ব্রেকিং নিউজ

ধর্ষণ রোধে করণীয়

মুহাম্মদ শামসুল ইসলাম সাদিক :: নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা একটি সামাজিক ব্যাধি। অনাচার, অশ্লীলতা, বিকৃত যৌনাচার, যৌন নিপীড়নের মতো ঘৃণ্য ঘটনার পৌনঃপুনিকতায় আমরা যেন তলিয়ে যাচ্ছি এমন এক ঘুর অন্ধকারাচ্ছন্নময় সমাজের দিকে যা আদিম সমাজকেও হার মানাচ্ছে। ধুলোয় লুটোচ্ছে শান্তি ও নিরাপত্তা। মানবিক ও সামাজিক মূল্যবোধের সৃষ্টি হয়েছে তীব্র সংকট। অবক্ষয়গ্রস্ত এক অসুস্থ সমাজের ঘেরাটোপে বন্দী আমরা। যেভাবে বর্তমান সময়ে নারী ও শিশু ধর্ষণের শিকার হচ্ছে, তা আমাদের কে উদ্বিগ্ন আতঙ্কিত করে তুলেছে। বিবেকবোধ হারিয়ে যাচ্ছে আত্নসুখ লাভের মোহের কাছে। পচন ধরেছে আমাদের বিবেক, মননে। ফলে ক্রমেই আমরা এমন এক নিষ্ঠুর সময়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি যেখানে আদিম প্রবৃত্তির চরিতার্থতাই হয়ে উঠছে মুখ্য বিষয়। মানবসত্তাকে দমিয়ে রেখে জীবসত্তাই আমাদের চালিত করছে।

