শনিবার ২০তম জাতীয় টিকা দিবস। শূন্য থেকে ৫ বছর বয়সী শিশুদের প্রথম রাউন্ডের টিকা খাওয়ানো হবে।

এদিন ২ কোটি ২০ লাখ শিশুকে ২ ফোঁটা পোলিও এবং একটি ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে।

জাতীয় টিকা দিবসের ২য় রাউন্ড অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১১ ফেব্র“য়ারি।

এ উপলে রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

দিবসটি পালনে ও সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে শুক্রবার রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সংগঠন শোভাযাত্রা বের করে এবং বিভিন্ন এলাকায় স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে মাইকিং করা হয়েছে।

শনিবার সকাল সোয়া ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে ২০তম জাতীয় টিকা দিবসের উদ্বোধন করবেন।
শুক্রবার মহাখালীর সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি (ইপিআই) ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে দিবসের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বক্তৃতা করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. আ ফ ম রুহুল হক।

তিনি বলেন, প্রথম রাউন্ডে এবার ০ থেকে ৬০ মাস বয়সী সব শিশুকে ২ ফোঁটা করে পোলিও টিকা খাওয়ানো হবে।
৬ থেকে ১১ মাস বয়সী সব শিশুকে ১টি নীল রংয়ের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুদের ১টি লাল রংয়ের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে।

মন্ত্রী বলেন, পোলিও টিকার সঙ্গে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ালে শিশু মৃত্যুহার কমে।
তিনি আরও বলেন, কোন শিশুর টিকা খাওয়া যেন বাদ না পড়ে, সে জন্য রবিবার থেকে বুধবার পর্যন্ত চলবে ‘বাদ পড়া শিশু অনুসন্ধান’ কার্যক্রম।

ইপিআই’র প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. তাজুল ইসলাম এ বারি জানান, ১ লাখ ৬০ হাজার কেন্দ্রের মাধ্যমে এবার শিশুদের টিকা খাওয়ানো হবে। এর মধ্যে ২০ হাজার রয়েছে ভ্রাম্যমাণ কেন্দ্র।

মাঠ পর্যায়ে ৭ লাখ লোক এ দিবসকে সফল করার জন্য কাজ করবে বলে জানান তিনি।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য সচিব মো. হুমায়ুন কবির এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. খন্দকার মো. শিফায়েতউল্লাহ।

ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডট কম/স্টাফ রিপোর্টার

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here