হবে। সে জন্য দু’সপ্তাহ সময় দিয়েছেন।

রোববার রাজধানীর বসুন্ধরায় আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (এআইইউবি) আয়োজিত ‘সড়ক নিরাপত্তা ও সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮’ শীর্ষক আলোচনা সভায় ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, রাস্তায় চলতে শৃঙ্খলা মানতে হবে। ছাত্র-ছাত্রীদেরও দেখা যায়, রাস্তা পারের সময় মোবাইল ফোনে কথা বলতে বলতে যাচ্ছে। এগুলো মোকাবেলা করেই চলতে হচ্ছে। এখানে অনেক চ্যালেঞ্জ আছে। এ কাজটি অসম্ভবের মতো হয়ে গেছে। কিন্তু অসম্ভবকে ভালোবাসেন তিনি। চ্যালেঞ্জকে ভালোবাসতে হবে। সবাইকে আইন মেনে চলতে হবে।

এআইইউবি মিলনায়তনে এ সভায় ওবায়দুল কাদের বলেন, যারা রাস্তায় কোনো অপরাধ বা অপকর্ম করবে না, তাদের ভয় পাওয়ার কারণ নেই। ভয়টা দেখানো হবে, যাতে শাস্তির ভয় পেয়ে সবাই আইন ভঙ্গ করতে নিরুৎসাহিত হয়। গায়ে পড়ে কাউকে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে না। প্রথমবারই বড় জরিমানা হয়ে যাবে, তাও নয়। এমনও হতে পারে অপরাধ কম হলে জরিমানা এক হাজার টাকা হবে। বার বার করলে সেখানে জরিমানা বাড়বে। বিষয়টি পুলিশকেও জানানো হবে। এ সংক্রান্ত টাস্কফোর্সের মিটিংয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, যাতে আইনের যথাযথ প্রয়োগ হয়। এখানে পুলিশ যেন কোনো অ্যাগ্রেসিভ মুড না নেয়।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, সড়ক পরিবহন আইন কার্যকরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিষয়ে আইনমন্ত্রী গত বৃহস্পতিবার প্রজ্ঞাপনে স্বাক্ষর করেছেন। আশা করছি, আজই এই প্রজ্ঞাপন হয়ে যাবে। এরপর কার্যকর করতে আর অসুবিধা নেই।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাবেক নেতাদের বৈঠক সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা নতুন কিছু নয়। বিএনপি আর জামায়াতে ইসলামী ওপরে যাই বলুক, তলে তলে তাদের গলায় গলায় খাতির। এরা একই বৃন্তে দুটি ফুল। একটিকে ছাড়া আরেকটি চলবে না। তারা যমজ ভাইয়ের মতোই আছে। কাজেই তাদের বিচ্ছিন্ন ভাবার কোনো কারণ নেই।

ভারতের সঙ্গে স্বাক্ষরিত চুক্তি প্রকাশে বিএনপির দাবি প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি মহাসচিবকে জিজ্ঞাসা করব, তারা যখন ক্ষমতায় ছিলেন, তখন তারা বিদেশের সঙ্গে স্বাক্ষরিত কোন চুক্তি সংসদে উত্থাপন করেছেন? অথবা সংসদে অনুমোদন নিয়েছেন? তিনি বলেন, জোরগলায় বলতে পারি, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা দেশের স্বার্থ বিকিয়ে কোনো চুক্তি করবেন না। আর চুক্তি যেটা হয়েছে, এটা পরিষ্কার দিবালোকের মতো। চুক্তির মধ্যে গোপনীয়তা বলতে কিছু নেই। চুক্তি কি গোপন করে রাখা যায়?

বিএনপির সমালোচনার জবাবে কাদের বলেন, তাদের তো অভিযোগই হচ্ছে, আওয়ামী লীগ মানে দেশ বিক্রি, গোলামির চুক্তি! এগুলো তারা বলেই আসছে। বিএনপি অপপ্রচারের দল। এটা তাদের অভ্যাস। তারা বলে, দেশ নাকি ভারতের অংশ হয়ে যাচ্ছে! এ ধরনের অপপ্রচার করা তাদের চরিত্র।

তিনি বলেন, সড়ক সেক্টর খুব চ্যালেঞ্জিং। সরকার সড়ক যোগাযোগের ক্ষেত্রে ব্যাপক অবকাঠামোগত উন্নয়ন করেছে। ২০২১ সালেই পদ্মা সেতু খুলে দেওয়া হবে। কর্ণফুলী টানেল হচ্ছে, মেট্রোরেলের কাজও চলছে। ঢাকার বাইরে দশটি ফ্লাইওভার নির্মাণ হয়েছে, আরও দশটি নির্মাণাধীন। ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ও চট্টগ্রাম-কক্সবাজার সড়ক চার লেন হবে। পর্যায়ক্রমে দেশের সব মহাসড়ক চার লেন করা হবে। সেনাবাহিনী এত সুন্দরভাবে তৈরি করেছে যে, ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা সড়ক ইউরোপের রাস্তাকেও হার মানাবে।

সভায় আরও বক্তব্য দেন এআইইউবির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান নাদিয়া আনোয়ার, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. তোফাজ্জল হোসেন, ব্যবসা প্রশাসন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. চার্লস সি ভিনালুয়েভা প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

দৈনিক সংগ্রাম সম্পাদক তিন দিনের রিমান্ডে

স্টাফ রিপোর্টার :: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেফতার দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকার সম্পাদক ...