পত্রিকার পাতা খুললেই আমাদের চোখে পড়ে অসংখ্য ন্যক্কারজনক সামাজিক ও নৈতিক অবক্ষয়ের চিত্র। এসব ঘটনা আমাদের মানসিকভাবে বিধ্বস্ত করে দেয়। বিশেষ করে বলতে হয় নারীর প্রতি সহিংসতা ও যৌন নিপীড়নের কথা। যৌন নিপীড়নের বিষয়টি না কমে বরং বেড়ে গেছে বহুগুণ। এখন আট মাসের শিশু থেকে শুরু করে ৭০ বছরের বৃদ্ধা পর্যন্ত ধর্ষিত হচ্ছে, এমনকি খুনের শিকারও হতে হচ্ছে। প্রতিদিন কোথাও না কোথাও নারীরা নিগ্রহের শিকার হচ্ছে। পথে-ঘাটে, অফিসে, স্কুল-কলেজে কোথাও মেয়েরা নিরাপদ নয়। পরিস্থিতি এতটাই ভয়াবহ হয়ে উঠেছে যে চলন্ত বাসে, ট্রেনে ধর্ষণ হচ্ছে; ধর্ষণের পর হত্যা করা হচ্ছে এমনকি পুড়িয়ে মেরে ফেলা হচ্ছে; পিতৃতুল্য শিক্ষক এমনকি পিতা দ্বারা মেয়ে শিশুকে ধর্ষণ করার মতো ঘৃণ্য সংবাদও আমাদের শুনতে হচ্ছে।
ধর্ষণ শুধু একটি ব্যাধি নয়। দেশ ও জাতির জন্য অভিশাপ। নারীকে নানাভাবে যৌন হয়রানি ও ধর্ষণ করেই ক্ষান্ত হচ্ছে না মানুষ নামের অমানুষগুলো, বীরদর্পে সমাজে হেঁটে বেড়াচ্ছে, ধর্ষিতার পরিবারকে হুমকি দিচ্ছে এমনকি মেরেও ফেলা হচ্ছে। যৌন নিপীড়নের বিষয়টি অনেক আগে থেকেই বিদ্যমান ছিল আমাদের সমাজে। বিশেষ করে মূল্যবোধের অবক্ষয় ও নৈতিক অধঃপতন ঘটলেই কোনো মানুষের পক্ষে এমন কাজ করা সম্ভব। আর এই অভিশাপের কালো অধ্যায় থেকে সমাজকে রক্ষা করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। নারীর নিরাপদ জীবনের নিশ্চয়তা দান ও মৌলিক অধিকার রক্ষা সমাজ ও রাষ্ট্রের গুরু দায়িত্ব।
যৌন নিপীড়নকারীদের শাস্তির হাত থেকে পার পেয়ে যাওয়ার ফলে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়ন বেড়ে যাচ্ছে। বর্তমান সময়ে যেভাবে যৌন হয়রানির ঘটনা বাড়ছে, এ চিত্রই বলে দেয় পরিস্থিতি কতটা ভয়াবহ হয়ে উঠেছে। সবচেয়ে লজ্জার বিষয় হচ্ছে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, মাদ্রাসার কতিপয় শিক্ষক নামধারী কুলাঙ্গারের নিজ সন্তানতুল্য ছাত্রীদের যৌন নিপীড়ন ও ধর্ষণের বিষয়টি। শিক্ষক জাতির বিবেক। শিক্ষক আগামী প্রজন্ম গড়ার কারিগর। কিন্তু শিক্ষক কর্তৃক যখন ছাত্রী হয়রানির ঘটনা ঘটে তা অত্যন্ত ন্যক্কারজনক এবং জাতির জন্য অশুভ সংকেত। ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষা দেওয়ার জন্য অভিভাবকরা সন্তানদের মাদ্রাসায় পাঠান। অথচ প্রায়ই মাদ্রাসার শিক্ষক কর্তৃক কেবল ছাত্রীরাই নয়, ছাত্ররা পর্যন্ত বিকৃত যৌন ও নির্মম শারীরিক নির্যাতনের শিকার হওয়ার সংবাদ পত্রিকায় পাই। এক পত্রিকার প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত তিন বছরে আড়াই শর ওপর ছাত্র মাদ্রাসা শিক্ষক বা মসজিদের ইমাম কর্তৃক বলাৎকারের শিকার হয়েছে। স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে গত পাঁচ বছরে সারা দেশে সহস্রাধিক ছাত্রী শিক্ষকের যৌনলালসার শিকার হয়েছে।
ফলে কারও শিক্ষাজীবন ধ্বংস হয়ে গেছে, কারও পুরো জীবনের ওপর নেমে এসেছে কালো ছায়া। কেউবা লজ্জার হাত থেকে বাঁচতে বেছে নিয়েছে আত্মহত্যার পথ। শহরের তুলনায় গ্রামাঞ্চলের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কাছেই বেশির ভাগ ছাত্রী যৌন নিপীড়নের শিকার হচ্ছে। শিক্ষকরা পরীক্ষায় ফেল করানো বা সর্বোচ্চ নম্বর পাইয়ে দেওয়া, অভিভাবকদের কাছে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ছাত্রীদের হেনস্তা করা, ব্ল্যাকমেইলিসহ বিভিন্নভাবে ছাত্রীদের ফাঁদে ফেলে যৌন নিপীড়ন করে। ভয়ে, লজ্জায় ও সামাজিক সম্মানহানির কথা চিন্তা করে অনেক শিক্ষার্থী সবকিছু নীরবে চেপে যেতে বাধ্য হয়। কেউ কেউ সাহস করে মুখ খুললেও প্রতিকার পায় না, বরং অনেক অভিযোগ ধামাচাপা পড়ে যায়।  ভাবতেই অবাক লাগে, একজন শিক্ষক যিনি কিনা শিক্ষাগুরু তিনি কীভাবে এমন ঘৃণ্য কাজ করতে পারেন। এরা শিক্ষকজাতির কলঙ্ক এবং যারা কেবল শিক্ষকতাকে মহান পেশা হিসেবে বিবেচনা করে আসেননি, এসেছেন রোজগারের জন্য। আর এদের জন্য আজ বিব্রত পরিস্থিতির মধ্যে আছেন আদর্শবান শিক্ষকরা। অন্যদিকে আস্থাহীনতায় ভুগছেন অভিভাবকরা।
