চরফ্যাসনে আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে জমি দখলের অভিযোগ

শিপুফরাজী, চরফ্যাসন(ভোলা)প্রতিনিধি :: চরফ্যাসনের পশ্চিম এওয়াজপুর মৌজায় আদালতের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে কৃষকের ৪ একর ৮৫ শতাংশ জমি জবরদখল করে মাছেরঘের, গরুর খামার এবং পাকাঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় প্রভাবশালী ভূমিদস্যু হেলাল উদ্দিনের নেতৃত্বে একদল দুর্বৃত্ত এই জবরদখল করছেন বলে জমির মালিক গাজি আবদুল বাসেত অভিযোগ করেছেন। গতকাল পশ্চিম এওয়াজপুর গ্রামে এই জমি দখলের ঘটনা ঘটে।

জমির মালিক গাজি আবদুল বাসেত অভিযোগ করেন, পশ্চিম এওয়াজপুর মৌজার ৭৭ খতিয়ানে মোট ১১ একর ৬৩ শতাংশ জমির মূল মালিক ছিলেন দুই ভাই ইদ্রিস ও ইসহাক। ইদ্রিস ও ইসহাকের মৃত্যুর পর ইসহাকের ওয়ারিশ গিয়াসগংরা তাদের ৫ একর ৮১ শতাংশ জমির মধ্য থেকে ৪ একর ৮৫ শতাংশ জমি হেলালউদ্দিনগংদের কাছে বিক্রি করেন। এতে সংক্ষুদ্ধ হয়ে খতিয়ানের ওয়ারিশ গাজি আবদুল বাসেত জমি ফেরৎ পাওয়ার জন্য ২০০৯ সনে চরফ্যাসন সহকারি জজ আদালতে টাকা দাখিলের মামলা করেন। কিন্ত ওই মামলায় গাজি আবদুল বাসেতের বিপক্ষে রায় হয়।

ফলে গাজি আবদুল বাসেত ২০১৬ সনে চরফ্যাসন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আপীল মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় আদালত হেলাল উদ্দিনগংদের বিরুদ্ধে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেন। কিন্ত হেলাল উদ্দিনগংরা ওই আদেশ উপেক্ষা করে আদালতের বিচারাধীন ৪ একর ৮৫ শতাংশজমির পাশাপাশি গাজি আবদুল বাসেতের সমূদয় জমি জবরদখল করে মাটিকাটা, মাছের ঘের ও পাকাঘর নির্মাণ কাজ শুরু করেছেন। দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত একদল ভাড়াটে দুর্বৃত্তদের নিয়ে এমন জবর দখল করায় জমির প্রকৃত মালিক গাজি আবদুল বাসেত ও তার লোকজন আতংকের মধ্যে আছেন।

অভিযুক্ত হেলাল উদ্দিন জমি জবর দখলের বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

শশীভুষণ ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, এঘটনায় কোন অভিযোগ পাইনি ।অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে

Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

পুলিশ ফাঁড়িতে আমরণ অনশনে রায়হানের মা

ডেস্ক রিপোর্ট ::আমরণ অনশন শুরু করেছেন সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে নিহত ...