কিশোরগঞ্জে পুরোনো দ্বন্দ্বে সংঘর্ষ, সাংবাদিকসহ আহত ৩০

ডেস্ক রিপোর্টঃঃ  কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ার পুলেরঘাটে পুরোনো দ্বন্দ্বে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। এতে সাংবাদিকসহ ৩০ জন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ এসে কয়েক রাউন্ড টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করেছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) সন্ধ্যার আগে উপজেলার পুলেরঘাট বাজারে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

গতকাল রাতে পাকুন্দিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সারওয়ার জাহান এসব তথ্য নিশ্চিত করেছিলেন। তিনি বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করেছে।

স্থানীয়রা জানান, কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদী-পাকুন্দিয়া) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সোহরাব উদ্দিন ও বর্তমান সংসদ সদস্য সাবেক আইজিপি নূর মোহাম্মদ গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে পুরোনো দ্বন্দ্ব চলে আসছে। গত কয়েকটি জাতীয় অনুষ্ঠানেই এ দুই গ্রপের সংঘর্ষে পাকুন্দিয়া বাজার ও পাটুয়াভাঙ্গা বাজার রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছিল। বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠান পালনকে কেন্দ্র করে পুলেরঘাট বাজারে আবার সংঘর্ষে জড়ায় দুপক্ষ। এ সময় চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের জেলা প্রতিনিধি খায়রুল আলম ফয়সালসহ দুই গ্রুপের ৩০ জন আহত হয়।

আহতদের মধ্যে স্থানীয়ভাবে ১২ জনের নাম পাওয়া গেছে। তারা হলেন চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের জেলা প্রতিনিধি খায়রুল আলম ফয়সাল (৩৩), পাকুন্দিয়া উপজেলার কলাদিয়া গ্রামের মাছুম (৩৫), জুনিয়াইল গ্রামের হারিছ (৩০), পাঁচলগোটা গ্রামের কবির (৩৫), পাকুন্দিয়া উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি নাজমুল আলম দেওয়ান (৪০), বিষুহাটি গ্রামের আরিফ (৩০), আদর্শপাড়া গ্রামের খায়রুল (৩৫), মাইজহাটি গ্রামের স্বপন (৩০), চণ্ডিপাশা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মতিউর রহমান (৬৫), ষাইটকাহন গ্রামের মুকুল (৩৫), পাকুন্দিয়া সদরের টিপু (৪০) ও রিপন (৩৮)।

আহতদের মধ্যে সাংবাদিক খায়রুল আলম ফয়সালকে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে ও স্বপনকে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা গেছে। আহত অন্যদের স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। কয়েকজনকে পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

পাকুন্দিয়া উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি ও বর্তমান সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদের সমর্থক নাজমুল হক দেওয়ান ঢাকা পোস্টকে বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আমরা পুলেরঘাট বাজারে অনুষ্ঠান করতে গেলে সাবেক সংসদ সদস্য সোহরাব উদ্দিনের সমর্থকরা বাধা দিলে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে আমিসহ আমার বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য সোহরাব উদ্দিনের সমর্থক ফরিদ উদ্দিন বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আমরা পুলেরঘাট বাজারে অনুষ্ঠান করতে গেলে বর্তমান সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদের লোকজন আমাদের বাধা দিলে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে আমাদের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here