ব্রেকিং নিউজ

করোনাভাইরাস: সব হাসপাতালে পৃথক ইউনিট চালুর নির্দেশ

স্টাফ রিপোর্টার :: চীন থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস যেন বাংলাদেশে সংক্রমিত না হয়, সে জন্য সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিয়েছে সরকার। এরই অংশ হিসেবে সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে সারাদেশের সরকারি হাসপাতালে পাঁচ শয্যার ‘আইসোলেশন ইউনিট’ চালু করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ধরনের রোগী শনাক্ত হলে তাদের আলাদা করে একটি নির্দিষ্ট জায়গায় রেখে চিকিৎসা দিতে এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এ ইউনিটে সার্বক্ষণিক অপিজেন রাখার পাশাপাশি সর্বোচ্চ চিকিৎসা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।

এ ছাড়া দেশের বিমান, নৌ ও স্থলবন্দরে নেওয়া হয়েছে সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা। প্রতিটি বন্দরে বাড়তি মেডিকেল টিম পাঠানো হচ্ছে।

চীনে মহামারি রূপ নেওয়া করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। বিভিন্ন দেশ এ ভাইরাস ঠেকাতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। চীনের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে মঙ্গোলিয়া।

সোমবার একদিনের ব্যবধানে চীনের হুবেই প্রদেশে মারা গেছেন ২৪ জন। শুধু এ প্রদেশেই মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৭৬। প্রথমবারের মতো একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে দক্ষিণাঞ্চলীয় দ্বীপরাজ্য হ্যানানে। দেশটিতে সব মিলিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮১ জনে। চীনের বাইরে অন্তত ১৩টি দেশে করোনাভাইরাসে ৫৫ জন আক্রান্ত হলেও এসব দেশে মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি। এ অবস্থায় করণীয় নিয়ে জরুরি বৈঠকের জন্য চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে পৌঁছেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেডরস আদহানম গেবরেসুস।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে বাংলাদেশেও আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। চীন থেকে এ পর্যন্ত দেশে আসা প্রায় আড়াই হাজার যাত্রীকে বিমানবন্দরে স্ক্রিনিং করা হয়েছে; কিন্তু কারও মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পাওয়া যায়নি। এ ছাড়া চীন থেকে দেশে আসার পর দু’জন জ্বরে আক্রান্ত হলেও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা গেছে, তারা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নন। এর পরও এই ভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক ও উদ্বেগ বাড়ছে। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য বিভাগ সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে সারাদেশের মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক, সিভিল সার্জন ও জেলা সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কসহ সব প্রতিষ্ঠান প্রধানকে এই ভাইরাস প্রতিরোধে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা স্বাক্ষরিত এক আদেশে সব হাসপাতালে পাঁচ শয্যা করে পৃথক ইউনিট চালু করার নির্দেশ দেওয়া হয়। ওই ইউনিটে করোনাভাইরাস সংক্রমিত রোগীর জন্য সার্বক্ষণিক অপিজেন এবং অন্যান্য সুবিধা রাখতে বলা হয়েছে।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে দেওয়া আদেশে আরও বলা হয়, চীনে একটি নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে এবং তা বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এই ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ এবং নিয়ন্ত্রণের পদক্ষেপ হিসেবে প্রতিটি হাসপাতালে পর্যাপ্ত চিকিৎসা নিশ্চিত করা আবশ্যক।

এর আগে সকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে সরকারি হাসপাতালের পরিচালক, বিভাগীয় পরিচালক, সিভিল সার্জনদের সঙ্গে করোনাভাইরাস নিয়ে ভিডিও কনফারেন্সের আয়োজন করা হয়। অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদসহ কর্মকর্তারা ভিডিও কনফারেন্সে করোনাভাইরাস মোকাবিলার জন্য করণীয় সম্পর্কে তাদের দিকনির্দেশনা দেন। একই সঙ্গে দেশের সব বিমান, নৌ ও স্থলবন্দরে বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার নির্দেশ দেন। ইতোমধ্যে বিশেষ মেডিকেল টিম বন্দরগুলোতে পাঠানো হয়েছে।

 

Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মিনিস্টারের নতুন সংযোজন “মিনিস্টার হিউম্যান কেয়ার”

ঢাকা :: দেশের মানুষের কথা মাথায় রেখে দেশীয় ব্র্যান্ড মিনিস্টার নিয়ে এলো তাদের ...