এবারো লজ্জায় পরলো বাংলাদেশ!

স্পোর্টস ডেস্কঃ গ্রেনাডায় সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেওয়া ২৪৮ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরু থেকেই খেই হারিয়ে ফেলল মুশফিকুর

রহিমের দল। ২৪.৪ ওভারে মাত্র ৭০ রানে অলআউট হয়ে ১৭৭ রানে হারল বাংলাদেশ। এক ম্যাচ বাকি থাকতে সিরিজ হারায় সেন্ট কিটসে শেষ ম্যাচটা হয়ে দাঁড়াল স্রেফ আনুষ্ঠানিকতায় ।

ওয়ানডে ম্যাচে এটি বাংলাদেশের তৃতীয় সর্বনিম্ন রান। সর্বনিম্ন ৫৮ রান করেছিল এই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেই, ২০১১ বিশ্বকাপে। অবশ্য ৫৮ রানের সর্বনিম্ন রানের আরেকটি রেকর্ড আছে ভারতের বিপক্ষে।

গত বছর ৩ নভেম্বর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের শেষ ওয়ানডে ম্যাচে ৪ উইকেটে জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। এরপর জয় যেন বাংলাদেশের কাছে মরিচিকা। এর মধ্যে ১১টি ওয়ানডেতে জয় নেই একটিতেও। সে তালিকায় যোগ হলো আরও একটি ম্যাচ। ব্যর্থতার এ বৃত্ত থেকে কবে বেরোবেন মুশফিকরা, সে উত্তর আপাত অজানা।

বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয়টিতে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে করে ৭ উইকেটে ২৪৭ রান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৮ রান করেন ওপেনার ক্রিস গেইল। এছাড়া ড্যারেন ব্র্যাভো ৫৩, লেন্ডল সিমন্স ৪০, রামদিন ৩৪ এবং পোলার্ড করেন ২৬ রান। সুনীর ন্যারিন ৭ এবং জেসন হোল্ডার ৮ রানে অপরাজিত থাকেন।

টসে জিতে ফিল্ডিংয়ে নেমে শুরুতেই সফলতা পেয়েছিল বাংলাদেশ। ক্যারিবীয় শিবিরে আঘাত হানেন পেসার আল আমিন হোসেন। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে দারুণ এক ইনসুংয়ে কার্ক এডওয়ার্ডের (০) স্ট্যাম্প উপড়ে ফেলেন এই পেসার।

৫ রানে প্রথম উইকেট হারালেও দ্বিতীয় উইকেটে ওপেনার ক্রিস গেইল ড্যারেন ব্র্যাভোকে সাথে নিয়ে ৮৮ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। ৬৭ বলে ৫৮ রান গেইল মাহমুদুল্লার বলে সোহাগ গাজীর হাতে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন।

১৭১ রানে আল আমিনের বলে ক্যারিবীয় উইকেটরক্ষক দিনেশ রামদিন উইকেটের পেছনে মুশফিকের ক্যাচে পরিণত হলে চতুর্থ উইকেট হারায় স্বাগতিকরা। দিনেশ রামদিন করেন ২৭ রান।

গেইলের বিদায়ের পর ড্যারেন ব্র্যাভো-দিনেশ রামদিন ৫১ রানের জুটি গড়ে বিচ্ছিন্ন হন। স্পিনার সোহাগ গাজীর বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পা দেয়ার আগে নিজের নামের পাশে ৫৩ রান যোগ করেন ড্যারেন ব্র্যাভো। এরপর ১৭১ রানে রামদিনকে ফেরান আল-আমিন হোসেন। রামদিন করেন ৩৪ রান। ২২২ রানের মাথায় মারকুটে কিরন পোলার্ডকে সরাসরি বোল্ড করে দেন দেশসেরা পেসার মাশরাফি। ২০ বলে ২৬ রান করেন পোলার্ড।

মাশরাফি তার ১০ম ওভারের তৃতীয় বলে লেন্ডন সিমন্স এবং চতুর্থ বলে ক্যারিবীয় অধিনায়ক ডোয়াইন ব্র্যাভোকে ফিরিয়ে দিয়ে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগিয়ে তোলেন। কিন্তু মাশরাফির করা পঞ্চম বলটি সুনীল ন্যারিন দক্ষতার সাথে মোকাবেলা করলে হ্যাটট্রিক বঞ্চিত হন মাশরাফি।

আল-আমিনের করা শেষ ওভারে সুনীল ন্যারিন ও জেসন হোল্ডার ১৫ রান যোগ করলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২৪৭/৭।

পেসার মাশরাফি তিনটি, আল-আমিন হোসেন দু’টি এবং মাহামুদুল্লাহ রিয়াদ ও সোহাগ গাজী একটি করে উইকেট নেন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বাবা হলেন রুবেল

স্টাফ রিপোর্টার :: বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সিমার রুবেল হোসেন বাবা হয়েছেন। ...