নব্বই দিনের মধ্যে ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নির্বাচন নিয়ে সরকার ও নির্বাচন কমিশন (ইসি) পরস্পর বিরোধী অবস্থানে রয়েছে। নির্বাচনের দিনক্ষণ নিয়ে সরকারের সাথে ইসির আনুষ্ঠানিক কোন বৈঠক না হলেও মিডিয়া মারফতে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য দিচ্ছে ইসি ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

সরকারের পক্ষ থেকে নব্বই দিনের মধ্যে নির্বাচনের কথা বলা হলেও মেয়াদ শেষ হওয়ার কারণে তা নাচক করে দিচ্ছে নির্বাচন কমিশন। ফলে ডিসিসি নির্বাচন নিয়ে অনেকটা ধুম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে।

বুধবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বিদ্যুৎ সপ্তাহের অনুষ্ঠান শেষে স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক সাংবাদিকদের বলেন, ‘নির্বাচন করার দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের। নব্বই দিনের মধ্যে নির্বাচন করার জন্য আমরা নির্বাচন কমিশনকে জানিয়ে দিয়েছি।’

আগামী নব্বই দিনের মধ্যে নির্বাচন কমিশনে পরিবর্তনের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ‘এটা একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এ ধরনের প্রক্রিয়া কোন কাজে বাধা সৃষ্টি করতে পারে না।’

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে সাংবিধানিকভাবে বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। ফলে ডিসিসি নির্বাচন আয়োজনে জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে আশঙ্কায় তা এগুতে চাইছে না কমিশনাররা।

এদিকে স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্য সম্পর্কে নির্বাচন কশিনার এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ‘তাত্ত্বিকভাবে এ রকম অনেক কথাই বলা যায়। এ ক্ষেত্রে যারা বাস্তবে কাজ করেন তাদের সাথে আলোচনা করে কথা বলা-ই ভালো।’

বুধবার নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের বিষয়টা আমরা শুধু সংবাদমাধ্যমেই শুনছি। এ বিষয়ে সরকারের সাথে কোন আনুষ্ঠানিক বৈঠক হয়নি।’

সাখাওয়াত বলেন, ‘নব্বই দিনের মধ্যে নির্বাচনে কী অসুবিধা আছে তা সরকার আমাদের কাছে জানতে চাইলে আমরা জানাবো।’

তিনি বলেন, ‘নির্বাচন ভালো কিংবা খারাপ হলে সে দায়িত্ব সরকারের ওপর যায় না; কমিশনের ওপর আসে। তাহলে যিনি নব্বই দিনের মধ্যে নির্বাচনের কথা বলছেন, তিনি কী এর ভালো-মন্দের দায়-দায়িত্ব নেবেন?

প্রধান নির্বাচন কমিশনার এটিএম শামসুল হুদা দেশে ফিরলে আগামী সপ্তাহে বৈঠক করে কমিশন তাদের সিদ্ধান্তের কথা আনুষ্ঠানিকভাবে জানাবে বলেও জানান সাখাওয়াত।

উল্লেখ্য, এর আগে ডিসিসির বিভক্তিকে স্বাগত জানিয়ে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সরকারমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলমাও নব্বই দিনের মধ্যে বিভক্ত দুই সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের কথা জোর দিয়ে বলেছিলেন।

তবে স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর ওই বক্তব্যের বিরোধিতা করে গণমাধ্যমে বক্তব্য দিয়েছেন অপর নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ ছহুল হোসাইন। তার মতে, নব্বই দিনের মধ্যে দুই সিটি করপোরেশনের নির্বাচন আয়োজন সম্ভব নয়।

এদিকে ইতোমধ্যে বিভক্ত দুই সিটি করপোরেশনে নতুন প্রশাসক নিয়োগ দিয়েছে সরকার। বুধবার ডিসিসির সীমানা নির্ধারণের নতুন প্রজ্ঞাপনও জারি করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডট কম/ঢাকা

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here