শিপুফরাজী, চরফ্যাশন প্রতিনিধি :: চরফ্যাশনের পর্যটনের অপার সম্ভাবনাময় উপকূলীয অঞ্চলের অবকাঠামােগত উন্নযন, বিনােদনের পর্যাপ্ত সুযােগ সৃষ্টি, পর্যটন আকর্ষনের বহুমাত্রিকতা বৃদ্ধি, নিরাপত্তা বিধান, পর্যটন খাতে বিনিযােগ বান্ধব পরিবেশন সৃষ্টি, বাজারসংযোগ এবং সেবা প্রদানকারীদের দক্ষতা উন্নযনের লক্ষ্যে পিকেএসএফের আর্থিক সহযোগিতায পরিবার উন্নযন সংস্থা (এফডিএ) এর বাস্তবায়নে পেইস প্রজেক্ট এর আওতায কাঁকডা চাষ উন্নযন প্রকল্প এবং ইকোট্যুরিজম প্রকল্পের মাধ্যমে চরকুকরিমুকরি ও দক্ষিণ আইচার ১৭ জন সুবিধাভোগীর মধ্যে ১৭টি ডিঙি নৌকা ও কাঁকডা চাষের উপকরণ বিতরণ করা হয।

উপকরণ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চরফ্যাশন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন, বিশেষ অতিথি হিসেবে চরকুকরিমুকরি ইউনিযনের চেযারম্যান অধ্যক্ষ আবুল হাসেম মহাজন ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক মোঃ কামাল উদ্দিন।

অনুষ্ঠানে বক্তারা কাঁকডা চাষ ও ইকো ট্যুরিজম প্রকল্পের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বলেন, উপকূলীয জেলা ভোলার থেকে চরফ্যাশন উপজেলার বিছিন্ন জনপদ একটি ইউনিযন হল চর কুকরি মুকরি। দ্বীপের পূর্বদিকে প্রমত্তা মেঘনা ও শাহাবাজপুর চ্যানেল। দক্ষিণান্তে বঙ্গোপসাগর, পূর্বে বুডাগৌডাঙ্গ এবং মেঘনার মিলনস্থল। একদিকে বঙ্গোপসাগরে উত্তাল ঢেউ বৈরী বাতাস, চিরসবুজ গাছ-গাছালি, মন ভুলানো সমুদ্র সৈকত, মায়া হরিণের দল আর অসংখ্য নাম না জানা পাখ-পাখালি বিস্তৃত সবুজ বনাঞ্চল এই দ্বীপটিকে ভ্রমণ বিলাসীদের তীর্থ ভূমিতে পরিণত হযেেছ। কুকরি মুকরির ৮০ মানুষের পেশা মৎস্য আহরণ। কিন্তু বছরের প্রায ৫মাস তারা কোন অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের সাথে জডতি থাকে না। যদি চর কুকরি মুকরির নৈসর্গিক সৌন্দর্য দেশীয ও আন্তর্জাতিক পর্যটকদের কাছে উপস্থাপনের জন্য কর্মকা-বাস্তবায়ন করা যায় তাহলে উক্ত অঞ্চলের অর্থনৈতিক ভিত্তিটা শক্তি হতে পারে।

 

 

 

 

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here