শতবর্ষের উপহার হিসেবে উন্নয়ন ফি মওকুফ করল ঢাবির আরবি বিভাগ

ডেস্ক রিপোর্টঃঃ  বিভাগ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষের উপহার হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) আরবি বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতকোত্তরের উন্নয়ন ফি সম্পূর্ণ মওকুফ করা হয়েছে।

রোববার (৩ জুলাই) শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষিতে শতবর্ষের উপহার হিসেবে বিভাগের একাডেমিক কাউন্সিলে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানিয়েছেন আরবি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আব্দুল কাদির।

তিনি বলেন, শতবর্ষের উপহার হিসেবে আরবি বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতকোত্তরের চলতি শিক্ষাবর্ষের উন্নয়ন ফি সম্পূর্ণ মওকুফ করা হয়েছে। আমাদের বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের জন্য উন্নয়ন ফি ছিল চার হাজার, ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের জন্য ছিল পাঁচ হাজার, আবার ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের জন্য ছিল চার হাজার।

তিনি আরও বলেন, গতবছর করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের জন্য ১ হাজার কমানো হয়েছিল। আমরা এ বছর পুনরায় পাঁচ হাজার টাকা উন্নয়ন ফি ধার্য করেছিলাম। শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষিতে পরে চার হাজার টাকা ধার্য করেছিলাম। পরবর্তীতে শিক্ষার্থীরা আবারও দাবি করলে একাডেমিক মিটিংয়ে আলোচনা করে শতবর্ষী বিভাগ হিসেবে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ উপলক্ষে শিক্ষার্থীদের চলতি বছরের পুরো উন্নয়ন ফি মওকুফ করার সিদ্ধান্ত নিই।

ফি মওকুফের আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের উন্নয়ন ফি কমানোর দাবি করায় মাস্টার্সের প্রথম সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা দু’দফা স্থগিত করে বিভাগটির একাডেমিক কমিটি। সেই সঙ্গে ফি কমানোর দাবি করায় কয়েকজন শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠে বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল কাদির বিরুদ্ধে। তবে সেই সময়ে চেয়ারম্যান দাবি করে, শিক্ষার্থীরা ভর্তি না হওয়ায় পরীক্ষা সাময়িকভাবে পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

বিভাগ সূত্রে জানা যায়, শিক্ষার্থীদের দাবি ছিল উন্নয়ন ফি ২০০০ টাকা করার কিন্তু বিভাগ সেটি কোনভাবেই মেনে নেয়নি। পরে কয়েকজন শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের সঙ্গে দেখা করে বিষয়টি জানান। পরে সাদ্দাম হোসেন বিভাগের চেয়ারম্যানের সঙ্গে তার কার্যালয়ে দেখা করে শিক্ষার্থীবান্ধব সিদ্ধান্ত নেওয়ার অনুরোধ জানান।

এরপর রোববার (৩ জুলাই) বিভাগটির একাডেমিক কমিটির সভায় ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতকোত্তরের চলতি শিক্ষাবর্ষের উন্নয়ন ফি সম্পূর্ণ মওকুফ করার সিদ্ধান্ত আসে।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here