আমেরিকা যা পারেনি, বাংলাদেশ তা পেরেছে: প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার ::  বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি, এগিয়ে নিয়ে যাবো। এদেশ হবে উন্নত-সমৃদ্ধ। আমেরিকার মতো দেশে এখনো পর্যন্ত কোনও নারী রাষ্ট্রপ্রধান হতে পারেননি। আমেরিকা যা পারেনি, বাংলাদেশ তা পেরেছে। প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, বিরোধী দলীয় নেত্রী ও সংসদ উপনেতা সবাই নারী। বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার সকালে বেগম রোকেয়া দিবস-২০১৮ উপলক্ষে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

সন্তানদের সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদক থেকে দূরে রাখতে মায়েদের সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সন্তানদের সঙ্গে এমন সম্পর্ক রাখতে হবে, যাতে কোনও সুখ, দুঃখের কথা ছেলে-মেয়েরা মায়েদের কাছে বলতে পারে।

নারীদের কল্যাণে গৃহীত পদক্ষেপ তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমেরিকার মতো দেশে এখনো পর্যন্ত কোনও মহিলা প্রেসিডেন্ট হতে পারেনি।

তিনি বলেন, মেয়েদের সব ক্ষেত্রে সুযোগ দিতে হবে। তারা যেন আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হতে পারে। তাহলে পরিবারেও তাদের গুরুত্ব বাড়বে। মেয়েদের অধিকার আদায় করতে নিতে হবে। পাশাপাশি তাদের মধ্যে পরিমিবোধও বাড়াতে হবে। অধিকার আদায় করতে গিয়ে পারিবারিক ঝামেলা যেন না সৃষ্টি হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সন্তানের পরিচয়ে মায়ের নাম আমরাই প্রথম অন্তর্ভুক্ত করেছি। মা জন্ম দেন। মা-ই বোঝেন সন্তান জন্ম দেয়ার কষ্ট। নারীরা অনেক কষ্টসহিষ্ণু। পুরুষদের গড় আয়ু বর্তমানে ৭১, নারীর ৭৩। এ থেকেও স্পষ্ট হয় নারী বেশি কষ্টসহিষ্ণু।’

তিনি বলেন, নারী নেতৃত্বকে এগিয়ে নিয়েছে আমাদের উপমহাদেশের নারীরাই। আমরাই প্রথম প্রশাসনের সর্বোচ্চ পর্যায়েও নারীদের অধিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছি।

তিনি আরও বলেন, নারীদের প্রথম ডিসি, এসপি, সেক্রেটারি ও হাইকোর্টের জজ করে দেই। পাকিস্তান আমলে নারীদের জজ করার আইন ছিল না। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর জাতির পিতা এই সুযোগ করে দেন। এই অঞ্চলের মানুষই সারাবিশ্বকে পথ দেখিয়েছে।

নারীর ক্ষমতায়নে বিভিন্নভাবে অবদান রাখায় এ বছর বেগম রোকেয়া পদক পেলেন পাঁচ নারী। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী তাদের হাতে পদক তুলে দেন। এ বছরে বেগম রোকেয়া পুরস্কার পেলেন- সাবেক মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জিন্নাতুনন্নেসা তালুকদার, প্রফেসর জোগরা আনিস, শীলা রায়, রমা চৌধুরী (মরনোত্তর) ও রোকেয়া বেগম। পদকপ্রাপ্তদের প্রত্যেককে ২৫ গ্রাম স্বর্ণের পদক, একটি সার্টিফিকেট ও দুই লাখ করে টাকা দেয়া হয়। পদকপ্রাপ্ত জিন্নাতুনন্নেসা তালুকদার নিজের অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে পদককে তিনি দেশের নারী সমাজকে উৎসর্গ করেন।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুলের জন্মদিন আজ। শেখ হাসিনা বলেন, আজ আমার মেয়ের জন্মদিন, সায়মার জন্য সবার দোয়া চাই।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ডাকসু নির্বাচন

ডাকসু নির্বাচন ১১ মার্চ

স্টাফ রিপোর্টার :: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ ...