ইতালিতে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত

ইতালিতে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত।

ইসমাইল হোসেন স্বপন. ইতালী থেকে :: ১০ জানুয়ারি রোজ বৃহস্পতিবার  ইতালির মিলান শহরের স্হানীয় একটি বাংলাদেশী তাজমহল রেস্তরায় যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে পালিত হলো ৪৭ তম জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন  দিবস।পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাঙালি বিজয় অর্জনের পর স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি প্রিয় জন্ম ভূমিতে ফিরে আসেন।

দীর্ঘ নয় মাস ব্যাপী  আন্দোলন-সংগ্রামের পথ পাড়ি দিয়ে ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ বাংলাদেশ স্বাধীন হয়। পাকিস্তানের শাসন-শোষণ ও অত্যাচার-নির্যাতনের হাত থেকে বাঙালি জাতিকে মুক্ত করতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা ও স্বাধিকার আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন। এ আন্দোলনের নেতৃত্ব দিতে গিয়ে জীবনের একটা বড় সময় শেখ মুজিবকে বার বার জেল, জুলুম ও অত্যাচার-নির্যাতন ভোগ করতে হয়। পাকিস্তান ঔপনিবেশিক শাসনের বিরুদ্ধে গড়ে উঠা বাঙালির সব আন্দোলনের নেতৃত্ব দেওয়ার মধ্য দিয়েই শেখ মুজিবুর রহমান হয়ে ওঠেন জাতির অবিসংবাদিত নেতা এবং ভুষিত হন বঙ্গবন্ধু উপাধিতে।

আন্দোলন-সংগ্রামের চূড়ান্ত পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে বাঙালি জাতিকে মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দেন। ২৫ মার্চ কাল রাতে পাকিস্তানি বর্বর হানাদার বাহিনী বাঙালি জাতির উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে গণহত্যা চালাতে শুরু করে। এ ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে বঙ্গবন্ধু তার ধানমন্ডির বাসভবন থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। এর পর পরই বঙ্গবন্ধুকে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী গ্রেফতার করে নিয়ে যায়।

শুরু হয় বাঙালির সশন্ত্র মুক্তিযুদ্ধ। দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ চলতে থাকে। এ সময় বঙ্গবন্ধুকে পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি রেখে তার উপর নির্যাতন চালানো হয়। পাকিস্তানিরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার নানা পরিকল্পনা তৈরি করে। জেলের মধ্যে অত্যাচার নির্যাতনই শুধু নয়, তাকে ফাঁসির মঞ্চেও নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু দেশে-বিদেশে বঙ্গবন্ধুর জনপ্রিয়তা ও তার অদম্য সাহসের কাছে শেষ পর্যন্ত হারমানে পাকিস্তানের শাসক গোষ্ঠী এবং সেনাবাহিনী।

এদিকে বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতেই বাঙালি জাতি বঙ্গন্ধুর আদর্শে ও নির্দেশিত পথে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ চালিয়ে যায়। যতোদিন যেতে থাকে যত রক্ত ঝরতে থাকে,স্বদেশের মাটিকে হানাদার মুক্ত করতে বাঙালি ততোই মরিয়া হয়ে উঠে। মুক্তিবাহিনী এবং মিত্রবাহিনীর যৌথ প্রতিরোধের মুখে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তান হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়।

পাকিস্তানের আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতি বিজয় অর্জন করেন। মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদ হন ও ৩ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রম হারান। এতো রক্ত ও প্রাণের বিনিময়ে বিজয় এলেও মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি থাকায় বাঙালির অর্জিত বিজয় পূর্ণতা পায়নি। বিজয়ী বাঙালি জাতি উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্য দিয়ে অপেক্ষা করতে থাকে তাদের নেতার ফিরে আসার।

মুক্তিযুদ্ধে বিজয় অর্জনের পর বিশ্বব্যাপী বঙ্গবন্ধু জনপ্রিয়তা আরও বাড়তে থাকে। বাঙালির পাশাপাশি বিশ্বের স্বাধীনতা ও শান্তিকামি মানুষও বঙ্গবন্ধুর মুক্তির দাবিতে সোচ্চার হয়ে উঠে। আন্তর্জাতিক চাপের কাছে নতিস্বীকার করে অবশেষে ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয় পাকিস্তান। কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে বঙ্গবন্ধু সোজা লন্ডন চলে যান। সেখান থেকে ভারত হয়ে ১০ জানুয়ারি স্বদেশে ফেরেন। সেদিন সারা দেশ থেকে মানুষ ছুটে আসেন তাদের নেতাকে একবার দেখর দেখার জন্য। স্বাধীন দেশে ফিরে বাঙালির ভালবাসায় সিক্ত হন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বিমানবন্দর থেকে লাখ লাখ জনতার জনসমুদ্র পাড়ি দিয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে (তৎকালীন রেসকোর্স) দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধু তার বক্তব্যে বলেছিলেন, বাঙালি আমাকে যে ভালোবাসা দিয়েছে সেই বাঙালির জন্য আমি রক্ত দিতেও প্রস্তুত। এর মাত্র সাড়ে তিন বছরের মাথায় ৭৫ এর ১৫ আগস্ট স্বাধীনতার পরাজিত শত্রু ও দেশি-বিদেশি চক্রের ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে ঘাতকের হাতে স্বপরিবারে জীবন দেন।

ইতালি আওয়ামী লীগ লোম্বারদিয়া শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আ: মান্নান মালিথার সভাপতিত্বে এবং ভারপ্রাপ্ত  সাধারণ সম্পাদক জামিল আহমেদ’র পরিচালনায় সভার শুরুতেই কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মাওলানা রবিউল ইসলাম এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু,আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সহ সকল শহীদদের  আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া মোনাজাত করেন মাওলানা জাহিদুল ইসলাম।

বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন  দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরেন এবং জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন,পাকিস্তানের কারাগারেরর বন্দিদশা থেকে দীর্ঘ নয় মাস পর মুক্তিলাভ ও ১০ জানুয়ারী ১৯৭২ সালে রক্তস্নাত স্বদেশের বুকে ফিরে আসেন, লাখো জনতার ভীরে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আবেগ জড়িত কন্ঠের বিভিন্ন দিক তুলে বক্তব্য রাখেন, ইতালি আওয়ামী লীগ লোম্বার্দিয়া শাখার ভারপ্রাপ্ত  সভাপতি জনাব আ: মান্নান মালিথা, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জামিল আহমেদ, সম্মানিত সদস্য রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব আকরাম হোসেন,সহ সভাপতি দেলোয়ার হোসেন মোল্লা,যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক তুহিন মাহামুদ, সহ সভাপতি আবু আলম, বঙ্গবন্ধু পরিষদ সভাপতি হাজ্বী শাহআলম, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি তোফায়েল আহমেদ খান তপু, সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম কাওছার, শ্রমিক লীগ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুনছুর খালাসীআ’লীগ সদস্য কাওছার, ইউনুছ মোড়ল, শামিম হাওলাদারসহ  প্রমূখ নেতৃবৃন্দ।সভায় উপস্হিত ছিলেন,জনতা ব্যাংকের ম্যানেজার মিজানুর রহমান সহ আরও অনেকে।

তবারক বিতরণের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ভ্যাটিকান পোপ ফ্রান্সিস

মা-বাবাদের প্রতি পোপ: সন্তানের সামনে ঝগড়া নয়

ডেস্ক নিউজ :: সন্তানদের সামনে ঝগড়া না করার জন্য মা-বাবার প্রতি পরামর্শ ...