ত্রিপুরা তরুণীকে গণধর্ষণের পর হত্যা

ত্রিপুরা তরুণীকে গণধর্ষণের পর হত্যা

আল-মামুন, খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:: খাগড়াছড়ির ভাইবোনছড়া এলাকায় বিয়ের প্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় এক ত্রিপুরা তরুনীকে গণধর্ষণের পর হত্যা করেছে বখাটোরা। নিহতের নাম ধনিতা ত্রিপুরা (১৮)। সোমবার গভীর রাতে খাগড়াছড়ির সদর উপজেলার দুর্গম বড়পাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। সে একই গ্রামের নলমোহন ত্রিপুরার মেয়ে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহত তরুণীর লাশ উদ্ধার করে। আটক করা হয় জড়িত ৩ যুবককে। নিহতের স্বজনরা জানান, বেশ কিছুদিন আগ থেকে বিয়ে প্রস্তাব দিচ্ছিল এলাকার বখাটে যুবক কমল ত্রিপুরা। বৈসাবী উৎসব চলাকালীন সময়েও সে ধনিতাকে বিয়ে করার জন্য তার মাকে নানাভাবে হুমকি দিয়ে আসছিল।

কিন্তু তরুণী বিয়েতে রাজী না হওয়ায় তাকে হুমকি দেওয়া হয়। সোমবার ধনিতা ত্রিপুরা মা দীঘিনালা বড় মেয়ের বাড়িতে বেড়াতে গেলে ধনিতা বাড়িতে একা পেয়ে রাতে বখাটে কমল ত্রিপুরা তার দুই বন্ধু রনেল ত্রিপুরা ও কিরণ ত্রিপুরাকে ধর্ষণ করে হত্যা করে।

এর আগে তারা এসময় মদ্যপ অবস্থায় ধনিতার বাড়ি থেকে বখাটে কমল ত্রিপুরা ধনিতার মাকে মোবাইল ফোনে হুমকি দিয়ে মোবাইল বন্ধ করে দেয়। সকালে গ্রামবাসী ধনিতার বাড়িতে তার লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্যকে জানান। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ধনিতার লাশ উদ্ধার করে।

খাগড়াছড়ি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন টিটো জানান,‘ দীর্ঘদিন ধরে বড়পাড়া গ্রামের বখাটে যুবক কমল ত্রিপুরাসহ ৩ বখাটে প্রতিবেশী ধনিতা ত্রিপুরাকে বিয়ে দেওয়ার জন্য হুমকি দিয়ে আসছিল। সোমবার রাতে মদ্যপ অবস্থায় কমল ত্রিপুরা তার কয়েকজন বন্ধুকে নিয়ে ধনিতা ত্রিপুরার বাড়ি গিয়ে হুমকি দেয়। এসময় বাড়িতে একা পেয়ে তারা ধনিতাকে তারা গণধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

পরে স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশ ধর্ষক কমল ত্রিপুরা ও তার বন্ধু রনেল এবং কিরণ ত্রিপুরাকে আটক । ভিকটিমের মা বাদী হয়ে খাগড়াছড়ি সদর থানায় একটি ধর্ষণ ও হত্যা মামলা দায়ের করার পক্রিয়া চলছে বলে তিনি জানান।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

চলতি বছরের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এ বছর পাসের হার ৭৩.৯৩ শতাংশ। বুধবার সকাল ১০টার দিকে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফলাফলের অনুলিপি হস্তান্তর করা হয়। চলতি বছরে ৪৭ হাজার ২৮৬ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছেন। এছাড়া, আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে গড় পাসের হার ৭১.৮৫ শতাংশ, মাদরাসা বোর্ডে ৮৮.৫৬ শতাংশ এবং কারিগরি বোর্ডে ৮২.৬২ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা আবুল খায়ের জানান, বেলা ১২টায় মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ফলের বিস্তারিত প্রকাশ করা হবে। উল্লেখ্য, গত ১ এপ্রিল সারা দেশে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়। ৯ হাজার ৮১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মোট ১৩ লাখ ৫১ হাজার ৫০৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়।

এইচএসসির ফল প্রকাশ: পাসের হার ৭৩.৯৩ শতাংশ

স্টাফ রিপোর্টার :: চলতি বছরের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফল ...