ব্রেকিং নিউজ

ঘুমের মধ্যেই কমিয়ে ফেলুন ওজন

ডেস্ক নিউজ :: ওজন বাড়ছে। ক্রমশ জবাব দিচ্ছে ওয়েট মেশিন। সেই নিয়ে চিন্তায় রাতে ঘুম উড়ে গিয়েছে তো? তাহলে এবার কাজের কথা বলি। রাতের ঘুম না উড়িয়ে বরং বেশি করে ঘুমোন। চিন্তা বাদ দিয়ে ঘুমই আপনাকে বাতলে দেবে ওজন কমানোর রাস্তা। অবাক হচ্ছেন?

সাম্প্রতিক এক সমীক্ষা বলছে, রাতের ঘুমেই লুকিয়ে রয়েছে ওজন কমার চাবিকাঠি। তাই তিন্তাতে ঘুম না উড়িয়ে চিন্তা মুক্ত হয়ে ঘুমোন। তবেই ওজন কমতে শুরু করবে।

গবেষকরা বলছেন, ঘুমের মধ্যে বেশ কিছু কার্যকলাপ যেমন, সেল রিপেয়ার ও গ্রোথ বৃদ্ধি পায়। মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বাড়ে। সেভাবেই আপনার শরীরও ঘুমের মধ্যে বেশ কিছুটা ক্যালোরি বার্ণ করতে সক্ষম যদি সঠির পদ্ধতি মেনে ঘুমোনো যায়। কি খাচ্ছেন, কতক্ষণ ঘুমোচ্ছেন, কীভাবে ঘুমোচ্ছেন, এই সব ফ্যাক্টর অবশ্য কাজ করে ক্যালোরি বার্ণ করার পরিমাণের ওপর। এছাড়াও শরীরে তাপমাত্রা কত ও ঘরের অবস্থানও প্রভাব ফেলে দেহের ওজন কমার ক্ষেত্রে।

 

অন্ধকারে ঘুমোনঃ

যখন ঘুমোতে যাচ্ছেন, তখন খেয়াল রাখুন যেন আপনার ঘরে আলো না জ্বলে। একদম ঘর অন্ধকার করে ঘুমোন। এতে মস্তিষ্ক রিল্যাক্স করার অবকাশ পায়। মানুষের শরীর মেলাটোনিন নামে এক হরমোন উৎপাদন করে, যা মানুষের ঘুমের ক্ষেত্রে সহায়ক হয়। এই হরমোনের প্রভাবেই আমাদের ঘুম পায় ও গভীরভাবে ঘুমাতে পারি আমরা। এই হরমোন মূলত উৎপাদিত হয় রাত ১১টা থেকে ভোর ৩টে পর্যন্ত। ফলে এই সময়টাই ঘুমের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত।

 

নির্দিষ্ট ও পর্যাপ্ত সময় ধরে ঘুমঃ

একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের ৬ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুম প্রয়োজন। ঘুম না হলে শারীরিক ক্লান্তি কাটে না। মানসিক ক্লান্তিও চেপে ধরে। ক্ষিধে বেশি পায়, যাতে ওজন বাড়াটা অবশ্যম্ভাবী। তাই পর্যাপ্ত পরিমাণ সময় ধরে ঘুমোন। অনেক সমীক্ষা জানাচ্ছে ঠিকঠাক ঘুম না হলে শরীরের কোষগুলি কার্যক্ষমতা হারায় ও ইনসুলিনের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। এতেই জন্ম নেয় ওবেসিটি।

মোবাইল, ট্যাব, ল্যাপটপ, টিভি থেকে দূরে থাকুন ঘুমের সময়। কারণ এই সব যন্ত্র থেকে যে নীল রশ্মি বেরোয়, তা মেলাটোনিন উৎপাদন কমিয়ে দেয়। ফলে ঘুম আসে না। পরিপাক ক্রিয়াও ব্যাহত হয়।

 

ঘরের তাপমাত্রা আরামদায়ক রাখুনঃ

সমীক্ষা বলছে অতিরিক্ত গরম বা অতিরিক্ত ঠাণ্ডা শরীরের জন্য ভালো নয়। এতে ঘুমের ব্যাঘাতও ঘটে। ঘরের তাপমাত্রা যদি ১৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি থাকে, তবে আপনার শরীর ৭ শতাংশ অতিরিক্ত ক্যালোরি বার্ণ করতে সক্ষম।

Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

প্রিয় শিক্ষকের মৃত্যুতে ঢাবি শিক্ষার্থীর আবেগঘন চিঠি

আরিফ চৌধুরী শুভ :: হারিয়েছি না হেরে গেছি আমরা? আ্যাম্বুলেন্স চলছে সারেইন ...