ইউনাইটেড নিউজ ডেস্ক:: চাঁদপুরে করোনা ও উপসর্গে একদিনে আরও ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে করোনায় নয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১৮২ জন।

এছাড়াও বুধবার নতুন করে আরও ৪৪৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৪৭ শতাংশ। নতুন আক্রান্তসহ জেলায় মোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৪৪৮ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন সাত হাজার ৩৩৩ জন। চাঁদপুরের সিভিল সার্জন ডা. মো. সাখাওয়াত উল্লাহ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এছাড়াও মঙ্গলবার দুপুর ২টা থেকে বুধবার দুপুর ২টা পর্যন্ত চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে করোনা উপসর্গ নিয়ে ১১ মারা গেছেন। চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের করোনা বিষয়ক ফোকাল পারসন ডা. মো. সুজাউদ্দৌলা রুবেল বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

চাঁদপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ের দেয়া তথ্যমতে, বুধবার (৪ আগস্ট) মোট ৯৪৩টি নমুনা পরীক্ষার ফলাফল এসেছে। এদের মধ্যে ৪৪৯ জনের রিপোর্ট পজিটিভ এবং বাকিদের নেগেটিভ আসে। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে সদর উপজেলায় ৯৮ জন, হাজীগঞ্জে ৩৩ জন, কচুয়ায় ১০৮ জন, ফরিদগঞ্জে ১৩ জন, হাইমচরে ৩৭ জন, শাহরাস্তিতে ২৯ জন, মতলব উত্তরে ৬২ জন ও মতলব দক্ষিণ উপজেলায় ৬৯ জন।

জেলায় এখন পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষার ফলাফল এসেছে ৪৬ হাজার ৪৭৪টি। যার মধ্যে পজিটিভ এসেছে ১১ হাজার ৪২৯ জনের ও নেগেটিভ এসেছে ৩৫ হাজার ৪৫ জনের।

জেলায় মোট আক্রান্তের মধ্যে সদরে চার হাজার ৮৫০ জন, ফরিদগঞ্জে এক হাজার ২৭৭ জন, মতলব দক্ষিণে ৯৯৩ জন, শাহরাস্তিতে এক হাজার ৩৮৩ জন, হাজীগঞ্জে এক হাজার ১৩৮ জন, হাইমচরে ৬১৩ জন, মতলব উত্তরে ৬৩৯ জন ও কচুয়ায় ৫৫৫ জন রয়েছেন।

জেলায় মারা যাওয়া ১৮২ জনের মধ্যে সদরে ৬৯ জন, ফরিদগঞ্জে ২৮ জন, মতলব দক্ষিণে ১১ জন, শাহরাস্তিতে ২৩ জন, হাজীগঞ্জে ২৫ জন, হাইমচরে চারজন, মতলব উত্তরে ১৩ জন ও কচুয়ায় ৯ জন রয়েছেন।

বুধবার দুপুরে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে লিকুইড অক্সিজেন প্ল্যান্টের উদ্বোধন করা হয়েছে। এতে করোনা আক্রান্ত রোগীদের অক্সিজেন সেবা বৃদ্ধি ও আক্রান্ত রোগীদের মৃত্যুর হার কমবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here