নারীরা কেন ধর্ষিত হচ্ছে? কেন যৌন নিপীড়নের শিকার হচ্ছে? অপরাধ বিশেষজ্ঞদের মতে, সমাজ এক ধরনের পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যাওয়ার ফলে অস্থিরতা বিরাজ করছে। পশ্চিমা সংস্কৃতি ও বিশ্বায়নের ক্ষতিকর প্রভাবের কারণে ধর্ষণ প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।
অবাধ তথ্যপ্রবাহের দরুন ইন্টারনেট, ফেসবুক, টিভির বিভিন্ন চ্যানেলে যৌন উত্তেজনাপূর্ণ ছবি দেখে অনেকে লালসা চরিতার্থের পথ খুঁজে ফেরে। দিন দিন শিক্ষিত জনগোষ্ঠীর সংখ্যা বাড়ছে কিন্তু দুর্ভাগ্য, নারীকে ভোগ্যপণ্য বা যৌন চাহিদা পূরণের উপায় হিসেবে দেখা থেকে অনেক পুরুষই বের হতে পারেনি। অনেক পরিবারে সন্তানদের নৈতিক ও মূল্যবোধ শিক্ষা দেওয়া হয় না, নেই স্নেহ ও শাসনের ভারসাম্য। অসুস্থ পারিবারিক পরিবেশে অনেকেই বেড়ে উঠছে অসুস্থ মানসিকতা নিয়ে। তা ছাড়া সামাজিক বিশৃঙ্খলা, সমাজে পেশিশক্তির প্রভাব, বিচারহীনতার সংস্কৃতি, সামাজিক-অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক অস্থিরতা, অন্য দেশের সংস্কৃতির সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর চেষ্টা, বিষণœতা ও মাদকাসক্তি, তথ্যপ্রযুক্তির অপব্যবহার প্রভৃতি যৌন নিপীড়ন বৃদ্ধির অন্যতম কারণ। স্যাটেলাইট চ্যানেলের কল্যাণে অপসংস্কৃতির ভুবনটা আমাদের কাছে উন্মুক্ত হয়ে গেছে। ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় ভায়োলেন্স ও অশ্লীলতার নানা চিত্র বেশ খোলামেলাভাবে প্রদর্শনের প্রতিযোগিতা চলছে। ইন্টারনেট প্রযুক্তি যৌনাচারকে লেলিয়ে দিচ্ছে। স্মার্টফোনের কারণে পর্নোসাইডে অশ্লীল ভিডিও দেখা সহজ হয়ে গেছে। অশ্লীল সিডি, ডিভিডি, বিভিন্ন প্রকার বই, ম্যাগাজিনের বিস্তার ঘটছে। হাটবাজার, শহর-গঞ্জের অলিগলিতে কম্পিউটার থেকে অশ্লীল ভিডিও ডাউনলোড দিয়ে মেমোরি কার্ডে সংরক্ষণ করার হিড়িক চলছে। ফলে মানুষের মাঝে যৌনলালসা বেড়ে গেছে বহুগুণ। মেয়েদের প্রতি তীব্র অশ্রদ্ধা, বিদ্বেষ, ক্রোধ, আক্রমণাত্মক মনোভাব ও প্রতিহিংসাপরায়ণতাও ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের কারণ। সাইকোপ্যাথিক এবং বিকৃত রুচি ও মানসিকতার ব্যক্তি, মাদকাসক্ত ব্যক্তিদের বিবেচনাবোধ লোপ পায় বলে এদের কাছে যৌন নিপীড়ন অস্বাভাবিক কিছু নয়। তবে সবকিছুর মূলে রয়েছে নৈতিকতা ও মূল্যবোধের অভাব।
আমাদের এ সমাজে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়ন সমাধান করা কঠিন কিছু নয়। তবে সরকারের একার পক্ষে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়, এ ক্ষেত্রে ব্যক্তি, পরিবার, সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। যৌথ প্রচেষ্টার মাধ্যমেই এ বিষবাষ্প থেকে মুক্তি পেতে পারি আমরা। ছেলেমেয়েরা যেন নৈতিকতা, মূল্যবোধসম্পন্ন হয় এবং নারীর প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে এ রকম পরিবেশের নিশ্চয়তা সৃষ্টি করতে হবে, পারিবারিক বন্ধন জোরদার করতে হবে। ইন্টারনেটসহ অন্যান্য প্রযুক্তির অপব্যবহার রোধ করতে হবে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো আইনের কঠোর বাস্তবায়ন পাশাপাশি সরকারকে আরও অধিক গুরুত্ব দিতে হবে। ধর্ষণকারী ও যৌন নিপীড়নকারী যতই প্রভাবশালী হোক না কেন, তাদের যদি আইনের আওতায় এনে দ্রুত বিচার করার মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া যায় তাহলে জীবনের মায়ায় শাস্তির হাত থেকে বাঁচার জন্য নিজেদের কুপ্রবৃত্তিকে দমন করবে। তবে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়ন সমূলে উৎপাটনের জন্য মানুষের মধ্যে নারী-পুরুষের সম্পর্কে ইতিবাচক মনোবৃত্তির বিস্তার ঘটাতে হবে এবং তা সম্ভব হবে তখনই যখন আমাদের সবার মাঝে সুশিক্ষা নিশ্চিত হবে।

 

লেখক: প্রাবন্ধিক 

Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ঢাবি শিক্ষক জিয়া রহমানের বিরুদ্ধে মামলা

অনলাইন ডেস্ক : ‘আসসালামু আলাইকুম’ ও ‘আল্লাহ হাফেজ’ বলাকে জঙ্গিবাদের চর্চা-এমন মন্তব্য ...