ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল: বৃহত্তর নোয়াখালীর আলোচনায় যারা

মোঃ আব্দুল্লাহ (বাশার) :: আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর হতে যাচ্ছে বিএনপির অন্যতম সহযোগী সংগঠন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ষষ্ঠ কেন্দ্রীয় কাউন্সিল।  ইতোমধ্যেই সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য তিন নারীসহ ১১০ জন মনোনয়নপত্র কিনেছেন।  যাদের মধ্যে  দুই নারীসহ ৭৬ জন জমা দিয়েছেন।  নেতৃত্বে আসার আলোচনায় থাকা প্রার্থীরা যার যার অবস্থান থেকে নিজেকে নেতৃত্ব দেয়ার জন্য যোগ্য মনে করলেও তাদের ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত হয়ে আসতে হবে।

বরাবরের মতই ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটিতে নেতৃত্বে আশার আলোচনায় রয়েছে বৃহত্তর নোয়াখালীর কয়েকজন ছাত্রনেতা যাদের বিগত দিনের আন্দোলন-সংগ্রামে নিজের অংশগ্রহণ ও ভূমিকা রয়েছে।

ছাত্রদলের কয়েকটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, সভাপতি পদে নোয়াখালী থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দিয়েছেন মোঃ আজিম উদ্দীন মেরাজ ও মোহাম্মাদ ইলিয়াস। তবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হওয়ায় আজিম উদ্দীন মেরাজ সভাপতি পদে এগিয়ে রয়েছে। অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় আছে কারীমুল হাই নাইম, শাহ নেওয়াজ, রিয়াদ ইকবাল, ওমর ফারুক শাকিল ও মোহাম্মাদ জুলহাস।

সর্বশেষ ছাত্রদলের বিলুপ্ত  কমিটিতে ত্রাণ ও দূর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক আজিম উদ্দীন মেরাজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের মেধাবী ছাত্র যার গ্রামের বাড়ি নোয়াখালী জেলার সদর উপজেলায়। রাজনৈতিক পরিবার থেকে উঠে আসা আজিম উদ্দীন মেরাজের বাবা ছিলেন নোয়াখালী জেলা সেচ্ছাসেবক দলের প্রতিষ্ঠাকালীন আহ্বায়ক।

আরেক সভাপতি প্রার্থী ইলিয়াস সর্বশেষ ছাত্রদলের কমিটির সহ-স্কুল বিষয়ক সম্পাদক ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র।  তার গ্রামের বাড়ি নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জ উপজেলায়।

সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচিত কারীমুল হাই নাইম ও শাহ নেওয়াজের বাড়ি নোয়াখালির হাতিয়া উপজেলায়।  দুইজনই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র। কিন্তু আলোচনায় এগিয়ে রয়েছে সর্বশেষ কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও পরিচ্ছন্ন ইমেজের অধিকারী কারীমুল হাই নাইম। অন্য সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীদের মধ্যে রিয়াদ ইকবালের বাড়ি লক্ষ্মীপুরের সদর উপজলায়, ওমর ফারুক শাকিলের বাড়ি লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ও ঢাকা কলেজের ছাত্রনেতা মোহাম্মাদ জুলহাজের গ্রামের বাড়ি ফেনীর ছাগলনাইয়ায়।

সভাপতি পদে আলোচিত প্রার্থী আজিম উদ্দীন মেরাজ বলেন,  খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির আন্দোলন ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য রাজপথে কার্যকর এবং দৃশ্যমান আন্দোলনের সূচনা করতে চাই এবং তারণ্যের অহংকার তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে জনগনের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে চাই। জেলা পর্যায়ে যারা কাজ করেছে আন্দোলন সংগ্রামে অভিজ্ঞতা আছে তাদের কে গুরুত্ব দিবো।

তিনি আরো বলেন,  তিনি যদি কাউন্সিলদের ভোটে সভাপতি নির্বাচিত হন তাহলে ছাত্রদল কে ক্যাম্পাস ভিত্তিক সংগঠন হিসাবে গড়ে তোলার সর্বাত্মক উদ্যোগ গ্রহন করবেন এবং ছাত্রদল কে সুসংগঠিত করে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার আন্দোলনে নেতৃত্ব দেবেন।

তিনি বলেন, বিগত অন্দোলন সংগ্রামে নোয়াখালী থেকে উঠে আসা নেতা কর্মীরা রাজপথে অনেক বেশি সক্রিয় ছিল এবং তাদের ত্যাগই সবচেয়ে বেশি। নোয়াখালীর সন্তান হিসাবে আমার নোয়াখালীর প্রতি সব সময় আলাদা টান রয়েছে, এবং আমাদের পিতৃ সমতুল্য বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের নোয়াখালীর সকল নেতার প্রতি রয়েছে ভালবাসা। বিশেষ করে আমি নোয়াখালী-৪ আসনের সাবেক সাংসদ বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান শাহজাহান ভাইর দোয়া চাই আর তার একজন কর্মী হিসাবে কাজ করতে চাই।

সাবেক ও বর্তমান অনেক নেতার সাথে কথা বলে জানা যায়, নোয়াখালী থেকে কাউন্সিলে সকল প্রার্থীর মধ্যে নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকলেও সবার মধ্যে রয়েছে সুসম্পর্ক এবং আজিম উদ্দীন মেরাজসহ সবাই ছাত্রদলের সদ্য সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহসভাপতি মামুনুর রশিদ মামুনের অনুসারী। বিশেষ করে আজিম উদ্দীন মেরাজ তার একান্ত অনুগত ও সহচর।

 

 

 

 

 

লেখকঃ যুগ্ম আহ্বায়ক, জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল, স্যার এ এফ রহমান হল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

ইমেইল: abdullahdupacs@gmail.com

 

 

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

পদ্মাসেতু উদ্বোধনের দিনেই ট্রেন চলবে: রেলমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার :: বহুল কাঙ্ক্ষিত স্বপ্নের পদ্মাসেতু উদ্বোধনের দিনেই এর ওপর দিয়ে ...