ব্রেকিং নিউজ

গলাচিপায় মন্দিরের প্রনামীর অর্থে ত্রাণ বিতরণ

স্টাফ রিপোর্টার :: মন্দিরের প্রনামীর যে অর্থ দিয়ে অবকাঠামোর উন্নয়ন কিংবা দেবতার পূঁজা করার নিয়ম ছিল অথবা পুরোহিতের ভরণপোষণ হতো, সে চিরাচরিত নিয়ম ভেঙ্গে দিলেন পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার চিকনিকান্দী সার্বজনীন কালীবাড়ি মন্দিরের উদ্যমী জনাকয়েক যুবক। তারা সে অর্থ দিয়ে ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে কর্মহীন মানুষদের হাতে খাদ্য তুলে দিয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে সনাতন যুব সংঘের কর্মীরা চিকনিকান্দী সার্বজনীন কালীবাড়ি মন্দির প্রাঙ্গণে ২৮০ জন কর্মহীন মানুষের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন। খাদ্য সামগ্রী হিসেবে প্রত্যেকের হাতে ৩ কেজি চাল, ২ কেজি আলু, ১ কেজি ডাল, হাফ লিটার তেল, ১ কেজি লবন ও ১টি সাবান দেয়া হয়।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, চিকনিকান্দী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাজ্জাদ হোসেন রিয়াদ, কালীবাড়ি মন্দিরের প্রতিষ্ঠাতা শ্রী অজিত কুমার কুন্ডু, কালীবাড়ি পরিচালনা কমিটির সভাপতি কালাচাঁন কুন্ডু, সাধারন সম্পাদক যুগল দেবনাথ এবং সনাতন যুব সেবা সংঘের সভাপতি শ্রী বিবেকানন্দ দেবনাথ প্রমূখ।

সনাতন যুব সংঘের এ উদ্যােগ সম্পর্কে সাজ্জাদ হোসেন রিয়াদ বলেন, এটি শুধু নিরন্ন মানুষের মুখে খাবার তুলে দেয়াই নয়, এর মাধ্যমে আন্তঃসম্পর্ক বাড়ে। মানুষে মানুষে বিভেদ দূর হয়।

মন্দিরের প্রতিষ্ঠাতা শ্রী অজিত কুমার কুন্ডু বলেন, মানবসেবার চেয়ে বড় ধর্ম আর কিছুই হয় না৷ আমাদের সনাতন ধর্মে মানবসেবা ও দানের কথা বলা আছে। ধর্মের এই নীতি অনুসরণ করা আমাদের প্রত্যেকের কর্তব্য। যুবকরা যে উদ্যােগ নিয়েছে, তাই আমাদের প্রধান ধর্ম।

বিবেকানন্দ দেবনাথ বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে বহু মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। তাদের মুখে খাবার তুলে দেয়ার এ উদ্যােগ ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। মন্দির প্রনামীর সকল অর্থ এই মহৎ কাজে ব্যয় করা হবে। প্রয়োজনে নিজেরাও অর্থ দেব। এই কাজে কখনই ধর্ম বর্ণ বিবেচনা করা হবে না।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মনপুরায় পুলিশ, হাসপাতালের ওয়ার্ড বয় ও এক মহিলা করোনায় আক্রান্ত 

রাকিবুল হাসান মনপুরা (ভোলা) প্রতিনিধিঃ ভোলার মনপুরায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ওয়ার্ড বয়, পুলিশ ...