নিজস্ব প্রতিবেদক ::
বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলায় বেপরোয়া হয়ে উঠেছে কিশোর গ্যাং। হামলা-মারপিটের অহরহ ঘটনাগুলো স্থানীয়দের মাঝে আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কিশোর গ্যাংয়ে যোগ না দেওয়ায় বাকেরগঞ্জ উপজেলায় সজীব গাজী (১৮) নামের এক কলেজ শিক্ষার্থীকে অমানবিক নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই কলেজ শিক্ষার্থীর পুরো শরীরেই আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে। ডান পায়ের আঙুল ভেঙে দিয়েছে। 
থানায় মামলা করতে গেলে অভিযোগটি জিডি হিসেবে গ্রহণ করেছে বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশ।
‘দুই কলিজাওয়ালা’ কিশোর গ্যাংয়ের প্রধান আব্দুল্লাহ’র বিরুদ্ধে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করা, মারধর, ইভটিজিং, ছিনতাই এবং মাদক কারবারের অভিযোগ রয়েছে।
জানা গেছে, কাটাখালী এলাকার আবু জাফর গাজীর ছেলে সজীব গাজী স্থানীয় কাকরধা কলেজের শিক্ষার্থী। গত ১০ নভেম্বর সজীবকে ফোন করে দেখা করতে বলে ‘দুই কলিজাওয়ালা’ কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা। কিশোর সজীবকে উত্তর গোবিন্দপুর আঙ্গারিয়া এলাকায় ডেকে নিয়ে ওই গ্যাংয়ে যোগ দিতে বলে গোবিন্দপুর চৌরাস্তার কিশোর গ্যাংয়ের প্রধান আব্দুল্লাহ, সহযোগি মিজান, রাশেদুল, শাকিল ও মুন্না। রাজি না হওয়ায় গাংয়ের কাজে বাধা এবং প্রেমঘটিত ঘটনার অপবাদে আটকে রেখে সজীবকে নির্যাতন করে ১৫/২০ জনের দলবদ্ধ কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা। শিক্ষার্থী সজীবের ডান পায়ের আঙুল ভেঙে দেয়। গুরুতর আহত অবস্থায় ওই শিক্ষার্থীকে বাকেরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ‘দুই কলিজাওয়ালা’ কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা ইছাপুরা বটতলা, কাটাখালী, দুর্গাপাশা, সেনের বাজার, চরলক্ষ্মীবর্ধন এলাকাসহ বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আশপাশে অবস্থান নেয়। নানা ধরণের অপরাধে সম্পৃক্ত হচ্ছে কিশোররা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সক্রিয় আইনগত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।
যোগাযোগ করা হলে কাকরধা পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ মনিরুজ্জামান বলেন, কলেজ শিক্ষার্থীকে মারধরের ঘটনায় থানায় অভিযোগ হয়েছে। তদন্ত করে আইনগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। কিশোর বয়সের ছেলেরা বিভিন্ন পয়েন্টে আড্ডা দেয়। আমার চোখে পড়লে কড়া ভাষায় সতর্ক করি।
Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here