ব্রেকিং নিউজ

ঢাকায় গ্রেড বঞ্চিত পরিবার পরিকল্পনা কর্মচারীদের মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার :: বাংলাদেশের তুণমূলের স্বাস্থ্যসেবা ও জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমের মূল কারিগর এফপিআই ও এফডব্লিউভিএ‘দের (পরিবার কল্যান পরিদর্শক ও পরিবার কল্যান সহকারী) গ্রেড পরিবর্তন, নিয়োগবিধি বাস্তবায়ন ও পদোন্নতিসহ ৭ দফা দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে দেশের ৬৪ জেলার তৃতীয় শ্রেনীর গ্রেড বাস্তবায়নের জন্য পরিবার কল্যান পরিদর্শক ও পরিবার কল্যান সহকারীরা এ মানববন্ধনে অংশগ্রহন করে।

এ সময় বক্তব্য রাখেন, পরিবার পরিকল্পনা মাঠ কর্মচারি সমিতির কেন্দ্রীয় যুগ্ন আহবায়ক শিরিয়া বেগম,উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান,দাবি বাস্তবায়নের আহবায়ক ফিরোজ আলী, সদস্য সচিব জাকিরুননেছা সুমি, মুজিবুর রহমান টিটু, কামাল হোসেন, মোঃ রাসেল, কামরুল হাসান, দিদারুল ইসলাম, সুকেশ চন্দ্র ঘোষ,রাশেদা খানম রিনা, তোফায়েল আহমেদ, মাসুদ পারভেজ, কামাল হোসেন, সুলতানা কামাল প্রমুখ।

মানব বন্ধনে আরো বলা হয়, ১৯৭৬ সালে নিয়োগকৃত মাঠ কর্মচারীরা জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম শুরু হলেও প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও সামাজিক প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলা করে স্যাটেলাইট, ইপিআই ও বাড়ি বাড়ি গিয়ে গর্ভাবস্থায় প্রসবকালীন ও প্রসবোত্তর সেবা প্রদান, শিশুদের শাল দুধ খাওয়ানো ও গর্ভবতী মহিলা ও শিশুদের টিকাদান, কিশোর-কিশোরীদের বয়ঃসন্ধিকালীন সেবা, বাল্যবিয়ে রোধ, ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া ও কলেরা-আমাশয় সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি, আদমশুমারি, খানাশুমারি, নির্বাচনী দায়িত্ব, শিক্ষা, কৃষি ও মৎস্য উৎপাদন ইত্যাদি সামাজিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করছেন। ফলে ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে সামাজিক সূচকে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে আছে; কিন্তু জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের সাফল্যকে বিশ্ব স্বীকৃতি দিলেও সরকারের কতিপয় আমলা পরিবার কল্যাণ সহকারীদের পরিপত্র জারি করে ৪র্থ শ্রেণি করে রেখেছেন, যা সম্পূর্ণ অমানবিক। ১৯৯৮ ও ২০১৫ সালে এ বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়োগবিধি তৃতী শ্রেনীরমর্যাদা হলেও এফপিআই ও এফডবিøউএদের (পরিবার কল্যান পরিদর্শক ও পরিবার কল্যান সহকারী) রহস্যজনক কারণে নিয়োগবিধি কার্যকর করা হয়নি।

এ সময় বক্তারা আরো বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিকের সিএইচসিপি ১৪তম গ্রেড, স্বাস্থ্য সহকারী ১৬তম গ্রেড, স্বাস্থ্য পরিদর্শক ১৪তম গ্রেড, ইউনিয়ন পর্যায়ের ব্লক সুপার ভাইজার ও উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা ১১তম গ্রেডে পদোন্নতি পেয়েছেন। কিন্তু পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের এই দুই পদে গ্রেড মূল্যায়ন করা হচ্ছেনা। বক্তারা হুশিয়ারি উচ্চারন করে বলেন আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ সালের মধ্যে তাদের দাবি না মানা হলে ১ মার্চ ২০২০ তারিখ থেকে এমআইএস রিপোর্ট বন্ধসহ কঠোর কর্মসূচীর ঘোষনা দেন তারাা।

Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

দুর্গাপূজা শুরু হচ্ছে আজ

ডেস্ক রিপোর্ট :: দুর্গাপূজার মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হচ্ছে আজ বৃহস্পতিবার ষষ্ঠী পূজার ...