দেশের তিন স্থানে পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিনজন নিহত

নিউজ ডেস্ক।

download-715x400_26940রাজধানী ঢাকা সহ খুলনার কায়রায় ও ঝিনাইদহে হরিণাকুন্ডুতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিনজন নিহত হয়েছে। আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানোর সংবাদের ভিত্তিতে নিচে দেওয়া হল :-

ঢাকা: রাজধানীতে র‍্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো মোবাইল ফোনের খুদে বার্তায় জানানো হয়, আজ শুক্রবার ভোররাতে কদমতলী থানা এলাকায় কথিত এই বন্দুকযুদ্ধ হয়।

নিহত ব্যক্তির নাম-পরিচয় জানাতে পারেনি র‍্যাব। তারা বলছে, নিহত ব্যক্তি মাদক ব্যবসায়ী। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও মাদকদ্রব্য উদ্ধারের দাবি করেছে র‍্যাব।

খুলনা: খুলনার কয়রা উপজেলার খড়খড়িয়া নদীর দক্ষিণ পাশে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আনারুল ইসলাম (৪৫) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। আজ শুক্রবার ভোর সাড়ে চারটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

কয়রা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শমসের আলী জানান , আনারুল ১০টি মামলার আসামি। এর মধ্যে ছয়টি ডাকাতি, একটি হত্যা, একটি অস্ত্র ও দুটি ডাকাতির প্রস্তুতির মামলা। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

ঝিনাইদহ: ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার ফলশী গ্রামের বটতলায় র‌্যাব-সন্ত্রাসী ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শহিদুল ইসলাম পচা (৪০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন র‌্যাবের দুই সদস্য। গতকাল বৃহষ্পতিবার দিবাগত রাত পৌনে দুই টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

র‌্যাব- ৬ এর ঝিনাইদহ ক্যাম্প কমান্ডার মেজর মনির আহমেদ জানান, র‌্যাবের একটি টহল দল হরিণাকুন্ডু উপজেলা এলাকায় টহল দিচ্ছিল। ফলশী গ্রামে পৌঁছলে গ্রামবাসী টহল দলকে জানায়, ১৫-১৬ অজ্ঞাত ব্যক্তি কোনো অপরাধ ঘটানোর জন্য বটতলায় সন্দেহজনক ভাবে ঘোরাফেরা করছে। র‌্যাবের টহল দলটি সেদিকে এগিয়ে গেলে সন্ত্রাসীরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি বর্ষণ করে। র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। উভয় পক্ষের মধ্যে ১০ মিনিটের মতো ‘বন্দুকযুদ্ধ’ চলে।

সন্ত্রাসীরা পালিয়ে গেলে র‌্যাব ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ এক ব্যক্তিকে উদ্ধার করে হরিণাকুন্ডু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। র‌্যাব ঘটনাস্থল থেকে ১টি শুটারগান, ২ রাউন্ড গুলি, ১টি রামদা ও ১টি হাসুয়া উদ্ধার করে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় তার সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। রোববার সকাল সোয়া ১০টায় টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। এ সময় কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে জাতির পিতাকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন তারা। এ সময় ছোট বোন শেখ রেহানাও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন। এর পর ফাতেহা পাঠ ও মোনাজাতে অংশ নেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। বঙ্গবন্ধু সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে শিশু সমাবেশ ও আলোচনায় অংশ নেন বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে সকাল ৭টায় রাজধানীর ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দলের শীর্ষ নেতা ও মন্ত্রিসভার সদস্যদের নিয়েও শ্রদ্ধা জানান শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদনের পর আওয়ামী লীগের সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এর আগে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সকাল সাড়ে ৬টায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু ভবন এবং দেশব্যাপী দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করে। এ উপলক্ষে আজ সব সরকারি-আধাসরকারি, বেসরকারিসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

স্টাফ রিপোর্টার :: স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ...