তানজিনা আক্তার লিজা :: একবিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে ভয়াবহ মহামারি হচ্ছে করোনা ভাইরাস। এই মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে গোটা বিশ্ব আজ স্তব্ধ। মানবজাতি যেন সুরক্ষিত থাকে সেজন্য লকডাউনের ব‍্যবস্থা গ্রহণ করা হয় সারা বিশ্বে। লকডাউনের এই অবস্থায় সমস্ত পেশাজীবী মানুষ, ছাত্র -ছাত্রীরা আজ ঘরবন্দী। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির এই বিশ্ব লকডাউন থাকা সত্বেও থেমে  নেই অনলাইন শিক্ষা ব্যবস্থা। করোনাকালীন এই পর্যায়েও  ধাপে ধাপে এগিয়ে যাচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম।  আর তা সম্ভব হয়েছে অনলাইন ব‍্যবস্থাপনার মাধ্যমে।
শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড । শিক্ষার অগ্রাধিকার কম হলে জাতি মেরুদন্ডহীন হয়ে পড়বে, লুটিয়ে পড়বে সারা বিশ্ব। শিক্ষা কার্যক্রম অগ্রসর করতে বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে নানান ধরনের পদক্ষেপ নিতে হয়েছে। শিক্ষার মান আজ সর্বোচ্চ কিন্তু করোনাকালীন এই  দুর্দশা পরিস্থিতিতে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার আদেশ জারি করা হয়।
আমাদের ডিজিটাল বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ধারায় অব্যাহত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে । তাই, সুরক্ষিত থাকার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকা সত্ত্বেও বন্ধ হয়নি আমাদের শিক্ষা গ্রহনের ব‍্যবস্থা। সেই শিক্ষা গ্রহনের জন্য বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে চালু করা হয় অনলাইন শিক্ষা ব‍্যবস্থা। অনলাইন শিক্ষা ব‍্যবস্থার মাধ্যমে আমরা এই ভয়াবহ করোনাকালীন পর্যায়েও এগিয়ে  নিয়ে যাচ্ছি আমাদের শিক্ষা কার্যক্রম।  গুনগত মান ঠিক রেখেই এগিয়ে যাচ্ছে আমাদের শিক্ষা কার্যক্রম।  বিশ্ববিদ্যালয়সহ সকল স্কুল- কলেজ ও অনলাইন শিক্ষা ব‍্যবস্থা পদ্ধতি চালু করা হয়। এই অনলাইন শিক্ষা ব‍্যবস্থা সারা বিশ্বে ব‍্যাপকভাবে অবদান রাখছে।
অনলাইন শিক্ষা ব‍্যবস্থা দ্বারা উপকৃত হচ্ছে বাংলাদেশের সকল শিক্ষার্থীরা। কারন, অনলাইন শিক্ষা ব‍্যবস্থা পদ্ধতি প্রচলিত হয়েছে ইন্টারনেট দ্বারা, এই ভার্চুয়াল শিক্ষা ব‍্যবস্থায় শিক্ষক তার বিষয় ভিত্তিক একটি পিডিএফ ফাইল তৈরি করে তা মাল্টিমিডিয়া পর্যায়ে  প্রচারণা করতে পারছে এবং শিক্ষার্থীরস সেই পিডিএফ ফাইল অথবা মাল্টিমিডিয়া কতৃক ক্লাসের রেকর্ড বা ভিডিও সংরক্ষণ করে পরবর্তীতে পুনরায় কোন পড়া না বুঝলে তা দেখে শিখতে পারছে। অনলাইন শিক্ষা ব‍্যবস্থায় মাধ্যমিক, উচ্চমাধ‍্যমিক সকল শিক্ষার্থীদের  জন্য  প্রযোজ্য। অনলাইন শিক্ষা ব‍্যবস্থায় এই সংকটপূর্ন অবস্থায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকা সত্ত্বেও নির্ধারিত সময়ে আমরা আমাদের পরীক্ষায় উপস্থিত হয়ে পরীক্ষা খুব ভালো ভাবে সম্পূর্ণ করতে পারছি। শুধু তাই নয়, পরীক্ষার ফলাফলও প‍্রকাশ হচ্ছে একইভাবে এই পদ্ধতিতে। সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে তাদের সেমিষ্টার গুলো খুব ভালো ভাবে সম্পূর্ণ হচ্ছে।  মৌখিক পরীক্ষাসহ  যাবতীয় বিষয়ে সম্পূর্ণ করতে পারছি শুধু মাত্র অনলাইন শিক্ষা ব‍্যবস্থা দ্বারা। করোনাকালীন এই পর্যায়ে টেলিভিশনসহ সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে ও সরাসরি সম্প্রচারিত হয় নানান বিষয় ভিত্তিক শিক্ষা মূলক অনুষ্ঠান যা নাকি  অনলাইন শিক্ষা ব‍্যবস্থাপনার এই অন্তর্ভুক্ত অংশ।
শিক্ষার মান যেনো ক্রমাগত  আরো উন্নত হয় তাই বাংলাদেশে করোনাকালীন এই পর্যায়ে চালু করা হয় অনলাইন শিক্ষা পদ্ধতি। শিক্ষার মানকে সমৃদ্ধ করার জন্য এই ভার্চুয়াল শিক্ষা ব‍্যবস্থা গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করছে। বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম চালু  আছে।  শিক্ষার্থীরা বিশ্বের যে কোন জায়গায় বসে অনলাইন কোর্স গুলো সম্পন্ন করতে পারেন। বর্তমানে বিশ্বের সকল দেশে অনলাইন শিক্ষা ব্যাপক জনপ্রিয়। বাংলাদেশ সরকার ও ইউজিসির নির্দেশনা দিয়েছেন অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম চালু করতে।  শিক্ষার্থীরা যাতে সেশনজটে না পড়ে সেজন্যই অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম চালু হয়েছে। শিক্ষার্থীরা যাতে যথা সময়ে কোর্স সম্পন্ন করতে পারেন। এই বৈশ্বিক সংকটে বাংলাদেশে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমের কোন বিকল্প নেই।
লেখক: শিক্ষার্থী, ফার্মেসি বিভাগ, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।
Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here