এ কেমন বর্বরতা !

শাহারিয়ার রহমান রকি, ঝিনাইদহ

তালাক দেওয়া স্ত্রীর সাথে দেখা করার অপরাধে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার ভোলপাড়া গ্রামবাসী এক দম্পত্ত্বিকে ৫ ঘন্টা বেঁধে রাখে এবং পরে সালিস বসিয়ে মাথার চুল কেটে মুখসহ শরীরের বিভিন্ন জাাইগা মবিল,চুন,কালি মাখিয়ে দিয়ে গ্রাম ঘুরিয়েছে।

এই বর্বর ঘটনাটি ঘটেছে গত রোববার রাত ১০ টার দিকে। ঘটনার শিকারা ঐ দম্পত্ত্বি একই উপজেলার তালিয়ান গ্রামের মনিরুল ইসলামের ছেলে সাদ্দাম হোসেন (৩০) ও ভোলপাড়া গ্রামের মতলেব খাঁনের মেয়ে রেকসনা খাতুন (২২)।

গ্রামবাসী জানান,গত তিন মাস পূর্বে সাদ্দাম হোসেন বিয়ে করেন একই উপজেলার রোকসনা খাতুনকে।  উল্লেখ্য রোকসনা খাতুনের ইতিপূর্বে বিয়ে হয়েছিল, কিন’ স্বামী মারা গেছে। কিন’ পরে সাদ্দামের সাথে বিয়ের পর তাদের ঠিকমতো সংসার হয়নি। গত ১৫ দিন হলো তাদের ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে।

গ্রামবাসী আরো জানান, ছাড়াছাড়ির পরও মায়ার টানে তারা মাঝে মধ্যে বিভিন্ন স’ানে দেখা করতো। এরই ধারাবাহিকতায় গত রোববার বিকাল ৪ টার দিকে তারা ভোলপাড়া গ্রামের রাস-ায় দাড়িয়ে কথা বলছিলেন। এমন সময় গ্রামের কতিপয় ব্যক্তি তাদের বকাবাজি শুরু করে। এরপর স’ানীয় নিয়ামতপুর ইউনিয়নের মেম্বর হাফিজুর রহমান এর বাড়িতে নিয়ে তাদের বেঁধে রাখা হয়।

রাত ১০টায় বসে মেম্বর এর বাড়িতে সালিস। কয়েকশত লোকের উপসি’তিতে এই সালিস এগিয়ে চলে। রাত ১১টার সময় সালিসে মেম্বর রায় দেন তাদের দু’জনের চুল কেটে চুন-কালি দিয়ে গ্রাম ঘুরাতে হবে। রায় অনুযায়ী কাটা হয় চুল। এরপর চুন , কালি ও পোড়া মবিল লাগানো হয় তাদের। যুবকের চেয়ে যুবতীর শরীরে মবিল ঢালা হয় বেশী। তারপর সালিসের স’ান ঘুরিয়ে তাদের কোলা পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়।

এ ব্যাপারে গ্রামের একাধিক ব্যক্তি জানান, এটা বর্বর ঘটনা। একটা স্বাধীন দেশে াএমন বর্বর ঘটনা ঘটতে পারে না। এভাবে শত শত মানুষের সামনে একটি মেয়ের মাথার চুল কেটে চুন-কালি লাগিয়ে দেওয়া খুবই দুঃখজনক।

কিন’ গ্রামের মেম্বর প্রভাবশালী হওয়ায় তারা কেউ প্রতিবাদ করতে পারেনি।

গ্রামের যুবক রাসেল জানান, এ ধরণের বিচার করার অধিকার গ্রামবাসী রাখে না। আইনগতভাবে পদক্ষেপ নেওয়া দরকার ছিল। তিনি বলেন, এভাবে যারা চুল কেটেছে তাদের বিচার হওয়া উচিত।

এ ব্যাপারে সরজমিনে গিয়ে আজ দুপুরে অভিযুক্ত মেম্বর হাফিজুর রহমানের সাথে আলাপ করলে তিনি জানান, গ্রামবাসীর সবার সিদ্ধানে- তার বাড়িতে এই সালিশ হয়। কিন’ তিনি তার বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ অস্বীকার করেন। এতে করে স’ানীয় লোকজন আরোও বিক্ষুব্ধ হয়ে পড়ে।

এব্যপারে কালীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সৈয়দ কামরুজ্জামান জানান, এটা খুবই অপরাধ। এ জাতীয় বিচার করার অধিকার কারো নেই। এই ঘটনাটির তদন্‌কত করে সঠিক বিচার করা হবে।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন- জানা গেছে ৮ জনকে আসামী করে থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ভারতের সাথে আছেন সৌদি যুবরাজ

সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ভারতের সাথে আছেন সৌদি যুবরাজ

ডেস্ক নিউজ :: কাশ্মীরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় ভারতীয় সেনাদের হত্যার জের ধরে ...