ইউনাইটাইটেড নিউজ টুয়েন্টিফোর ডট কমের সম্পাদক আ.হ.ম ফয়সাল

হীরেন পণ্ডিত:: ”আপনি কত টাকা ব্যাংকে রেখে গেছেন এটা কেউ মনে রাখবে না, অন্যের জন্য কি করে গেছেন সেটাই মানুষ মনে রাখবে” আ.হ.ম ফয়সল, প্রকাশক ও সম্পাদক, ইউনাইটেড নিউজ টুয়েন্টিফোর ডট কম । এই নিজস্ব বাণীটি লিখা আছে ফয়সল ভাই আপনার ফেস বুক আইডিটিতে।

গতকাল (শুক্রবার ৩০ এপ্রিল) সন্ধ্যার পর ফেসবুক খুলে আবারো চেক করলাম আপনার আইডি থেকে কোন লিংক এসেছে কিনা। গত কয়েকমাস ধরে এটা একটা রুটিন হয়ে গিয়েছিলো আমি বৃহষ্পতিবার রাতে বা শুক্রবার সকালে আপনার মেইলে আর ফেসবুক মেসেঞ্জারে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের ওপর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে লিখা পাঠিয়েছি। আপনি কালবিলম্ব না করে সেটি আপলোড করে লিংক পাঠিয়ে দিয়েছেন। আমি আবার লিংক আমার আইডিতে পোস্ট করে দিয়েছি।

কাল সন্ধ্যার পর সেই অপেক্ষাতেই ফেসবুক খুলে আবার চেক করলাম লিংক এসেছে কিনা, না তখনো আসেনি ভাবলাম, হয়তে ফয়সল ভাই ব্যস্ত আছেন। ছোট একটা মেসেজ দিলাম ফ্রি হয়ে লিংকটা দিয়েন। তার কয়েক মিনিট পর ফেসবুকের ভেতরে একজন আপনার কোন বন্ধুর ট্যাগ করা খবরটি দেখে নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারছিলাম না।

ভাবলাম ফেসবুকে অনেক খবর ছড়িয়ে পড়ে যা পরে সত্যতা খুজে পাওয়া যায়না। একটু পর ফোন দিলাম আপনার ফোনে, ফোন বাজছে কেউ ধরছেন না, আবার ফোন দিলাম অপরদিক থেকে নারীকেণ্ঠের কান্নাভেজা কথা ভাইয়া ইফতার করে শুয়েছিলো ডাকার পর সারা শব্দ না পেয়ে উখিয়া উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে যাবার পর ডাক্তার বললেন ভাইয়া আর নেই। পুরো বাকরুদ্ধ হয়ে গেলাম।
ফয়সল ভাই এটা কি হলো! কয়েকদিন আগেও কথা হলো ফোনে অফিসে আসার আমন্ত্রণ দিলাম, লাঞ্চের দাওয়াত দিলাম, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আসার প্রতিশ্রুতিও দিলেন। আমি কিন্তু অপেক্ষা করবো আপনার আসার।

বিএনএনআরসির প্রধান নির্বাহী এইএইচএম বজলুর রহমান (বজলু ভাই) একদিন একটি ভিজিটিং কার্ড দিয়ে জানালেন বিএনএনআরসির প্রেস রিলিজগুলো উনাকে পাঠাতে। খবরগুলো পাঠাই সবগুলো গুরুত্ব দিয়ে আপলোড করেন লিংক পাঠান এভাবেই চলছিলো। একদিন বললেন আপনিতো অনেক পত্রিকায় লেখেন আমাদের জন্য লেখা পাঠাবেন। তারপর লেখা পাঠানো শুরু শেষ পাঠালাম ৩০ এপ্রিল ২০২১।
বিএনএনআরসির ডব্লিউএসআইএস পুরস্কার লাভ আপনাকে খুব আনন্দিত হতেন। বজলু ভাই জাতিসংঘের তথ্য সমাজ বিষয়ক বিশ্ব সম্মেলন (ডব্লিউএসআইএস) এর উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে আলোচক মনোনীত হবার খবর গুরুত্ব দিয়ে ছাপার জন্য বজলু ভাইয়ের সংক্ষিপ্ত জীবন-বৃত্তান্ত জরুরিভাবে করে দেয়ার অনুরোধ এখনো কানে বাজে। কত স্মৃতি আপনাকে নিয়ে।

লেখার প্রতি এত গুরুত্ব কোন জায়গায় কোন ছবি ব্যবহার করা উচিত এটা উনি ভালো করে জানতেন। আমি মাঝে মাঝে অবাক হতাম এতে সুন্দর এবং প্রাসঙ্গিক ছবি উনি পেতেন কোথায়। যাঁরা উনার কাছে ছিলেন বা মিশেছেন তাঁরা সবাই জানেন উনি এসব ব্যাপারে কতোটা আন্তরিক ছিলেন। কোন শিরোনাম পছন্দ না হলে সাজেশন দিতেন আমিও সাদরে সম্মতি জানাতাম।

অক্লান্ত পরিশ্রম করে ইউনাইটেড নিউজ টুয়েন্টিফোর ডট কমের তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে নিবন্ধন করিয়েছেন। ঢাকা সাব এডিটরস কাউন্সিলের নির্বাহী পরিষদ সদস্য হিসেবে নির্বাচন সব বিষয়ে কথা হতো পরিচিত অনেককে ভোট দিতে বলেছি। ভোটে জিতলেন সব কিছুই ঠিকঠাক ছিলো, হঠাৎ করে এই ছন্দপতন হবে ভাবিনি কোনদিন।

ফয়সল ভাই বিভিন্ন গণমাধ্যমে সফলতার সাথে কাজ করেছেন। সর্বশেষ তিনি ইউনাইটেড নিউজ টোয়েন্টিফোরডটকম এর সম্পাদক হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন।

সব সময় হাস্যোজ্জ্বল চেহারা। নরম সুরে কথা বলা, সবাইকে আপন করে নেয়ার অসাধারণ ক্ষমতা ও কাজ পাগল মানুষটির নাম আ.হ.ম ফয়সল। ফয়সল ভাই অত্যন্ত বিনয়ী ও ভালো মানুষ ছিলেন। তার মৃত্যুতে আমরা একজন সৎ ও যোগ্য গণমাধ্যম কর্মী এবং সহযোদ্ধাকে হারালাম।

মৃত্যুকালে তিনি বাবা-মা, বোন, স্ত্রী, এক ছেলে, আত্মীয়স্বজন ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাই। সবাইকে এই শোক সইবার জন্য সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করি।

উপরে ভালো থাকবেন ফয়সল ভাই। সৃষ্টিকর্তার কাছে এই কামনা করি।

লেখক: রিসার্চ ফেলো, বিএনএনআরসি

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here